রাত জেগে ভোট পাহারা 

ঢাকা, শুক্রবার   ২৮ জানুয়ারি ২০২২,   ১৪ মাঘ ১৪২৮,   ২৩ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

Beximco LPG Gas

রাত জেগে ভোট পাহারা 

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ০২:২১ ২৮ নভেম্বর ২০২১   আপডেট: ০২:২৭ ২৮ নভেম্বর ২০২১

প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর প্রলোভন ঠোকানোর জন্য রাত জেগে ভোট পাহারা ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর প্রলোভন ঠোকানোর জন্য রাত জেগে ভোট পাহারা ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

কুড়িগ্রামের ৩ উপজেলা ফুলবাড়ী, কুড়িগ্রাম সদর ও নাগেশ্বরী উপজেলার ২৭ টি ইউপিতে তৃতীয় ধাপের নির্বাচনে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে আজ রোববার। সকাল ৮ টা থেকে বিকেল ৪ টা পর্যন্ত এ ভোটগ্রহণ হবে। 

এই ভোটকে কেন্দ্র করে এখানে ভোটারদের সম্ভাব্য বিজয় প্রত্যাশী প্রার্থীদের ভোট যাতে প্রতিপক্ষ পয়সার বিনিময়ে কিনতে না পারে এজন্য এখানকার গ্রাম-গঞ্জে ভোটের আগের রাতটিতে অর্থাৎ শনিবার রাত জেগে ভোট পাহারা দেয়া হয়েছে। 

এখানে ভোটগ্রহণের আগের রাতটিতে দেখা গেছে, গ্রাম- গঞ্জের পাড়া, মহল্লার ভোটাররা স্ব-স্ব প্রার্থীর ভোট পাহারা দিচ্ছেন। ভোটারা বিভিন্ন রাস্তা, গাছতলা, ঝোঁপ ঝাড়ে ওঁৎপেতে থাকেন। তারা উত্তরাঞ্চলে চলামান তীব্র শীত উপেক্ষা এখানকার পছন্দের প্রার্থীর ভোট পাহারা দেন। 

উত্তরাঞ্চলে চলামান তীব্র শীত উপেক্ষা এখানকার পছন্দের প্রার্থীর ভোট পাহারা দেন। 

পাহারাদার ভোটারদের হাতে দেখা যায় বেশি আলো সম্পন্ন টর্চ লাইট। কোনো মানুষের আনাগোনা হলেই নেয়া হয় তিক্ষ্ণ নজরদারি। মোটারসাইকেল, অটোরিকশা বাইসাইকেলে আসা মানুষদের গতিবিধি লক্ষ করা হয়। পরিচয় নিশ্চিত করতে ছড়িয়ে দেয়া হয় বেশি পাওয়ার সম্পন্ন টর্চ লাইটের আলো। অচেনা লোক দেখলেও তার পরিচয় নিশ্চিত করা হয়। প্রশ্ন করা হয় কেন এখানে। 

জেলার অন্যান্য স্থানের চেয়ে ধরলা নদী বেষ্টিত বড়ভিটার ইউপির পূর্ব-ধনিরাম ও ফুলবাড়ী ইউপির চন্দ্রখানা, কুটিচন্দ্রখানা ও পানিমাছকুটি গ্রামে। 

উত্তরাঞ্চলে চলামান তীব্র শীত উপেক্ষা এখানকার পছন্দের প্রার্থীর ভোট পাহারা। 

আব্দুল হাই নামের স্থানীয় এক ভোটার বলেন, আমাদের বিজয় প্রত্যাশী প্রার্থীর ভোটগুলোই রাত জেগে পাহারা দেই। আমাদের নিবেদিত ভোটারদের ভোটগুলো যাতে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা টাকা, কাপড় বা অন্যকোনো প্রলোভোন দেখিয়ে কিনতে না পারে এটি ঠেকানোর জন্যেই মূলত আমরা ভোট পাহারা দেই। 

রোজউল ইসলাম নামের এক ভোটার বলেন, আমাদের এখানে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা প্রভাবশালী হওয়ায় আমাদের নিজস্ব প্রার্থীদের ভোটগুলো তারা টাকা-পয়সাসহ বিভিন্ন প্রলোভনে কিনতে পারে এই আশঙ্কায় ভোট পাহারা দেয়া হয়। ভোটারদের ভোট কিনতে না পারলে আমাদের প্রার্থীদের বিজয় হবে। 

ভোটার নবিউল ইসলাম বলেন, ‘ভোট হলো মূল্যবান। একজন প্রার্থীর প্রত্যাশিত একটি ভোটার প্রলোভনে পড়ে যদি অন্য কাউকে তার মূল্যবান ভোটটি যদি দিয়ে দেয়। এই আশঙ্কা থেকেই প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর প্রলোভন ঠোকানোর জন্য রাত জেগে ভোট পাহারা দেয়া হচ্ছে। ’

ভোটগ্রহণের আগের রাতটিতে দেখা গেছে, গ্রাম- গঞ্জের পাড়া, মহল্লার ভোটাররা স্ব-স্ব প্রার্থীর ভোট পাহারা দিচ্ছেন।

জানা গেছে, কুড়িগ্রামের ৩ উপজেলা-ফুলবাড়ী, কুড়িগ্রাম সদর, নাগেশ্বরীসহ ২৭টি ইউনিয়নে ৫ লাখ ৬০ হাজার ৭৪১ জন ভোটারের ভোট প্রয়োগে নির্বাচন হবে। ২৭ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ১৩৬ জন, সাধারণ সদস্য পদে ৬১৬ জন ও সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে ৯২৭ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। 

এ নির্বাচনটি অবাধ নিরপক্ষ করতে প্রশাসন কঠোর অবস্থানে রয়েছেন। ভোটগ্রহণের লক্ষ্যে ২৭ ইউপির ২৮৬টি ভোট কেন্দ্রে ব্যালট পেপার ছাড়া সকল নির্বাচনী সরঞ্জাম পাঠানো হয়। তবে ভোর ৪ টা থেকে ভোর সকাল ৬ টার মধ্যে সকল কেন্দ্রে পাঠানো হবে ব্যালট পেপার। 

ভোটকেন্দ্রে কেউ নাশকতা, বিশৃঙ্খলা করার চেষ্টা করলে তাদেরকে প্রথমে এলার্ট করা, এরপর তা না মানলে সরাসরি সর্টগানের গুলি করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। 

কুড়িগ্রাম এসপি সৈয়দা জান্নাত আরা ভোটগ্রহণে দায়িত্বরত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে এ নির্দেশ দেন। 

এসপি সৈয়দা জান্নাত আরা বলেন, এ নির্বাচনকে অবাধ সুষ্ঠু করতে চাই। তাই ভোটকেন্দ্রে দায়িত্বে থাকা কোনো পুলিশ বা আনসার কোনো পক্ষ নিতে পারবে না। কোনো প্রার্থীকে হ্যান্ডসেক বা কথা বলতে পারবেনা। কোনো প্রার্থীর কাছে চা বা পান খেতে পারবে না। 

এ ব্যাপারে কুড়িগ্রাম জেলা নির্বাচন অফিসার জাহাঙ্গীর আলম রাকিব জানান, নির্বাচন সুষ্ঠু করতে সকল প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠু করতে ১৩ প্লাটুন বিজিবি, ৯ প্লাটুন র‌্যাব দায়িত্ব পালন করবে। 

২৭ ইউপির ২৮৬টি ভোট কেন্দ্রের প্রতি কেন্দ্রে ৫ জন পুলিশ, ১৭ জন আনসার মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়াও ১৫ জন ম্যাজিস্ট্রেটের ১৫টি টিম নির্বাচন সুষ্ঠু করতে মাঠে থাকবে। আশাকরি কুড়িগ্রামে ইউপি নির্বাচনগুলো অবাধ ও সুষ্ঠু হবে।  

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে

English HighlightsREAD MORE »