ইনোভেশন কম্পিটিশনে চ্যাম্পিয়ন কুয়েট, রানার আপ খুবি

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১,   ফাল্গুন ১২ ১৪২৭,   ১২ রজব ১৪৪২

ইনোভেশন কম্পিটিশনে চ্যাম্পিয়ন কুয়েট, রানার আপ খুবি

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ০০:৫৪ ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১   আপডেট: ০০:৫৬ ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১

ইনোভেশন কম্পিটিশনে চ্যাম্পিয়ন কুয়েট, রানার আপ খুবি; ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ইনোভেশন কম্পিটিশনে চ্যাম্পিয়ন কুয়েট, রানার আপ খুবি; ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ইউরোপিয়ান কমিশনের ইরোসমাস প্লাস কর্মসূচির অধীনে এমইএলবিইউ (মোর ইন্টারপ্রিনিউরিয়াল লাইফ ইন বাংলাদেশি ইউনিভার্সিটিজ) শীর্ষক প্রকল্পের অধীনে সম্প্রতি আঞ্চলিক ইনোভেশন প্লাস কম্পিটিশন আয়োজন করা হয়। প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ান হয়েছে খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (কুয়েট)। প্রথম রানার আপ হয়েছে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়।

দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে ওঠা এবং উদ্যোক্তা উন্নয়নে এ অঞ্চলের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সক্ষমতা তৈরির উদ্দেশে এই প্রকল্পটি পরিচালিচ হয়ে আসছে। মঙ্গলবার ছিল বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের মোট ৫৩টি দলের অংশগ্রহণে আয়োজিত প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী পর্ব।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের রুটিন দায়িত্বে নিয়োজিত উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. মোসাম্মাৎ হোসনে আরা।

এ সময় তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের তরুণ শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে উদ্যোক্তা উন্নয়ন ও উদ্ভাবনী ভাবনা নিয়ে কাজ করা একটি চমৎকার উদ্যোগ। এর ফলে দেশের দক্ষিণাঞ্চলীয় বিশ্ববিদ্যালয়গুলো থেকে নতুন উদ্যোক্তা ও ধারণা বের হয়ে আসবে, যা সামাজিক, ব্যবসায়িক, শিল্পসহ নানাবিধ উন্নয়নে অবদান রাখবে। তিনি প্রতিযোগিতার বিজয়ীদের এবং অংশগ্রহণকারীদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

প্রকল্পের সমন্বয়কারী খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় প্রশাসন ডিসিপিতনের অধ্যাপক ড. মো. নূর-উন-নবীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন প্রকল্পের অন্যতম সমন্বয়কারী জার্মানির লাইপজিগ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. উটজ ডোম্বার্গার। এছাড়া কুয়েট প্রফেসর ড. মো. নুরুন্নবী মোল্লা ও প্রকল্পের সদস্য খুবির বায়োটেকনোলজি অ্যান্ড জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং ডিসিপ্লিনের প্রফেসর ড. মো. মুরছালিন বিল্লাহ বক্তব্য রাখেন।

এসময় প্রকল্পের সদস্য খুবির ফরেস্ট্রি অ্যান্ড উড টেকনোলজি ডিসিপিতনের প্রফেসর ড. মো. নজরুল ইসলামসহ প্রকল্পভুক্ত অন্য ৫টি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট, যবিপ্রবি, বশেমুরবিপ্রবি, নর্দান ও নর্থ ওয়েস্টার্ন) প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

আয়োজনে পুরস্কার বিজয়ীদের মধ্যে চ্যাম্পিয়ন দলকে একটি ক্রেস্ট ও ১ লাখ টাকার মূল্যমানের প্রাইজমানি, প্রথম রানার আপ দলকে ৬০ হাজার টাকা এবং দ্বিতীয় রানার আপ দলকে ৪০ টাকা মূল্যমানের প্রাইজমানি দেয়া হয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/SA