ক্রেডিট ফি মওকুফ: স্বস্তির নিশ্বাস হাবিপ্রবি শিক্ষার্থীদের

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১,   আশ্বিন ১ ১৪২৮,   ০৭ সফর ১৪৪৩

ক্রেডিট ফি মওকুফ: স্বস্তির নিশ্বাস হাবিপ্রবি শিক্ষার্থীদের

হাবিপ্রবি প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৪:৫৪ ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১  

ভিসি অধ্যাপক ড. এম কামরুজ্জামানের অনুমোদনক্রমে ও রেজিস্ট্রার স্বাক্ষরিত এক অফিশ আদেশের মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়।

ভিসি অধ্যাপক ড. এম কামরুজ্জামানের অনুমোদনক্রমে ও রেজিস্ট্রার স্বাক্ষরিত এক অফিশ আদেশের মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়।

হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (হাবিপ্রবি) অধ্যায়নরত বোর্ড বৃত্তিপ্রাপ্ত (উচ্চ-মাধ্যমিক) শিক্ষার্থীদের ক্রেডিট ফি মওকুফ করে অফিস আদেশ জারি করা হয়েছে। 

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হাবিপ্রবির রেজিস্ট্রার বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক ডা. মো. ফজলুল হক। ভিসি অধ্যাপক ড. এম কামরুজ্জামানের অনুমোদনক্রমে ও রেজিস্ট্রার স্বাক্ষরিত এক অফিশ আদেশের মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়।

শর্তাবলী:
১। এ আদেশ  ২০২০ সালের জানুয়ারী-জুন সেমিস্টার হতে কোর্সের মেয়াদকালীন ৪-৫ বছর সময়ের জন্য প্রযোজ্য হবে। 

২। এ আদেশ কেবলমাত্র নিয়মিত পরীক্ষায় অংশগ্রহনকারী উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে। 

৩। সংশ্লিষ্ট শিক্ষার্থীদের সদাচরণ, প্রতিষ্ঠানে নিয়মিত উপস্থিতি পাঠোন্নতি সাপেক্ষে শিক্ষর্থীরা এ ক্রেডিট ফি মওকুফের সুবিধা পাবে। কোনোভাবেই অনিয়মিত শিক্ষার্থীরা এ সুবিধা পাবে না। 

৪। এ আদেশ মোতাবেক কোর্সের ত্রেডিট-ফি মওকুফ সুবিধা পেতে হলে শিক্ষার্থীদের বোর্ডবৃত্তির প্রাপ্তির সনদসহ সংশ্লিষ্ট ডিন বরাবর আবেদন করতে হবে।

৫। প্রয়োজনবোধে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এই আদেশ সংশোধন, প্রয়োজনে বাতিল করতে পারবে।

এ ব্যাপারে রেজিস্ট্রার বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক ডা. মো. ফজলুল হক বলেন, যেহেতু বোর্ড বৃত্তিপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের ক্রেডিট ফি মওকুফ করার ব্যাপারে সরকারি নির্দেশনা ছিলো। সেহেতু আমরা উক্ত বিষয়ে দ্রুতই সিদ্ধান্ত নিতে পেরেছি। ভিসি মহোদয় এ ব্যাপারে সম্মতি দিয়েছিলেন বলেই অতি অল্প সময়ের মাঝেই এ বিষয়ে অফিস আদেশ জারি করা সম্ভব হয়েছে।

এই খবরে বিজনেস স্টাডিজ অনুষদের শিক্ষার্থী নাজিম আহমেদ বলেন, আমাদের দাবি মেনে বোর্ড বৃত্তিপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের কোর্স ফি মওকুফ করায় আমরা অত্যান্ত আনন্দিত। আমাদের যৌক্তিক দাবিটি হাবিপ্রবি সাংবাদিক সমিতি সুন্দরভাবে শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে প্রশাসনের কাছে তুলে ধরেছে। তাই বিশেষ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি হাবিপ্রবি সাংবাদিক সমিতির প্রতি। আশা করি হাবিপ্রবিসাস শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক দাবি আগামীতে আরো বেশি বেশি তুলে ধরবে।

গত ৩০ জুলাই হাবিপ্রবি সাংবাদিক সমিতি আয়োজিত লাইভ অনুষ্ঠান ‘সেঁতুবন্ধনে’ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির দৃষ্টি আকর্ষণ করেন বোর্ড বৃত্তিপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীরা। এরপর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এমন সিদ্ধান্ত নেয় বলে জানা যায়।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম