বগুড়ায় একদিনেই সড়কে দম্পতিসহ প্রাণ গেল ৭ জনের

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২৬ মে ২০২২,   ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯,   ২৪ শাওয়াল ১৪৪৩

Beximco LPG Gas

বগুড়ায় একদিনেই সড়কে দম্পতিসহ প্রাণ গেল ৭ জনের

বগুড়া প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২১:০৭ ২৬ জানুয়ারি ২০২২  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

বগুড়ার তিন উপজেলায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় স্বামী-স্ত্রীসহ সাতজন নিহত হয়েছেন। গুরুতর আহত হয়েছেন আরো একজন। জেলার শেরপুর, কাহালু ও গাবতলী উপজেলায় দুর্ঘটনার শিকার হন তারা।

বুধবার বিকেল ৫টার দিকে শেরপুর উপজেলায় যাত্রীবাহী বাসের চাপায় সিএনজিচালিত অটোরিকশার নারীসহ পাঁচ যাত্রী নিহত হন ও গুরুতর আহত হন আরো একজন। হতাহতরা সবাই অটোরিকশার যাত্রী। উপজেলার ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কের মির্জাপুর রাজাপুর এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতদের মধ্যে দুজনের নাম-পরিচয় নিশ্চিত করেছে পুলিশ। তারা হলেন- বগুড়া ধুনট উপজেলার শামগাতি গ্রামের ২৫ বছর বয়সী হৃদয় ও তার স্ত্রী ২১ বছর বয়সী সাথিয়া খাতুন।

স্থানীয় সূত্রে নিহতদের মধ্যে আরেকজনের নাম জানা গেছে। তিনি ৩৫ বছর বয়সী আনোয়ার হোসেন। আনোয়ার শেরপুর উপজেলা সুঘাট ইউনিয়নের চমরপাথালিয়া গ্রামের বাসিন্দা। নিহত বাকি দুজনের নাম-পরিচয় এখনো জানা যায়নি।

বগুড়া ছিলিমপুর (মেডিকেল) পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই রকিবুল হাসান জানান, শেরপুরের দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হয়ে অটোরিকশার এক যাত্রী বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে ভর্তি আছেন। তার নাম অতল পাল। তিনি বগুড়া শাজাহানপুর উপজেলার ডেমাজানি পালপাড়া গ্রামের বাসিন্দা।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শেরপুরের মির্জাপুর থেকে যাত্রীবাহী একটি অটোরিকশা উপজেলার ছোনকার উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। অটোরিকশাটি উপজেলার রাজাপুর নামক স্থানে পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা (ঢাকা থেকে বগুড়াগামী) হানিফ পরিবহনের একটি বাস চাপা দেয়। এতে অটোরিকশাটি দুমড়ে-মুচড়ে যায় এবং ঘটনাস্থলেই এক নারীসহ পাঁচজন অটোরিকশা যাত্রীর মৃত্যু হয়।

আরো পড়ুন: সৌদিতে বাংলাদেশি যুবককে গলা কেটে হত্যা

বগুড়া শেরপুর হাইওয়ে পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ একেএম বানিউল আনাম জানান, দুর্ঘটনাকবলিত বাস আটক আছে। তবে চালক-হেলপার পলাতক। এ ঘটনায় মামলা হবে।

এর আগে একইদিন দুপুরে কাহালু উপজেলায় ট্রেনের ধাক্কায় মতিউর রহমান মিন্টু নামে এক পল্লী চিকিৎসক নিহত হন। উপজেলার মুরইল ইউনিয়নের বেলঘরিয়া রেলগেট এলাকার এ দুর্ঘটনাটি ঘটে। নিহত মতিউর মুরইল মাস্টারপাড়া গ্রামের মৃত আব্দুল ওহাবের ছেলে।

এ তথ্য নিশ্চিত করেন কাহালু থানার ওসি মো. আমবার হোসেন। তিনি জানান, মতিউর মোটরসাইকেল যোগে বেলঘরিয়া রেলগেট পার হচ্ছিলেন। ঐ সময় বগুড়া থেকে সান্তাহারগামী দোঁলনচাপা আন্তঃনগর ট্রেনের ধাক্কায় গুরুতর আহত হন তিনি। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে শজিমেক হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এদিকে বুধবার বিকেলে গাবতলী উপজেলায় মোটরসাইকেলের নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সঙ্গে ধাক্কায় ৫০ বছর বয়সী আশরাফুল হক গোল্লা নামে এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন। উপজেলার খলিশাকুড়া গ্রামে ঐ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত আশরাফুল গাবতলী উপজেলার সুখানপুকুর ইউনিয়নে টেলিফোন প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী ছিলেন। তিনি উপজেলার সুখানপুকুর ইউনিয়নের ডঙর গ্রামের মৃত মেহের উদ্দিনের ছেলে।  

এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন বগুড়া ছিলিমপুর (মেডিকেল) পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই রকিবুল হাসান। তিনি জানান, আশরাফুল উপজেলা পরিষদের আইনশৃঙ্খলা সভা শেষে সেলিম নামে এক যুবককে সঙ্গে নিয়ে মোটরসাইকেল যোগে বাড়ি ফিরছিলেন। পথে খলিশাকুড়া গ্রামে মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে একটি গাছে সঙ্গে ধাক্কা দেয়। এতে গুরুতর আহত হন আশরাফুল। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে শজিমেক হাসপাতালে নেন। সেখানে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঐ মোটরসাইকেলে থাকা সেলিম সুস্থ আছেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম

English HighlightsREAD MORE »