চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা: যাদের জন্য থাকছে আবেদনের সুযোগ

ঢাকা, মঙ্গলবার   ০৩ আগস্ট ২০২১,   শ্রাবণ ১৯ ১৪২৮,   ২৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা: যাদের জন্য থাকছে আবেদনের সুযোগ

চবি প্রতিনিধি  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৪:২৫ ৩০ মার্চ ২০২১   আপডেট: ১৪:২৫ ৩০ মার্চ ২০২১

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের রেলওয়ে স্টেশন

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের রেলওয়ে স্টেশন

তিনধাপে অনুষ্ঠিত হবে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে অনার্স প্রথমবর্ষের বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা। তবে এবার অনিয়মিত (মানোন্নয়ন দেয়া) শিক্ষার্থীদের আবেদন করার সুযোগ থাকছে না। শুধুমাত্র যারা ২০১৮ সালে মাধ্যমিক ও ২০২০ সালে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে তারাই এবার ভর্তি পরীক্ষার জন্য আবেদন করতে পারবে।

সোমবার (২৮ মার্চ) দুপুরে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ নাসিম হাসান।

এদিকে চবিতে ভর্তি পরীক্ষার অনলাইনে আবেদন প্রক্রিয়া শুরু হচ্ছে আগামী ৫ এপ্রিল থেকে। যা চলবে ৩০ এপ্রিল রাত ১১ টা ৫৯ মিনিট পর্যন্ত। তবে ২ মে রাত ১১ টা ৫৯ মিনিট পর্যন্ত টাকা জমা দেয়া যাবে। এবার প্রতিটি ইউনিটেই আবেদনের ন্যূনতম জিপিএ অন্তত শূন্য দশমিক ৫০ বাড়ানো হয়েছে।

কোন ইউনিটে কতো পয়েন্ট লাগবে: ‘বি’ ইউনিটের অধীনে কলা ও মানববিদ্যা অনুষদের ভর্তি পরীক্ষায় আবেদনের জন্য মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে বিজ্ঞান শাখার শিক্ষার্থীদের মোট জিপিএ-৮.০০ এবং প্রতিটিতে নূন্যতম জিপিএ-৩.২৫; মানবিক শাখার শিক্ষার্থীদের মোট জিপিএ-৭.৫ এবং প্রতিটিতে নূন্যতম জিপিএ-২.৭৫; ব্যবসায় শিক্ষা শাখার সর্বনিম্ন দুটিতে মোট জিপিএ-৮ এবং প্রতিটিতে নূন্যতম জিপিএ-৩.২৫ অর্জন করতে হবে।

‘বি১’ উপ-ইউনিটের অধীনে কলা ও মানববিদ্যা অনুষদ অধিভুক্ত চারুকলা ইনিস্টিউট, নাট্যকলা বিভাগ ও সঙ্গীত বিভাগের ভর্তি পরীক্ষার আবেদনের জন্যও একই যোগ্যতা নির্ধারণ করা হয়েছে।

‘ডি’ ইউনিটের অধীনে সমাজবিজ্ঞান অনুষদ, আইন অনুষদ, ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদ (আংশিক) ও জীববিজ্ঞান অনুষদের দুটি বিভাগের (আংশিক) ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এই ইউনিটে আবেদনের যোগ্যতা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে সর্বনিম্ন দুটি মোট জিপিএ-৭.৫০ এবং প্রতিটিতে নূন্যতম জিপিএ-৩.৫০ নির্ধারণ করা হয়েছে৷

‘এ’ ইউনিটের অধীনে বিজ্ঞান অনুষদ, জীববিজ্ঞান অনুষদ, ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদ এবং সমুদ্রবিজ্ঞান ও মৎসবিদ্যা অনুষদের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এই ইউনিটে আবেদনের যোগ্যতা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে সর্বনিম্ন দুটি মোট জিপিএ-৮.০০ এবং প্রতিটিতে আলাদাভাবে জিপিএ-৪ নির্ধারণ করা হয়েছে৷

‘সি’ ইউনিটের অধীনে ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের ভর্তি পরীক্ষায় আবেদনের যোগ্যতা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে সর্বনিম্ন দুটি মোট জিপিএ-৮.০০ এবং প্রতিটিতে আলাদাভাবে জিপিএ-৪ নির্ধারণ করা হয়েছে৷

‘ডি১’ উপ-ইউনিটের অধীনে শিক্ষা অনুষদের ভর্তি পরীক্ষায় আবেদনের যোগ্যতা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে সর্বনিম্ন দুটি মোট জিপিএ-৭.৫ এবং প্রতিটিতে আলাদাভাবে জিপিএ- ৩.৫ নির্ধারণ করা হয়েছে৷

আবেদন ফি: এবারের ভর্তি পরীক্ষায় ইউনিট/উপ-ইউনিটে আবেদন ফি গতবারের মতো ৪৭৫ টাকা ও আবেদন প্রসেসিং ফি ৭৫ টাকাসহ সর্বমোট ৫৫০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। আবেদন ফি বিকাশ, রকেট ও শিওর ক্যাশের মাধ্যমে দেয়া যাবে।

তিনটি ধাপে পরীক্ষা: ২২ ও ২৩ জুন ‘বি’ ইউনিট, ২৪ ও ২৫ জুন ‘ডি’ ইউনিট, ২৮ ও ২৯ জুন ‘এ’ ইউনিট ও ৩০ জুন ‘সি’ ইউনিটের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া ১ জুলাই উপ-ইউনিট ‘বি-১’ ও ‘ডি-১’ ইউনিটের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

পরীক্ষা নম্বর আগের মতোই: ভর্তি পরীক্ষা বরাবরের মতোই ১২০ নম্বরে হবে। এর মধ্যে ১০০ নম্বর লিখিত পরীক্ষা (এমসিকিউ) ও বাকি ২০ নম্বর এসএসসি ও এইচএসসি জিপিএ থেকে যুক্ত হবে।

প্রসঙ্গত, ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে ১ম বর্ষের (সম্মান) ভর্তি পরীক্ষায় মানোন্নয়ন নিয়ে জটিলতা সৃষ্টি হয়। ভর্তি পরীক্ষার নীতিমালায় কিছুটা অস্পষ্টতা থাকায় আবেদনের অযোগ্য হয়েও ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে উত্তীর্ণ হয় প্রায় তিনশর মতো মানোন্নয়ন দেয়া শিক্ষার্থী। যদিও তারা পরবর্তীতে টানা আন্দোলন ও হাইকোর্টে গিয়েও ভর্তি হতে পারেনি।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম