অপহরণ করে বিয়ে, দু’বছর পর স্ত্রীকে পিটিয়ে মারল স্বামী

ঢাকা, রোববার   ০৫ ডিসেম্বর ২০২১,   অগ্রহায়ণ ২২ ১৪২৮,   ২৮ রবিউস সানি ১৪৪৩

অপহরণ করে বিয়ে, দু’বছর পর স্ত্রীকে পিটিয়ে মারল স্বামী

নাঙ্গলকোট (কুমিল্লা) প্রতিনিধি   ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২২:৩৭ ২৫ অক্টোবর ২০২১  

লাঙ্গলকোট থানা-ফাইল ফটো

লাঙ্গলকোট থানা-ফাইল ফটো

কুমিল্লার নাঙ্গলকোটের হেসাখাল ইউনিয়নের উরুকচাউল গ্রামে শারমিন আক্তার নামে এক গৃহবধূ হত্যার অভিযোগ উঠেছে স্বামী ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে। রোববার দুপুরে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

মৃত শারমিন ওই গ্রামের কামাল হোসেনের ছেলে কামরুল ইসলামের স্ত্রী ও একই গ্রামের আবুল খায়েরের মেয়ে। এ ঘটনায় মৃতের শাশুড়ি কমলা বেগমকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় এনেছে পুলিশ। সোমবার সকালে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

দু’বছর আগে কামরুল ইসলাম শারমিনকে অপহরণ করে নিয়ে বিয়ে করে চট্টগ্রামে আত্মগোপনে থাকেন। পরে গ্রামবাসীর চাপের মুখে বিষয়টি স্বীকার করে বাড়িতে নিয়ে আসেন শারমিনকে। বিয়ের কিছু দিন পর থেকেই কামরুল মাদকে জড়িয়ে পড়লে পারিবারিক কলহ শুরু হয়। এর জেরে স্ত্রীকে কয়েক দফা শারীরিক নির্যাতন করে কামরুল ও তার পরিবারের লোকজন। শনিবার রাতে ও রোববার সকালে কামরুল শারমিনকে বেধড়ক মারপিট করে ঘরে বন্দি করে রাখেন। পরে তাকে নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে। পরে তড়িঘড়ি করে লাশ দাফনের চেষ্টা করলে শারমিনের স্বজনরা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ আসার খবরে লাশ রেখে পালিয়ে যায় স্বামী ও তার পরিবারের লোকজন।

নাঙ্গলকোট থানার ওসি (তদন্ত) রকিবুল ইসলাম বলেন, লাশ উদ্ধার করে থানায় আনা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পাওয়া গেলে মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ