সড়কের মাটি ধস, ঝুঁকি নিয়ে যান চলাচল

ঢাকা, বুধবার   ১৯ জানুয়ারি ২০২২,   ৫ মাঘ ১৪২৮,   ১৪ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

সড়কের মাটি ধস, ঝুঁকি নিয়ে যান চলাচল

এম. সুরুজ্জামান, নালিতাবাড়ী  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:১০ ১৩ জানুয়ারি ২০২২  

নালিতাবাড়ী-গাজীরখামার গোল্লারপাড় এলাকায় গুরুত্বপূর্ণ সড়কের পাশের মাটি ধসে যাওয়ায় ঝুঁকি নিয়ে যানবাহন চলাচল করছে।  ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

নালিতাবাড়ী-গাজীরখামার গোল্লারপাড় এলাকায় গুরুত্বপূর্ণ সড়কের পাশের মাটি ধসে যাওয়ায় ঝুঁকি নিয়ে যানবাহন চলাচল করছে।  ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার কালিনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন নালিতাবাড়ী-গাজীরখামার গোল্লারপাড় এলাকায় গুরুত্বপূর্ণ সড়কের পাশের মাটি ধসে যাওয়ায় ঝুঁকি নিয়ে যানবাহন চলাচল করছে। 

সড়কের পাশের মাটি সরে যাওয়ায় যেকোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশঙ্কা করছেন যানবাহনের চালক ও যাত্রীরা। বিপদজনক ঐ স্থান সংস্কারে কর্তৃপক্ষের কাছে দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসী।  

আরো পড়ুন >>> বাউল ছদ্মবেশী ‘দুর্ধর্ষ সিরিয়াল কিলার’ হেলালের যত কুকর্ম

নালিতাবাড়ী শহর থেকে বাঘবেড়-বনকুড়া সীমান্ত সড়কের কালিনগর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশে সড়কটি ধসে গিয়ে পাশের খালে বিলীন হতে চলেছে। এখানে সড়কে মোড় থাকায় যানচলাচলে আরো ঝুঁকি বেড়ে গেছে। জনগুরুত্বপূর্ণ এ সড়ক দিয়ে প্রতিদিন শতশত যানবাহন যাতায়াত করছে। বেহাল দশার কারণে সড়ক দিয়ে যান চলাচল আরো বিপদজনক হয়ে পড়েছে। 

নালিতাবাড়ী-গাজীরখামার গোল্লারপাড় এলাকায় গুরুত্বপূর্ণ সড়কের পাশের মাটি ধসে যাওয়ায় ঝুঁকি নিয়ে যানবাহন চলাচল করছে। 

আরো পড়ুন >>> সিরিয়াল দেখে পরিকল্পনা, ৭০ বছরের বৃদ্ধাকে খুন করল দুই নাবালক!

অপরদিকে, নালিতাবাড়ী থেকে গাজীর খামার-শেরপুর জেলা সদরের সঙ্গে যোগাযোগের গুরুত্বপূর্ণ সড়কের গোল্লারপাড় এলাকায় সড়কের পাশের মাটি ধসে পুকুরে বিলীন হচ্ছে। পুকুরটি অনেক গভীর থাকায় দুর্ঘটনা ঘটলে ভয়াবহ ক্ষতির সম্ভাবনা রয়েছে। সড়ক দুটির মাটিতে পুরাতন ড্রামসিট দিয়ে বল্লি পাইলিংয়ের কাজ শুরু করলেও অজ্ঞাত কারণে তা বন্ধ রয়েছে।

আরো পড়ুন >>> ফসলের মাঠে নারীর লাশ, শরীরে একাধিক জখমের দাগ

এ ব্যাপারে সদ্য বদলী নালিতাবাড়ী উপজেলা প্রকৌশলী আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, প্রায় তিন মাস আগে গুরুত্বপূর্ণ সড়ক বিবেচনায় এবং স্থান দুটি যানচলাচলে ঝুকিপূর্ণ হওয়ায় ব্যক্তিগত উদ্যোগে কাজ শুরু করি। কিন্তু পর্যাপ্ত অর্থ না থাকায় কাজ করতে পারিনি। জরুরি রক্ষণাবেক্ষণ তহবিলেও অর্থ না থাকায় মাটি ভরাটে অর্থ চেয়ে ঊর্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে

English HighlightsREAD MORE »