করোনাকালেও এক বছরে কোটিপতি বেড়েছে দ্বিগুণ

ঢাকা, রোববার   ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১,   আশ্বিন ৪ ১৪২৮,   ১০ সফর ১৪৪৩

করোনাকালেও এক বছরে কোটিপতি বেড়েছে দ্বিগুণ

নিজস্ব প্রতিবেদন ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৩:৪০ ২৫ জুলাই ২০২১   আপডেট: ১৪:২৬ ২৫ জুলাই ২০২১

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

২০২০ সালের মার্চ মাসে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শুরুর সময় দেশে ব্যক্তি ও প্রাতিষ্ঠানিক কোটিপতির সংখ্যা ছিল ৮২ হাজার ৬২৫ জন। আর চলতি বছরের মার্চ শেষে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯৪ হাজার ২৭২ জনে। করোনাকালীন এক বছরে কোটিপতি বেড়েছে ১১ হাজার ৬৪৭ জন। আগের বছর কোটিপতি বেড়েছিল ৬ হাজার ৩৪৯ জন। অর্থাৎ আগের বছরের তুলনায় কোটিপতি বৃদ্ধির সংখ্যা প্রায় দ্বিগুণ।
   
কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ২০২১ সালের মার্চ ভিত্তিক হালনাগাদ প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য বলছে, ২০২১ সালের মার্চ পর্যন্ত ব্যাংকিং খাতে আমানতকারীদের হিসাবে জমা ছিল ১৩ লাখ ৮৪ হাজার ৩২৫ কোটি টাকা। ২০২০ সালের মার্চে এই ব্যাংকগুলোতে আমানত ছিল ১২ লাখ ১০ হাজার ৪৯৭ কোটি টাকা। সেই হিসেবে গত বছরে দেশের বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোতে আমানত বেড়েছে ১ লাখ ৭৩ হাজার ৮২৮ কোটি টাকা।

বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিসংখ্যানের তথ্য অনুযায়ী, আমানতকারীদের জমানো অর্থের প্রায় ৪৩ দশমিক ৯ শতাংশই কোটিপতিদের দখলে। চলতি বছরের মার্চে তাদের হিসাবে জমা ৫ লাখ ৯৬ হাজার ৫৫৫ কোটি টাকা। গত বছরের মার্চে কোটিপতি ব্যাংক হিসাবে জমা ছিল ৫ লাখ ১৫ হাজার ৮৭৭ কোটি টাকা। সেই হিসাবে এক বছরে কোটিপতি ব্যাংক হিসাবগুলোর জমানো টাকা বেড়েছে ৮০ হাজার ৬৭৮ কোটি টাকা।

স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালে দেশে কোটিপতি আমানতকারী ছিল ৫ জন, ১৯৭৫ সালে তা ৪৭ জনে উন্নীত হয়। ১৯৮০ সালে কোটিপতিদের হিসাবধারীর সংখ্যা ছিল ৯৮টি। এরপর ১৯৯০ সালে ৯৪৩টি, ১৯৯৬ সালে ২ হাজার ৫৯৪ জন, ২০০১ সালে ৫ হাজার ১৬২টি, ২০০৬ সালে ৮ হাজার ৮৮৭টি এবং ২০০৮ সালে ছিল ১৯ হাজার ১৬৩টি। ২০২০ সালে ডিসেম্বর শেষে দাঁড়ায় ৯৩ হাজার ৮৯০টিতে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএইচ