পুলিশকে লাল গোলাপের শুভেচ্ছা দিল সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা

ঢাকা, শনিবার   ১৭ এপ্রিল ২০২১,   বৈশাখ ৫ ১৪২৮,   ০৪ রমজান ১৪৪২

পুলিশকে লাল গোলাপের শুভেচ্ছা দিল সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা

ঢাবি ও ঢাকা কলেজ প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:২৪ ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১   আপডেট: ১৬:০২ ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১

শিক্ষার্থীরা পুলিশকে গোলাপ গোলপ ফুল দিয়ে শিক্ষার্থীদের সহযোগিতা করার জন্য

শিক্ষার্থীরা পুলিশকে গোলাপ গোলপ ফুল দিয়ে শিক্ষার্থীদের সহযোগিতা করার জন্য

সাত কলেজের শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা চলছিল। হঠাৎ গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সাথে সাত কলেজের অধ্যক্ষদের বৈঠক থেকে ঘোষণা আসে চলমান পরীক্ষাসহ সব ধরনের পরীক্ষা বন্ধ করার। এরপর পরই রাজধানীর নীলক্ষেত মোড় অবরোধ করে শুরু করেন। 

রাতে স্থগিত হলেও সেই আন্দোলন আবার শুরু হয় বুধবার সকালে। সায়েন্সল্যাব মোড় ও নীলক্ষেত অবরোধ করে বিক্ষোভ করছিল শিক্ষার্থীরা। সেখানে মুখোমুখি হয়ে যায় পুলিশ ও শিক্ষার্থী। এসময় পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ও যৌক্তিক আন্দোলনে শিক্ষার্থীদের সহযোগিতা করতে পুলিশকে গোলাপ ফুল দেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। 

পরীক্ষার নোটিশ এসেছিল অনেকদিন আগে। সে হিসেবে পরীক্ষাও শুরু হয়ে যায় বিভিন্ন বর্ষের কিন্তু হঠাৎ গত পরশু সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষা মন্ত্রী সব ধরনের অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম ২৪ মার্চের আগে বন্ধ ঘোষণা করায় নিমিষেই থমকে যায় শিক্ষার্থীরা। 

ঝুলে থাকা পরীক্ষা নেয়ার দাবিতে শিক্ষার্থীরা বলছেন, অবিলম্বে চলমান পরীক্ষার ওপর স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করে সেগুলো সমাপ্ত করতে হবে। মার্চের প্রথম সপ্তাহে হল ও ক্যাম্পাস খুলে দিতে হবে। এছাড়া আগামীকালের পরীক্ষা পরবর্তীতে নিতে হবে এবং পরের পরীক্ষাগুলো পূর্বের রুটিন অনুযায়ী নিতে হবে বলে দাবি জানান। 

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের খামখেয়ালি মনোভাবের কারণে এমন বাজে পরিস্থিতিতে পড়তে হচ্ছে তাদের যে একটা পরীক্ষার জন্য অপেক্ষা করার নির্দেশ আসে। আমাদেরকে অচিরেই পরীক্ষার স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করে চলমান পরীক্ষা শেষ করার অভিশাপ মুক্ত করতে হবে। 

এর আগে সকাল ৯ টায় নীলক্ষেত মোড় অবরোধ করে শিক্ষার্থীরা। এতে আশেপাশের সড়কগুলোতে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এসময় বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন স্লোগান দেন। ‘দাবি মোদের একটাই, হল ক্যাম্পাস খোলা চাই’, ‘পরীক্ষা নিয়ে টালবাহানা, চলবে না চলবে না’, ‘সাত কলেজের ন্যায্য দাবি, মানতে হবে মানতে হবে’, স্লোগানে আন্দোলন করেন তারা। 

উল্লেখ্য, সরকারি সাত কলেজের ২০১৯ সালের অনার্স চতুর্থ বর্ষ ও ২০১৯ সালের অনার্স তৃতীয় বর্ষ এবং ২০১৭ সালের মাস্টার্স শেষ পর্বের মৌখিক পরীক্ষা চলমান ছিল।এছাড়া পূর্বঘোষিত পরীক্ষার সময়সূচি অনুযায়ী  ২৮ ফেব্রুয়ারি থেকে ডিগ্রি তৃতীয় বর্ষ ও ১০ মার্চ থেকে অনার্স ২য় বর্ষের (বিশেষ) পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম