রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সবুজ প্রকৃতিতে বেগুনি জারুলের হাতছানি

ঢাকা, রোববার   ১৩ জুন ২০২১,   জ্যৈষ্ঠ ৩০ ১৪২৮,   ০২ জ্বিলকদ ১৪৪২

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সবুজ প্রকৃতিতে বেগুনি জারুলের হাতছানি

আশিক ইসলাম, রাবি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:০৪ ৩ মে ২০২১  

নয়নাভিরাম সৌন্দর্যের জানান দিচ্ছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ফোটা জারুল ফুল

নয়নাভিরাম সৌন্দর্যের জানান দিচ্ছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ফোটা জারুল ফুল

রাস্তার দুইপাশের গাছগুলো ডালপালা জড়িয়ে ছাতার মতো শেড তৈরি করেছে। সবুজ পাতার ফাঁক গলিয়ে সেসব ডালগুলো ছেয়ে গেছে বেগুনি রঙের ফুলে। হালকা নিলুয়া বাতাসে রাস্তার উপর ঝরে পড়ছে সে ফুলগুলো। দেখলে মনে হয় কোনো অতিথিকে বরণ করতে সাজানো হয়েছে। এমনই নয়নাভিরাম সৌন্দর্যের জানান দিচ্ছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ফোটা জারুল ফুল। 

গ্রীষ্মের কাঠফাটা রোদে পুড়ছে প্রকৃতি সঙ্গে সবুজ পাতায় রৌদ্রের নির্মমতা। তার ফাঁকে বেগুনী-সাদার অপূর্ব সমন্বয়ে মায়াবী চোখ মেলে তাকিয়ে আছে নয়নকাড়া জারুল সুন্দরী। দৃষ্টিনন্দন বর্ণচ্ছটায় বেগুনি রঙে এখন অপূর্ব বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস। সবুজ প্রকৃতির বুকে বেগুনি জারুল যেন হাতছানি দিয়ে ডাকছে।

ক্যাম্পাস ঘুরে দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যারিস রোড থেকে পশ্চিমপাড়ার রাস্তা, বিজ্ঞান ভবনের পাশের রাস্তা, পরিবহন মার্কেট, চারুকলা অনুষদের রেললাইনের পাশের রাস্তা, বোটানিক্যাল গার্ডেন, বাসস্ট্যান্ড, বধ্যভূমিসহ ক্যাম্পাস সজ্জিত হয়েছে জারুলের ঝুমকোতে। ফুলে ফুলে সৃষ্টি করেছে অপরূপ নান্দনিকতার। বিশ্ববিদ্যালয়কে সাজিয়ে তুলেছে নতুন সাজে। যোগ করেছে নতুন সৌন্দর্যের মাত্রা।

জারুলকে বলা হয় বাংলার চেরি। গ্রীষ্মে অপূর্ব হয়ে ফোটে এই ফুল। চোখ ভরে যায় তার রূপ দেখে। প্রয়াত সঙ্গীত শিল্পী এন্ড্রু কিশোর তাঁর গানে বলেছেন ‘ওগো বিদেশিনী, তোমার চেরি ফুল দাও, আমার শিউলি নাও, এসো দুজনে প্রেমে হই ঋণী।’ সেই গান শুনে হয়তো কোন এক কাল্পনিক বিদেশিনীকে শিউলি ফুল দেওয়ার জন্য কত খুঁজেছে, কিন্তু পায়নি। যেমনটি পায়নি চেরি ফুলের দেখাও। সে আকাঙক্ষা পূরণ করতে পারে বাংলার চেরি জারুল ফুল। জারুল নিয়ে রূপসী বাংলার কবি জীবনানন্দ দাশ লিখেছেন, ‘ভিজে হয়ে আসে মেঘ এক দুপুর চিল একা নদীটির পাশে। জারুল গাছের ডালে বসে চেয়ে থাকে উপরের দিকে।’

জারুল ফুলের এমন মনকাড়া সৌন্দর্যে মুগ্ধ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। কেউ মুগ্ধ হয়ে স্থিরচিত্র ধারণ করে তা শেয়ার করছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে। ক্যাম্পাসে এখন কৃষ্ণচূড়ার লাল রঙের সঙ্গে একক রাজত্ব করছে বেগুনি জারুল।

জারুল ফুলের সৌন্দর্যে বিমোহিত হয়ে ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের শিক্ষার্থী আরিফ তাহ্সিন বলেন, ক্যাম্পাসের অন্যতম নজরকাড়া জারুল ফুল। এর বেগুনি রংঙের মায়ায় হারিয়ে যাই দূর অজানায়। যত দেখি ততই ভালো লাগে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম