ঢাবিতে পতাকা উত্তোলন দিবস পালিত

ঢাকা, শুক্রবার   ২৩ এপ্রিল ২০২১,   বৈশাখ ১০ ১৪২৮,   ১০ রমজান ১৪৪২

ঢাবিতে পতাকা উত্তোলন দিবস পালিত

ঢাবি প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ০০:৫৯ ৩ মার্চ ২০২১  

কলাভবন সংলগ্ন বটতলায় জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান

কলাভবন সংলগ্ন বটতলায় জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান

মুক্তিযুদ্ধের গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস স্মরণের মধ্য দিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ঐতিহাসিক পতাকা উত্তোলন দিবস পালিত হয়েছে।

দিবসটি উপলক্ষে মঙ্গলবার কলাভবন সংলগ্ন বটতলায় জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান। এ সময় জাতীয় সংগীত পরিবেশন করেন সংগীত বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। এছাড়া দিবসটি উপলক্ষে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

১৯৭১ সালের আজকের এই দিনে এক ছাত্র সমাবেশে পাকিস্তানিদের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে প্রথমবারের মতো লাল-সবুজের পতাকা উড়ানো হয়েছিল এই বটতলায়। সেই ছাত্র সমাবেশে ডাকসুর সহ-সভাপতি ও তৎকালীন ছাত্রলীগ নেতা আ স ম আব্দুর রব সর্বপ্রথম জাতীয় পতাকাটি উত্তোলন করেন।

পাকিস্তানি শাসকদের জুলুম, শোষণ, অত্যাচার, নিপীড়নের বিরুদ্ধে তৎকালীন ডাকসু নেতাদের উদ্যোগে নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ জড়ো হয়ে শাসকদের চোখে চোখ রেখে জানিয়ে দেন বাঙালিরা আর মাথা নত করে থাকবে না। এরপর তারা বাংলাদেশের মানচিত্রখচিত পতাকা সর্বপ্রথম উত্তোলন করেছিলেন।

প্রথমে উত্তোলন করা জাতীয় পতাকাটি ছিল সবুজ জমিনের ওপর লাল বৃত্তের মাঝখানে সোনালি মানচিত্র খচিত। পরে ১৯৭২ সালের ১২ জানুয়ারি বাংলাদেশের পতাকা থেকে মানচিত্রটি সরিয়ে ফেলা হয়। যেটি পরবর্তীতে ১৯৭২ সালের ১৭ জানুয়ারি রাষ্ট্রীয়ভাবে দেশের পতাকা হিসেবে গৃহীত হয়।

অনুষ্ঠানে উপাচার্য অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামান বলেন, মার্চ মাস আমাদের মহান স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব, জাতিরাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা ও গৌরবের মাস। ১৯৭১ সালের অগ্নিঝরা এই মার্চে ২ মার্চ পতাকা উত্তোলন, ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণ, ২৬ মার্চ বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণাসহ অনেকগুলো ঐতিহাসিক ঘটনা ঘটেছে। তাই অনেকগুলো ঘটনার সাক্ষী এই ঐতিহাসিক মার্চ মাস তাৎপর্যপূর্ণ একটি মাস।

তিনি আরো বলেন, স্বাধীনতা সংগ্রামের পথ পরিক্রমায় ১৯৭১ সালের ২ মার্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পতাকা উত্তোলনের ঐতিহাসিক ঘটনাটি আমাদের স্বাধীন ও সার্বভৌম জাতিরাষ্ট্র গঠনের ইঙ্গিত দিয়েছিল। জাতিরাষ্ট্র সৃষ্টিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অনন্য অবদান রয়েছে। ২০২১ সালে মুজিব জন্মশতবর্ষ, স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষ উদযাপন হচ্ছে। তাই এটি এক অনন্য সাধারণ বছর। উপাচার্য স্বাধীনতার মৌলিক দর্শন ও চেতনা ধারণ করে উদার, অসাম্প্রদায়িক ও মানবিক মূল্যবোধ সম্পন্ন মানুষ হিসেবে গড়ে উঠতে নতুন প্রজন্মের প্রতি আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. এএসএম মাকসুদ কামাল, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মমতাজ উদ্দিন আহমেদ, শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মো. নিজামুল হক ভূঁইয়া, বিভিন্ন অনুষদের ডিন, বিভিন্ন হলের প্রভোস্ট, বিভিন্ন বিভাগের চেয়ারম্যান, প্রক্টরসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সমিতির নেতারা।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমআর