২০ বছরের চুক্তিতে দ্রুত উৎপাদনে যাচ্ছে বাংলাদেশ জুটমিল

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২৬ মে ২০২২,   ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯,   ২৫ শাওয়াল ১৪৪৩

Beximco LPG Gas

২০ বছরের চুক্তিতে দ্রুত উৎপাদনে যাচ্ছে বাংলাদেশ জুটমিল

পলাশ (নরসিংদী) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২০:৫৮ ২৫ জানুয়ারি ২০২২   আপডেট: ২১:০০ ২৫ জানুয়ারি ২০২২

মিলটি পরিদর্শন করেন নরসিংদী জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু নইম মোহাম্মদ মারুফ খান ও  জুট এলাইঞ্জ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জিয়াউর রহমান

মিলটি পরিদর্শন করেন নরসিংদী জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু নইম মোহাম্মদ মারুফ খান ও  জুট এলাইঞ্জ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জিয়াউর রহমান

নরসিংদীর পলাশ উপজেলার ঘোড়াশালে ২০২০ সালের ২ জুলাই বন্ধ হওয়া বিজেএমসির নিয়ন্ত্রণাধীন পাটকল বাংলাদেশ জুটমিলটি নতুন করে চালু হচ্ছে। বেসরকারি মালিকানাধীন জুট এলাইঞ্জ লিমিটেড নামে একটি কোম্পানির অধীনে মিলটি চালু হচ্ছে। চলতি বছরের ১০ জানুয়ারি বিজেএমসির সঙ্গে ২০ বছরের চুক্তি সম্পন্ন করে কোম্পানিটি।

এদিকে মঙ্গলবার সকালে জুটমিল পরিদর্শন করেন নরসিংদী জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু নইম মোহাম্মদ মারুফ খান ও  জুট এলাইঞ্জ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জিয়াউর রহমান।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ মাসুম, পলাশ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সৈয়দ জাবেদ হোসেন, পলাশ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফারহানা আফসানা চৌধুরী পি এ এ, ঘোড়াশাল পৌর মেয়র আল মুজাহিদ হোসেন তুষার, প্রজেক্ট কো-অর্ডিনেটর হাসান মোহাম্মদ আরিফ, বাংলাদেশ জুটমিলের মহাব্যবস্থাপক আবুল কাশেম মোহাম্মদ হান্নান, পলাশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ ইলিয়াছ প্রমুখ।

জুট এলাইঞ্জ লিমিটেডের প্রজেক্ট কো-অর্ডিনেটর হাসান মোহাম্মদ আরিফ বলেন, বিজেএমসির নিয়ন্ত্রণাধীন যে ২৫টি জুটমিল ২০২০ সালে ২ জুলাই বন্ধ হয়েছে, এর মধ্যে প্রথম ঘোড়াশালের বাংলাদেশ জুটমিলটি ২০২২ সালের ১০ জানুয়ারি চুক্তি স্বাক্ষর করার পর আমরা বুঝে নিয়েছি। যেহেতু দীর্ঘ দেড় বছর মিলটি বন্ধ ছিল তাই এ মিলের যন্ত্রপাতিগুলোতে মরিচা পড়ে আছে। সেটি সংস্কারের কাজ করা হবে।

তিনি বলেন, জুটমিলটির বিভিন্ন স্থাপনা ১৯৬২ সালের তৈরি। রফতানিমুখী ইন্ডাস্ট্রিজ করতে গেলে বিল্ডিং কোড অনুযায়ী এগুলো মেরামত করতে হবে। এসব কাজ দ্রুত শেষ হলেই আমরা উৎপাদনে যাব। যারা এই জুটমিলের পুরাতন শ্রমিক আছে তাদের মধ্য থেকে যাচাই-বাছাই করে দক্ষ শ্রমিকদের নেওয়া হবে।

এছাড়া যারা নতুন শ্রমিক আছে তাদের মধ্যে দক্ষ কেউ থাকলে তাকেও আমরা মূল্যায়ন করব। আমরা আশা করছি খুব অল্প সময়েই উৎপাদন শুরু করতে পারব। মিলটি দীর্ঘ দিন বন্ধ থাকার কারণে মিলের ৩-৪ হাজার শ্রমিক-কর্মচারী অতি কষ্টে দিন পার করছেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ

English HighlightsREAD MORE »