ঘোড়া দিয়ে হালচাষ

ঢাকা, রোববার   ০৩ জুলাই ২০২২,   ১৯ আষাঢ় ১৪২৯,   ০৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৩

Beximco LPG Gas

ঘোড়া দিয়ে হালচাষ

নবীন হাসান, ঠাকুরগাঁও ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:২২ ২১ জানুয়ারি ২০২২   আপডেট: ১৯:০১ ২১ জানুয়ারি ২০২২

ঠাকরগাঁও সদর উপজেলার ধন্দোগাঁও গ্রামে ঘোড়া দিয়ে হালচাষ করছেন ভূষণ চন্দ্র ও তার স্ত্রী ভানু রানী ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ঠাকরগাঁও সদর উপজেলার ধন্দোগাঁও গ্রামে ঘোড়া দিয়ে হালচাষ করছেন ভূষণ চন্দ্র ও তার স্ত্রী ভানু রানী ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

একটা সময় ছিল যখন গরু আর মহিষ দিয়েই হাল চাষ করা হতো।  আর অন্য  কোনো উপায়ও ছিলো না হাল চাষ করার মতো। 

কালের বিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে চাষাবাদেরও এসেছে আমূল পরিবর্তন। এখন পশু দিয়ে চাষাবাদ না করে যান্ত্রিক নানা প্রযুক্তির সাহায্যে চাষাবাদ করে থাকে কৃষকরা। কিন্তু ভিন্ন চিত্র দেখা গেল ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার ধন্দোগাঁও গ্রামে।  

মানুষের বাহন হিসেবে ঘোড়ার ব্যবহার নতুন নয়। আবার পণ্য বা মালামাল টানতেও ব্যবহার করা হয় ঘোড়ার গাড়ি। যদিও কালের পরিক্রমায় এগুলো এখন বিলুপ্তির পথে। কিন্তু ঘোড়া দিয়ে জমিতে হালচাষের দৃশ্য বিরল! 

আরো পড়ুন >>> রাস্তায় বাঁশের বেড়া, ৫ পরিবার অবরুদ্ধ

আধুনিকতার চরম উৎকর্ষের এই যুগে বাস্তবেই ঘোড়া দিয়ে হালচাষ করে জীবিকা নির্বাহ করছেন ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার ধন্দোগাঁও গ্রামের কৃষক ভূষণ চন্দ্র। তার এই হালচাষের কাজে সহযোগিতা করছেন স্ত্রী ভানু রাণী। 

ঠাকরগাঁও সদর উপজেলার ধন্দোগাঁও গ্রামে ঘোড়া দিয়ে হালচাষ করছেন ভূষণ চন্দ্র ও তার স্ত্রী ভানু রানী

ভূষণ চন্দ্র বলেন, ‘প্রায় এক বছর ধরে ঘোড়া দিয়ে জমি চাষ করে আসছি। আমি একজন প্রান্তিক কৃষক। বর্তমান বাজারে গরুর দাম অনেক বেশি। এক জোড়া হালের গরু কিনতে গেলে খরচ পড়ে ১ লাখ ২০ হাজার থেকে ১ লাখ ৩০ হাজার টাকা পর্যন্ত। এই টাকা দিয়ে ছয় জোড়া ঘোড়া কেনা যায়। ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকাতেই এক জোড়া ঘোড়া মেলে।’ 

আরো পড়ুন >>> সেতুর পিলারে মোটরসাইকেলের ধাক্কা, দুই শিক্ষার্থী নিহত

কৃষক আরো বলেন, ‘আগে হালের গরু ছিল, এখন নেই। বাজারে গরুর দাম বেশি হওয়ায় কেনার সামর্থ্যও নেই। তাই নিজের চাষাবাদের প্রয়োজনে বাজার থেকে গরুর বদলে ২২ হাজার টাকা দিয়ে দুটি ঘোড়া কিনেছি। শুধু নিজের জমিতে চাষাবাদ করছি না, অন্যের জমিতেও টাকার বিনিময়ে চাষ করে দিচ্ছি। এক বিঘা জমি চাষ দিতে নিচ্ছি ৫০০ টাকা। প্রতিদিন দুই থেকে আড়াই বিঘা জমিতে হালচাষ করা যায়।’ 

ঠাকরগাঁও সদর উপজেলার ধন্দোগাঁও গ্রামে ঘোড়া দিয়ে হালচাষ করছেন ভূষণ চন্দ্র।

ভূষণের স্ত্রী ভানু রাণী বলেন, প্রথম দিকে ঘোড়াগুলোকে হালের কসরত শেখাতে অনেক কষ্ট হয়েছে তাদের। ঘোড়ায় লাঙল-জোয়াল জুড়ে দিয়ে অনেকবার চেষ্টার পর আয়ত্তে আসে। এখন পুরোদমে ঘোড়া দিয়ে হালচাষ করছেন তারা। 

ধন্দোগাঁও এলাকার কৃষক মনসুর আলী ও আব্দুল আজাদ বলেন, এলাকায় বড় কোনো গরু-মহিষ নেই। ভূষণের ঘোড়া দিয়েই তাদের জমিগুলোতে লাঙল দিতে হয়। এতে খরচও কম লাগে। 

আরো পড়ুন >>> ক্রেন থেকে রূপপুর প্রকল্পের ৬৫ লাখ টাকার ক্যাবল চুরি

পার্শ্ববর্তী মাস্টারপাড়া এলাকার কৃষক ভূপেন চন্দ্র  বলেন, ‘ঘোড়া দিয়ে লাঙল দিলে জমি গভীরভাবে খনন হয়। পাওয়ারটিলার বা মাহেন্দ্র গাড়ি দিয়ে হালচাষ করলে জমি সমান হয় না। তাই ঘোড়ার হাল দিয়ে জমি সমান করছি। এতে পানি ধরে রাখা সহজ হয়।’ 

ঠাকুরগাঁও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপপরিচালক কৃষিবিদ আবু হোসেন বলেন, কৃষকেরা এখন যান্ত্রিক উপায়ে জমি চাষ করেন। ঘোড়া দিয়ে হালচাষ করা অপ্রচলিত একটা বিষয়। কৃষি বিভাগ সব সময় আধুনিক মানের যন্ত্রাংশ ব্যবহার করে চাষাবাদ করার জন্য কৃষকদের পরামর্শ দিয়ে থাকেন বলে জানান এই কর্মকর্তা।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে/জেএইচ

English HighlightsREAD MORE »