পানির সঙ্গে চেতনানাশক মিশিয়ে নারীদের সর্বনাশ করতেন ‘ডেরাবাবা’

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২৬ মে ২০২২,   ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯,   ২৪ শাওয়াল ১৪৪৩

Beximco LPG Gas

পানির সঙ্গে চেতনানাশক মিশিয়ে নারীদের সর্বনাশ করতেন ‘ডেরাবাবা’

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ০০:৫৭ ২৬ জানুয়ারি ২০২২   আপডেট: ০০:৫৮ ২৬ জানুয়ারি ২০২২

‘ডেরাবাবা’ ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

‘ডেরাবাবা’ ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে অভিযান চালিয়ে মোহাম্মদ আলী ওরফে ডেরাবাবা নামে এক ভুয়া কবিরাজকে আটক করেছে র‍্যাব। সোমবার উপজেলার বাথুয়া এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়।

মঙ্গলবার বিকেলে এ তথ্য নিশ্চিত করেন র‍্যাব-৭ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) নুরুল আবছার। আটক মোহাম্মদ আলী ঐ এলাকার বড় বাড়ির সুলতান আহমদের ছেলে।

র‍্যাব কর্মকর্তা নুরুল আবছার জানান, ১৮ বছর আগে ইসলামী শরিয়াহ মোতাবেক বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন ভুক্তভোগী। তাদের সংসারে একটি মেয়ে সন্তান রয়েছে। ছয় বছর ধরে মালেশিয়ায় থাকেন স্বামী। মেয়ের লেখাপড়ার সুবিধার্থে স্বামীর পরামর্শে বছরখানেক আগে নগরীর চান্দগাঁও থানা এলাকায় ভাড়া বাসায় ওঠেন তিনি।

ভাড়া বাসায় উঠার কিছুদিন পর থেকে তার সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ করে দেন স্বামী। পাঠানো বন্ধ করে দেন হাত খরচের টাকাও। এ অবস্থায় প্রতিবেশীর পরামর্শে কবিরাজ মোহাম্মদ আলীর সঙ্গে যোগাযোগ করেন ভুক্তভোগী। ওই সময় মোহাম্মদ আলী তাকে কবিরাজি চিকিৎসার মাধ্যমে সমাধান ও স্বামী যোগাযোগ শুরু করবেন বলে আশ্বাস দেন।

এর পরিপ্রেক্ষিতে একদিন ভুক্তভোগীর বাসায় গিয়ে তাকে কিছু তাবিজ ও পানিপড়া দেন কবিরাজ মোহাম্মদ আলী। ওই সময় তাকে হাদিয়া হিসেবে পাঁচ হাজার টাকা দেন ভুক্তভোগী। কিন্তু সেসব তাবিজ ও পানিপড়ায় কাজ না হওয়ায় বিষয়টি কবিরাজকে জানালে ভুক্তভোগীকে নিজের বাড়ি যাওয়ার প্রস্তাব দেন তিনি।

কবিরাজের কথামতো একদিন তার হাটহাজারীর বাড়িতে যান ভুক্তভোগী। সেদিনও কবিরাজ তাকে তাবিজ ও পানিপড়া দিয়ে হাদিয়া হিসেবে পাঁচ হাজার টাকা নেন। কিন্তু এবারো কাজ না হলে তৃতীয়বারের মতো তার বাড়ি গিয়ে ভালো তাবিজ ও পানিপড়া নেওয়ার প্রস্তাব দেন কবিরাজ।

আগের মতো এবারো কবিরাজের বাড়ি গিয়ে পাঁচ হাজার টাকা দিয়ে তাবিজ ও পানিপড়া নেন ভুক্তভোগী। কিন্তু তৃতীয়বারের মতো ব্যর্থ হয় কবিরাজ মোহাম্মদ আলীর চিকিৎসা। এবারো ভুক্তভোগীকে তার বাড়ি গিয়ে দেখা করতে বলেন মোহাম্মদ আলী।

শনিবার সকালে বাবু নামে প্রতিবেশী এক ছেলেকে নিয়ে কবিরাজ মোহাম্মদ আলীর বাড়ি যান ভুক্তভোগী। যাওয়ার পর কবিরাজের কাছে বারবার তাবিজ ও পানিপড়াতে কাজ না হওয়ার কারণ জানতে চান ভুক্তভোগী। ওই সময় কবিরাজ জানান- তার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করলেই যোগাযোগ করবে স্বামী।

এতে ভুক্তভোগী অসম্মতি জানালে কবিরাজ বলেন, ‘তোমাকে আমার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করতে হবে না’। এ বলে পাশের কক্ষ থেকে কাঁচের গ্লাসে এক গ্লাস পানি নিয়ে আসেন কবিরাজ মোহাম্মদ আলী। এরপর পানিটুকু ভুক্তভোগীকে খাওয়ানোর কিছুক্ষণের মধ্যেই অচেতন হয়ে পড়েন তিনি।

পরে জ্ঞান ফিরলে ভুক্তভোগী দেখেন- অশালীন অবস্থায় রয়েছে তার শরীরের পোশাক। ওই সময় তিনি কান্নাকাটি শুরু করলে তার সঙ্গে যাওয়া বাবুকেসহ একটি রিকশায় তুলে বাড়ি পাঠিয়ে দেন কবিরাজ মোহাম্মদ আলী। ঘটনার পরদিন রোববার কিছুটা স্বাভাবিক হলে ভুক্তভোগী বুঝতে পারেন- অচেতন অবস্থায় তার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করেন মোহাম্মদ আলী।

র‍্যাব কর্মকর্তা নুরুল আবছার আরো জানান, মোহাম্মদ আলী একজন ভুয়া কবিরাজ। দীর্ঘদিন ধরে সরলতার সুযোগে নারীদের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন ও প্রতারণা করে আসছেন তিনি। তার কাছ থেকে কবিরাজি চিকিৎসার বিভিন্ন সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়। পরবর্তী আইনি ব্যবস্থা নিতে তাকে হাটহাজারী মডেল থানায় হস্তান্তর করা হয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে

English HighlightsREAD MORE »