করোনায় স্বাস্থ্য সুরক্ষায় বিশেষ গুরুত্ব দেবে শেয়ারবাজার

ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৮ মে ২০২১,   জ্যৈষ্ঠ ৪ ১৪২৮,   ০৫ শাওয়াল ১৪৪২

করোনায় স্বাস্থ্য সুরক্ষায় বিশেষ গুরুত্ব দেবে শেয়ারবাজার

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৮:১১ ৩০ মার্চ ২০২১   আপডেট: ১৯:১৬ ৩০ মার্চ ২০২১

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

দেশে করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণ পরিস্থিতিতে শেয়ারবাজার সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোতে কর্মরত কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করতে নেয়া হচ্ছে বিশেষ ব্যবস্থা।

মঙ্গলবার বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি), ঢাকা ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ, ব্রোকারেজ হাউজ ও মার্চেন্ট ব্যাংক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, বিনিয়োগকারীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করতে সব ব্রোকারেজ হাউজে সতর্কতার বিষয়ে পরামর্শ দেবে উভয় স্টক এক্সচেঞ্জসহ ডিএসই ব্রোকার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ। পাশাপাশি সব মার্চেন্ট ব্যাংকে স্বার্থ সুরক্ষার বিষয়ে পরামর্শ দেবে বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিএমবিএ)।

স্টক এক্সচেঞ্জ সূত্রে জানা গেছে, সরকার নির্দেশিত স্বাস্থ্যবিধি মেনে স্টক এক্সচেঞ্জের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও বিনিয়োগকারীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় জনসমাগম নিরুৎসাহিত করা, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, থার্মাল স্ক্যানার ও অন্যান্য স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করা হবে।

এরই মধ্যে ডিএসই বিষয়টি নিয়ে কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করেছে। এজন্য সব ধরনের প্রস্তুতিও নেয়া হচ্ছে। আর কর্মক্ষেত্রে রোস্টারভিত্তিক কর্মীদের দায়িত্ব পালনের বিষয়টিও গুরুত্ব দেবে ডিএসই। আগামী ১ এপ্রিল থেকে সরকারের এ নির্দেশনা কার্যকর করা হবে।

একইভাবে সিএসই স্বাস্থ্যবিধি মেনে কর্মকর্তা-কর্মচারী ও বিনিয়োগকারীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে। পাশাপাশি প্রবেশাধিকার সংরক্ষিত করে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র অনলাইনে পাঠানোর বিষয়ে সব পক্ষকে উৎসাহিত করবে সিএসই। তবে ৫০ শতাংশ জনবল দিয়ে কাজ করার বিষয়ে এখনো সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি।

বিনিয়োগকারীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করতে ব্রোকারেজ হাউজগুলোতে করোনা পরিস্থিতিতে হ্যান্ডশেক বা আলিঙ্গন না করা, পরিমিত দূরত্ব বজায় রাখা, কর্মকর্তা-কর্মচারী ও ক্লায়েন্টের হাঁচি-কাশি বা সন্দেহজনক লক্ষণ থাকলে তাদের শনাক্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া, অফিস প্রাঙ্গণে প্রবেশের জন্য প্রতিবার হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা করা, ব্রোকারেজ হাউজে কর্মচারী এবং ক্লায়েন্টদের মাস্ক সরবরাহ করা, দর্শনার্থীদের অফিসে প্রবেশ করতে নিরুৎসাহিত করা ও কর্মীদের শিফটভিত্তিক কাজের ব্যবস্থা করার বিষয়ে পরামর্শ দিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

এ প্রসঙ্গে বিএসইসির কমিশনার অধ্যাপক ড. শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে শেয়ারবাজার বন্ধ থাকবে না। তাই সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিএসইসিসহ স্টক এক্সচেঞ্জ, ব্রোকারেজ হাউজ, মার্চেন্ট ব্যাংকের কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে। একই সঙ্গে বিনিয়োগকারীদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে।

এ বিষয়ে ডিএসই’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক (চলতি দায়িত্বে) ও প্রধান অর্থ কর্মকর্তা মো. আব্দুল মতিন পাটোয়ারী বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে বিনিয়োগকারীরা যেন ঘরে বসেই লেনদেন করতে পারেন, সে বিষয়ের ওপর গুরুত্ব দেয়া হবে।

সরকার গত সোমবার করোনাভাইরাস সংক্রামণের প্রভাব মোকাবিলায় ১৮ দফা নির্দেশনা জারি করেছে। এর মধ্যে কর্মক্ষেত্রে সব সময় বাধ্যতামূলক মাস্ক পরিধানসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা, ৫০ ভাগ জনবলে অফিস পরিচালনা, অসুস্থ বা পঞ্চান্ন-ঊর্ধ্ব বয়সের কর্মীদের বাসায় থেকে কাজ করাসহ সভা-সেমিনার অনলাইনে করার নির্দেশনা রয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডআর/এইচএন