কক্সবাজারে অল্প ভাড়ায় ভালো হোটেলের লোভ দেখিয়ে নিয়ে যান পতিতালয়ে
15-august

ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৬ আগস্ট ২০২২,   ১ ভাদ্র ১৪২৯,   ১৭ মুহররম ১৪৪৪

Beximco LPG Gas
15-august

কক্সবাজারে অল্প ভাড়ায় ভালো হোটেলের লোভ দেখিয়ে নিয়ে যান পতিতালয়ে

কক্সবাজার প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১২:০০ ৫ আগস্ট ২০২২  

আটক দালাল চক্রের সদস্যরা

আটক দালাল চক্রের সদস্যরা

কক্সবাজারে পর্যটক সেজে হোটেলে দালালির সময় ১৯ জনকে আটক করেছে পুলিশ। শুক্রবার ভোরে কক্সবাজার শহরের কলাতলী ডলফিন মোড়ের বিভিন্ন স্থান থেকে তাদের আটক করা হয়।

আটকরা হলেন- জাফর আলম, মো. আব্দুলাহ, ইসমাইল, ইব্রাহীম, নূর আলম, চাঁদ মিয়া, নজু আলম, রুবেল, জুয়েল মিয়া, সাদেকুর, সৈয়দ নূর, সাহিদ, হেলাল উদ্দিন, সাগর, গিয়াস উদ্দিন, সৈয়দ আলম, মো. হোসেন, রবিউল হাসান ও ইমরান।

কক্সবাজার ট্যুরিস্ট পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রেজাউল করিম বলেন, দীর্ঘদিন ধরে কক্সবাজারে আসা পর্যটকদের অটোচালকরা হোটেল খুঁজে দেওয়ার নাম করে নিম্নমানের রুম দিয়ে অতিরিক্ত টাকা আদায় করতেন। এ চক্রটির সদস্যরা শেষ রাত থেকে ডলফিন মোড়ের বিভিন্ন স্থানে থাকতেন। তাদের কেউ কেউ অটোচালক হিসেবে পর্যটকদের অল্প ভাড়ায় ভালো হোটেলে নিয়ে যাবেন বলে নিজেদের চুক্তি করা হোটেলে নিয়ে যেতেন। এছাড়া অতিরিক্ত ভাড়া আদায়সহ ব্ল্যাকমেইল করতেন। এ চক্রের কিছু সদস্য পর্যটকদের ফাঁদে ফেলে আপত্তিকর ছবি তুলে টাকা হাতিয়ে নিতেন। কয়েক বছর ধরে এ চক্রটি কক্সবাজারে আসা পর্যটকদের পতিতালয়ে নিয়ে ফাঁদে ফেলছিল।

তিনি আরো বলেন, চক্রের সদস্যদের ভাড়া করা কটেজে নিয়ে নিরীহদের আটকে রেখে ভয়ভীতি দেখিয়ে চাঁদা দাবি করতো এ চক্রটি। আর দাবি করা টাকা না দিলে চক্রের নারী সদস্যদের সঙ্গে ভুক্তভোগীর আপত্তিকর ছবি তুলে ভয় দেখিয়ে স্বজনের কাছ থেকে বিকাশের মাধ্যমে টাকা আদায় করতো।

এ চক্রটির সদস্যরা ভোরে ডলফিন মোড়ের বিভিন্ন জায়গায় থাকেন। পরে পর্যটকরা বাস থেকে নামলে তাদের লাগেজ নিয়ে টানাটানি করেন। একপর্যায়ে হোটেলের রুম নিতে বাধ্য করেন তারা। বিভিন্ন সময় পর্যটকদের হোটেল দেখিয়ে দেওয়ার নাম করে নির্জনে নিয়ে তাদের সব কিছু লুটে নেন।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রেজাউল করিম বলেন, এসব বিষয় বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হলে আমাদের নজরে আসে। পরে পর্যটকদের ছদ্মবেশে এ অভিযান চালানো হয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমআর

English HighlightsREAD MORE »