তালা ভেঙে হলে প্রবেশ করল জাবি শিক্ষার্থীরা 

ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৩ এপ্রিল ২০২১,   চৈত্র ৩০ ১৪২৭,   ২৯ শা'বান ১৪৪২

তালা ভেঙে হলে প্রবেশ করল জাবি শিক্ষার্থীরা 

জাবি প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১২:৫৮ ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২১   আপডেট: ১৩:৪৪ ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২১

তালা ভেঙে হলে প্রবেশ করেছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা

তালা ভেঙে হলে প্রবেশ করেছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা

তালা ভেঙে হলে প্রবেশ করেছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) শিক্ষার্থীরা। শনিবার দুপুর ১২টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের আল বেরুনী হল, নওয়াব ফয়জুন্নেছা হল, বেগম খালেদা জিয়া হল, শেখ হাসিনা হল, জাহানারা ইমাম হল, প্রীতিলতা হল, বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব হলসহ বিভিন্ন হলে প্রবেশ করতে শুরু করেন। একে একে সব হলগুলোতে প্রবেশ করছেন তারা।

শিক্ষার্থীরা বলছেন, বিশ্ববিদ্যালয় ও আবাসিক হলগুলো বন্ধ থাকায় দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের আশপাশের এলাকায় মেস ও বাসা ভাড়া নিয়ে থাকছেন। এর মধ্যে গেরুয়া এলাকায় তিন শতাধিক শিক্ষার্থী থাকেন। কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে সেখানে থাকা কোনোভাবেই নিরাপদ নয়। এখন হল খুলে দেয়ার বিকল্প নেই বলেও দাবি করেন তারা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর আ স ম ফিরোজ উল হাসান বলেন, আমি শিক্ষার্থীদের এ ধরনের অনৈতিক কার্যক্রমে অংশ না নেয়ার আহ্বান জানাই।

এর আগে শনিবার সকাল ১০টা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনারে জড়ো হতে শুরু করেন শিক্ষার্থীরা। এরপর বেলা ১১টার দিকে তিনটি দাবি পেশ করেন তারা। দাবিগুলো হলো- শিক্ষার্থীদের উপর হামলার ঘটনায় সংশ্লিষ্টদের গ্রেফতার ও বিচার করা, গেরুয়ার সঙ্গে ক্যাম্পাসের সংযোগ স্থায়ীভাবে বিচ্ছিন্ন করে দেয়া এবং বিশ্ববিদ্যালয় ও আবাসিক হল খুলে দেয়া।

এ সময় আজ দুপুর ২টার মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের সব আবাসিক হল খুলে দেয়ার আল্টিমেটাম দেন শিক্ষার্থীরা। দাবি না মানলে কঠোর আন্দোলনের হুশিয়ারিও দেন তারা। দাবি ঘোষণার পর শহীদ মিনার থেকে ক্যাম্পাসের প্রধান সড়ক ধরে বিক্ষোভ শুরু করেন শিক্ষার্থীরা। 

এরপর ভিসির বাসভবনের সামনে গেলে শিক্ষার্থীরা সেখানে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করেন। পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন হল খুলতে যান তারা।

গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত গেরুয়া গ্রামের স্থানীয়দের হামলায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪০ জনের বেশি শিক্ষার্থী আহত হয়েছেন। রাত আটটার দিকে পুলিশ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল বডির সদস্যরা ঘটনাস্থলে যান। তারা আহত শিক্ষার্থীদের উদ্ধার করেন। পরে তাদেরকে বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসা কেন্দ্রে নেয়া হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, গত ১১ ফেব্রুয়ারি ক্রিকেট টুর্নামেন্টকে কেন্দ্র করে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে স্থানীয় কয়েকজন যুবকের ঝামেলা হয়। ওই ঝামেলা মিটমাট করার জন্য শুক্রবার বিকেলে স্থানীয় যুবকদের সঙ্গে আলোচনা করতে যান বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষার্থী। আলোচনা চলাকালে আবার কথা কাটাকাটি হলে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদেরকে গেরুয়া বাজারের একটি ভবনে আটকে রাখা হয়।

পরে স্থানীয়রা তাদেরকে মারধর করেন। এতে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অভিষেক মণ্ডল, কার্যনির্বাহী সদস্য এলেক্সসহ তিনজন আহত হন। এ সময় শিক্ষার্থীদের সাতটি মোটরবাইক ভাঙচুর করে স্থানীয়রা। এরপর শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গেরুয়া এলাকার প্রবেশ মুখে জড়ো হয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম