কারিগরি শিক্ষায় সংকট কমাতে শিগগিরই ১৯ হাজার জনবল নিয়োগ

ঢাকা, শনিবার   ২৪ অক্টোবর ২০২০,   কার্তিক ৯ ১৪২৭,   ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

কারিগরি শিক্ষায় সংকট কমাতে শিগগিরই ১৯ হাজার জনবল নিয়োগ

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:৪৩ ১ অক্টোবর ২০২০   আপডেট: ১৬:১৬ ২ অক্টোবর ২০২০

ছবিঃ সংগৃহীত

ছবিঃ সংগৃহীত

সাধারণ ধারায় শিক্ষার পাশাপাশি বাস্তব কাজের দক্ষতা তৈরি করতে গুরুত্ব দিচ্ছে সরকার। আর এর অংশ হিসেবে সাধারণ স্কুল ও মাদরাসাগুলোতেও বাধ্যতামূলক হচ্ছে কারিগরি শিক্ষা।

কারিগরি শিক্ষাকে ঘিরে সরকারের লক্ষ্য সফল করতে এই খাতে আরো ১৯ হাজার জনবল নিয়োগ দেয়ার কথা জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। ২০২১ সালেই এই উদ্যোগ বাস্তবায়নের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

পরিকল্পনা অনুযায়ী, ২০২১ সালে ষষ্ঠ শ্রেণিতে, ২০২২ সালে সপ্তম শ্রেণিতে ও ২০২৩ সালে অষ্টম শ্রেণিতে প্রাক-বৃত্তিমূলক শিক্ষা হিসেবে একটি কারিগরি বিষয় বাধ্যতামূলক করা হবে।  অপরদিকে নবম-দশম শ্রেণিতে একটি কারিগরি বিষয় বাধ্যতামূলকভাবে চালু হবে ২০২১ সালেই।

জানা গেছে, সরকার চলতি অর্থবছরের মধ্যে কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষার হার ১৬ শতাংশ থেকে ২০ শতাংশ এবং ২০৩০ সালের মধ্যে এই হার ৩০ শতাংশে উন্নীত করার লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করেছে। আর এই কার্যক্রম পরিচালনার জন্যও নিয়োগ প্রক্রিয়া চালু করা হচ্ছে। ৪০টি অধ্যক্ষ পদে সম্প্রতি পদোন্নতি দেয়া হয়েছে। বাকি পদোন্নতিগুলো অক্টোবরে দেয়া হবে।

আগে মাধ্যমিক বা এসএসসি পরীক্ষায় পাস করার পরবর্তী দুই বছরের মধ্যে পলিটেকনিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে ডিপ্লোমা কোর্সে ভর্তি হতে হতো। এসএসসির পর দুই বছরের বেশি শিক্ষা বিরতি থাকলে আর সেই সুযোগ মিলতো না। সেই শর্তও তুলে দেয়া হয়েছে। এর ফলে বয়সসীমা শিথিল হওয়ায় এখন রি-স্কিলিংয়ের সুযোগ তৈরি হয়েছে। এতে কারিগরিতে শিক্ষার্থী সংখ্যাও বাড়ছে। এ কারণেই সরকার এই মাধ্যমকে আগের তুলনায় বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে।

এদিকে, কারিগরি শিক্ষা অধিদফতরে ২০০৬ সালের পর থেকে ক্যাডার সার্ভিসে কোনো নিয়োগ হয়নি। অন্যদিকে ২০১৬ সাল থেকে বন্ধ সব ধরনের নিয়োগ। ফলে স্বল্প জনবল দিয়েই কাজ চলছে কারিগরি শিক্ষার। এসব সংকট কাটানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলেও জানা গেছে।

এ প্রসঙ্গে কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আমিনুল ইসলাম খান জানান, সারাদেশের একশটি টেকনিক্যাল কলেজে মোট ছয় হাজার চারশ পদ সৃষ্টি করা হয়েছে। ভেটিং হয়ে এলে এসব পদের বিপরীতেও নিয়োগ শুরু হবে। ফলে আগের ১২ হাজার ৬০৭টি পদসহ কারিগরি খাতে মোট পদের সংখ্যা দাঁড়াচ্ছে ১৯ হাজার।

এছাড়া কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের অধীনে কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে কর্মরত শিক্ষকদের এমপিওভুক্তির বিষয়টিও আলোচনায় রয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচএফ/এসআর