জার্মান আদালতে সিরিয়ার সাবেক কর্নেলের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

ঢাকা, বুধবার   ১৯ জানুয়ারি ২০২২,   ৫ মাঘ ১৪২৮,   ১৪ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

জার্মান আদালতে সিরিয়ার সাবেক কর্নেলের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২১:৫১ ১৩ জানুয়ারি ২০২২  

ছবি: আনওয়ার রাসলান

ছবি: আনওয়ার রাসলান

মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদ সরকারের সাবেক কর্নেল আনওয়ার রাসলানকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন জার্মানির একটি আদালত। দীর্ঘ এক দশক আগে সিরিয়ার রাজধানী দামেস্কের একটি কারাগারে মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িত থাকায় তাকে এ শাস্তি দেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি) জার্মানির কোবলেনজ রাজ্যের আদালত এ যুগান্তকারী রায়টি দেন বলে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা জানিয়েছে।

মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সিরিয়ায় বহু বছর ধরে যুদ্ধ চলছে। এ সময় দেশটিতে রাষ্ট্রপতি বাশার আল-আসাদ সরকারের হাতে নির্যাতিত হয়েছেন অসংখ্য সিরীয় নাগরিক।

আরো পড়ুন>> যুক্তরাষ্ট্রে চার দশকে রেকর্ড মুদ্রাস্ফীতি

আদালত এক বিবৃতিতে জানায়, বন্দিদের হত্যা, নির্যাতন, স্বাধীনতার ক্রমবর্ধমান বঞ্চনা, ধর্ষণ ও যৌন নিপীড়নের জন্য যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে তাকে।

রাসলান সিরিয়ার রাজধানীর আল-খতিব কারাগারে ২০১১ সালের এপ্রিল থেকে ২০১২ সালের সেপ্টেম্বরে চার হাজার জনের বেশি বন্দির ওপর নির্যাতনের তত্ত্বাবধান করেছেন বলে যুক্তি দেন আদালতের প্রসিকিউটররা। ওই সবসময় নির্যাতনে ৫৮জন বন্দি নিহত হন।

আদালতে সাক্ষ্য দেওয়া জার্মান তদন্তকারী এক কর্মকর্তা বলেন, রাসলান ১৮ বছর সিরিয়ার সিক্রেট সার্ভিসে কাজ করেছেন। যেখানে তিনি দেশীয় গোয়েন্দা তদন্ত পরিষেবা ‘ব্রাঞ্চ ২৫১’-এর প্রধান হয়ে উঠেছিলেন।

আরো পড়ুন>> কারাগারে গণহত্যার দায়ে শ্রীলঙ্কার কারাপ্রধানের মৃত্যুদণ্ড

২০১২ সালে তিনি সিরিয়া ত্যাগ করে জার্মানি আসেন। এরপর ২০১৪ সালে সাবেক সিরিয়ান এই কর্নেল জার্মানিতে আশ্রয় চান। তবে সিরিয়ায় বিভিন্ন অপরাধে জড়িত থাকার অভিযোগে ২০১৯ সালে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

এদিকে রাসলানের আইনজীবীরা গত সপ্তাহে কোবলেনজ আদালত তার জামিন চান। তিনি কখনো ব্যক্তিগতভাবে কাউকে নির্যাতন করেননি বলে দাবি তাদের। জার্মানির সার্বজনীন এখতিয়ার আইনের অধীনে দেশটির আদালত বিশ্বের যে কোনো স্থানে সংঘটিত মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধের বিচার করতে পারেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/মাহাদী

English HighlightsREAD MORE »