‘পুতিনের ওপর নিষেধাজ্ঞা মানেই সম্পর্কচ্ছেদ’

ঢাকা, রোববার   ২৩ জানুয়ারি ২০২২,   ৯ মাঘ ১৪২৮,   ১৮ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

কিউবা ও ভেনিজুয়েলায় রুশ সেনা মোতায়েনের সম্ভাবনা

‘পুতিনের ওপর নিষেধাজ্ঞা মানেই সম্পর্কচ্ছেদ’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১০:৪৯ ১৪ জানুয়ারি ২০২২   আপডেট: ১০:৫২ ১৪ জানুয়ারি ২০২২

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

রাশিয়ার অন্যতম উপ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই রিয়াবকভ বলেছেন, ইউক্রেন ইস্যুতে পশ্চিমাদের সঙ্গে আলোচনা অচল অবস্থায় পড়েছে এবং নতুন করে এ নিয়ে আলোচনা করার কোনো কারণ নেই।

রিয়াবকভের বরাত দিয়ে বৃহস্পতিবার রাশিয়ার বার্তা সংস্থা তাস এ খবর দিয়েছে। রিয়াবকভ বলেন, রাশিয়ার নিরাপত্তার নিশ্চয়তা এবং পূর্ব দিকে ন্যাটো জোটের বিস্তৃতি না ঘটানোর দাবি নিয়ে চলতি সপ্তাহ জুড়ে যে আলোচনা হয়েছে তাতে আমেরিকা ও ন্যাটো জোট ভিন্ন মনোভাব দেখিয়েছে এবং একই ইস্যু নিয়ে আবারো আলোচনায় বসার কোনো কারণ তিনি দেখছেন না।

আরো পড়ুন: বিশ্বে করোনায় মৃত্যু কমলেও বেড়েছে শনাক্ত

রুশ উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী সরাসরি বলেন, আমেরিকা এবং ন্যাটো জোট রাশিয়ার দাবি পূরণ করতে প্রস্তুত নয়, তারা তারা শুধু এমন কিছু ইস্যু নিয়ে আলোচনা করতে চায় মস্কোর কাছে যা গুরুত্বহীন। এ অবস্থায় ইউক্রেন ইস্যুতে পরিস্থিতি যদি আরো খারাপ হয় তাহলে রাশিয়ার সামরিক বিশেষজ্ঞরা প্রেসিডেন্ট পুতিনের সামনে ভিন্ন অপশন দিয়েছেন তবে কূটনীতিকে অবশ্যই সুযোগ দেয়া হবে। ভেনিজুয়েলা এবং কিউবায় রাশিয়ার সেনা মোতায়েন করার সম্ভাবনাও উড়িয়ে দেননি সের্গেই রিয়াবকভ।

গত সোমবার রিয়াবকভ এবং মার্কিন উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়েন্ডি শেরম্যান জেনেভায় বৈঠক করেন। এছাড়া ন্যাটো জোটের কর্মকর্তাদের সঙ্গে রুশ কর্মকর্তাদের ব্রাসেলস ও ভিয়েনায় বৈঠক হয়েছে।

শেরম্যানের সঙ্গে বৈঠকের পর রিয়াবকভ জানিয়েছিলেন, যে বিষয়ের সমাধান দরকার তা নিয়ে আমেরিকা এবং রাশিয়া বিপরীত মেরুতে অবস্থান করছে। অন্যদিকে শেরম্যান বলেছিলেন, রাশিয়ার প্রস্তাব আমেরিকার কাছে আলোচনার যোগ্যই না।

আরো পড়ুন: যুক্তরাষ্ট্রে চার দশকে রেকর্ড মুদ্রাস্ফীতি

এদিকে, মার্কিন ক্ষমতাসীন ডেমোক্র্যাট দলের সিনেটররা রাশিয়ার বিরুদ্ধে নতুন করে যে নিষেধাজ্ঞা বিল উত্থাপন করেছেন তার নিন্দা জানিয়েছেন ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ। তিনি বলেছেন, আমেরিকা যদি প্রেসিডেন্ট পুতিন ও রাশিয়ার অন্যান্য নেতার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে তাহলে ধরে নেয়া হবে যে, ওয়াশিংটন মস্কোর সঙ্গে সমস্ত সম্পর্ক ছিন্ন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এ ধরনের নিষেধাজ্ঞার জবাবে রাশিয়ায় কি ব্যবস্থা নেবে তা নিয়ে মস্কো এখনো কোনো পরিকল্পনা করে নি বলে জানান পেসকভ।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএএইচ

English HighlightsREAD MORE »