কে হচ্ছেন রাবির পরবর্তী ভিসি

ঢাকা, শনিবার   ১০ এপ্রিল ২০২১,   চৈত্র ২৮ ১৪২৭,   ২৬ শা'বান ১৪৪২

কে হচ্ছেন রাবির পরবর্তী ভিসি

রাবি প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৪:১৭ ৭ মার্চ ২০২১  

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ভিসি অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহান

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ভিসি অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহান

চলতি বছরের ৭ মে শেষ হচ্ছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ভিসি অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহানের মেয়াদ। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের পরবর্তী ভিসি কে হচ্ছেন এ নিয়ে চলছে নানা কল্পনা-জল্পনা। 

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, ২০১৭ সালের ৭ মে দ্বিতীয়বারের মতো ভিসি হিসেবে নিয়োগ পেয়েছিলেন অধ্যাপক ড. এম আবদুস সোবহান। এ বছরের ৭ মে শেষ হতে চলেছে তার মেয়াদকাল। তাই গুরুত্বপূর্ণ এ পদে নিয়োগ পেতে এরইমধ্যে সরকার সমর্থক শিক্ষকদের মধ্যে শুরু হয়েছে তোড়জোড়। বেশ কয়েকজন শিক্ষকের নাম আলোচনায় থাকলেও নির্দিষ্ট করে বলা যাচ্ছে না কে বসবেন উপাচার্য অধ্যাপক আব্দুস সোবহানের চেয়ারে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষক ও গোয়েন্দা সূত্রে জানা যায়, কয়েকজন অধ্যাপককে ভিসি পদের জন্য সক্রিয়ভাবে বিবেচনা করা হচ্ছে। তাদের মধ্যে রয়েছেন- রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপক ড. জিন্নাত আরা, ভূতত্ত্ব ও খনিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. চৌধুরী সারওয়ার জাহান, বাংলা বিভাগের অধ্যাপক শফিকুন্নবী সামাদী, ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক আবুল কাশেম, প্রাণরসায়ন ও অনুপ্রাণবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. হাবিবুর রহমান, ভূগোল ও পরিবেশবিদ্যা বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক রকিব আহমেদ, মার্কেটিং বিভাগের অধ্যাপক ড. শাহ্ আজম, পরিবেশ বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক গোলাম সাব্বির সাত্তার, ইনস্টিটিউট অব ইংলিশ অ্যান্ড আদার ল্যাঙ্গুয়েজ’র পরিচালক অধ্যাপক শহীদুল্লাহ্, বর্তমান উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. আনন্দ কুমার সাহা ও অধ্যাপক ড. চৌধুরী জাকারিয়া। এর বাইরেও একাধিক শিক্ষক এই পদে দায়িত্ব পেতে পারেন বলেও ধারণা সূত্রগুলোর।

এসব শিক্ষকদের জীবনবৃন্তান্ত ঘেটে দেখা যায়, প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. আনন্দ কুমার সাহা বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়াও পূর্বে তিনি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়াও অধ্যাপক ড. চৌধুরী জাকারিয়া বর্তমান প্রশাসনের উপ-উপাচার্যের দায়িত্বে রয়েছেন, পূর্বে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরের দায়িত্বও পালন করেছিলেন। এদিকে প্রাণরসায়ন ও অনুপ্রাণবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. হাবিবুর রহমান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মূল্যবোধে বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের নব-নির্বাচিত আহ্বায়ক।

ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক আবুল কাশেম আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের প্রতিষ্ঠাকালীন সভাপতি ও ছাত্র উপদেষ্টার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। অধ্যাপক ড. চৌধুরী সারওয়ার জাহান পূর্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য ও ছাত্র উপদেষ্টার দায়িত্ব পালন করেছেন। বাংলা বিভাগের জ্যেষ্ঠ অধ্যাপক শফিকুন্নবী সামাদী শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের প্রশাসকের দায়িত্ব পালন করেছেন।

ভূগোল ও পরিবেশবিদ্যা বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক রকিব আহমেদ বিভাগের সভাপতি, ইনস্টিটিউট প্রধান, কম্পিউটার সেন্টারের প্রশাসক, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মূল্যবোধে বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের আহ্বায়কসহ বিভিন্ন দায়িত্বে ছিলেন। মার্কেটিং বিভাগের অধ্যাপক শাহ আজম শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়াও তিনি ক্যাম্পাসের বিভিন্ন সামজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরেই যুক্ত রয়েছেন। অধ্যাপক গোলাম সাব্বির সাত্তার বর্তমানে পরিবেশ বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের পরিচালক ও পূর্বে ছাত্র উপদেষ্টার দায়িত্বে ছিলেন।

ভিসি নিয়োগের বিষয়ে জানতে চাইলে সিন্ডিকেট সদস্য ও প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. হাবিবুর রহমান বলেন, সিনেটের মাধ্যমে নির্বাচিত প্যানেল থেকে ভিসি নিয়োগ করা এটাই হলো পদ্ধতি। তবে এখন বিভিন্ন কারণে সেটি আর হচ্ছে না। তাই আমাদের চাওয়া হলো উপাচার্য হিসেবে এমন একজন আসুক যিনি বিশ্ববিদ্যালয়কে নিয়ে ভাববেন। সিনিয়র একাডেমিশিয়ান, শিক্ষার্থীবান্ধব, গবেষণা, পড়াশোনা নিয়ে যিনি চিন্তা করেন তাকে যেন এই গুরুত্বপূর্ণ পদে নিয়োগ দেয়া হয় এটাই প্রত্যাশা।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম