যেসব কারণে ঢাবি ছাত্রীর মৃত্যু 

ঢাকা, শনিবার   ১৯ জুন ২০২১,   আষাঢ় ৫ ১৪২৮,   ০৭ জ্বিলকদ ১৪৪২

যেসব কারণে ঢাবি ছাত্রীর মৃত্যু 

ঢাবি প্রতিনিধি  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৭:০৬ ৬ জুন ২০২১   আপডেট: ১৭:১১ ৬ জুন ২০২১

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ইসরাত জাহান তুষ্টি (২১) আগে থেকেই শ্বাসকষ্টজনিত নানা সমস্যায় ভুগছিলেন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ইসরাত জাহান তুষ্টি (২১) আগে থেকেই শ্বাসকষ্টজনিত নানা সমস্যায় ভুগছিলেন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ইসরাত জাহান তুষ্টি (২১) আগে থেকেই শ্বাসকষ্টজনিত নানা সমস্যায় ভুগছিলেন বলে জানান তার রুমমেট, পরিবার ও বন্ধুরা। অ্যাজমা (হাঁপানি) ও শ্বাসকষ্টের সমস্যার মধ্যে বৃষ্টিতে ভেঁজায় শরীর একটু বেশি খারাপ থাকার ফলে মৃত্যু হতে পারে বলে ধারণা তাদের। 

রোববার সকালে রাজধানীর আজিমপুর সরকারি স্টাফ কোয়ার্টারের ইউনিট ২- এর ১৮ নম্বর ভবনের নিচতলায় একটি রুমের বাথরুম থেকে অচেতন অবস্থায় সকালে উদ্ধার করা হয় মরদেহ। 

বেশ কয়েকদিন ধরে তু্ষ্টি অ্যাজমা ও শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন বলে ডেইলি বাংলাদেশকে জানিয়েছেন তার রুমমেট এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী রাহনুমা তাবাসসুম রাফি। তিনি বলেন, গতকাল তুষ্টি বৃষ্টিতে ভিজেছিল। আগে থেকেই তার শ্বাসকষ্ট ও অ্যাজমা ছিল। সে নিয়মিত ইনহেলার গ্রহণ করতো। 

রাফি আরো জানান, গতকাল রাত ১২টার দিকে ঘুমিয়ে পড়েছিলাম। পরে তুষ্টি কখন বাথরুমে গেছে জানি না। সকালে ঘুম থেকো উঠে দেখি বাথরুম বন্ধ, কিন্তু ভেতরে পানির কল ছাড়া। আমরা ডাকাডাকি করার পরও কোনো সাড়া পাচ্ছিলাম না। তখন ভেন্টিলেটর দিয়ে দেখা যায়, সে বাথরুমে পড়ে আছে। পরে ফায়ার সার্ভিসকে খবর দিলে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

এদিকে একমাত্র মেয়ের মৃত্যুতে পাগলপ্রায় তুষ্টির বাবা আলতাফ উদ্দীন জানান মেয়ের শ্বাসকষ্টের সমস্যা ছিল। অশ্রুভেজা চোখে তিনি বলেন, সংসারে তিন ছেলে আর একমাত্র মেয়ে ছিলো তুষ্টি। ছোটোবেলা থেকেই খুবর আদরের ছিলো সে। সবসময় আমার মুখে হাসি ফোটানোর চেষ্টা করতো। আমার জন্য বেশ পাগল ছিলো, বাবা-বাবা বলে জীবনটা দিয়ে দিতো। তবে ছোটোবেলা থেকেই শ্বাসকষ্ট ছিল মেয়েটির। মেধাবী হওয়ায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে নিজ চেষ্টায় ভর্তির সুযোগ পায় সে। 

তুষ্টির মৃত্যুর কারণ নিয়ে একই কথা বলেছেন তুষ্টিকে অচেতন অবস্থায় হাসপাতালে নেয়ার পুরো প্রক্রিয়ার সাথে সংশ্লিষ্ট তার এলাকার ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী সাফায়েত আহমেদ। 

তিনি বলেন, শনিবার বিকালে দোকানে যাওয়ার সময় তৃপ্তি বৃষ্টিতে ভিজে গিয়েছিল। আগে থেকেই তার অ্যাজমা (হাঁপানি) ও শ্বাসকষ্টের সমস্যা ছিল। বৃষ্টিতে ভিজে শরীর খারাপ লাগায় গতকাল সে আর বাসা থেকে বের হয়নি। পরে রাতে যখন রুমের সবাই ঘুমিয়ে পড়ে, সে তখন ওয়াশরুমে যায়। ঠিক কখন সে ওয়াশরুমে গিয়েছিল, তা কেউ বলতে পারছে না। 

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ পরিদর্শক বাচ্চু মিয়া বলেন, স্টাফ কোয়ার্টারের বাথরুম থেকে ঢাবি ছাত্রীকে ফায়ার সার্ভিস অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। মৃতদেহটি পোস্ট মর্টেম করা হয়েছে। সাড়ে তিনটার দিকে মৃতদেহটি পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। দাফনের জন্য গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম