কুষ্টিয়ায় হত্যা মামলায় ২ জনের আমৃত্যু, ১ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

ঢাকা, মঙ্গলবার   ৩০ নভেম্বর ২০২১,   অগ্রহায়ণ ১৭ ১৪২৮,   ২৩ রবিউস সানি ১৪৪৩

কুষ্টিয়ায় হত্যা মামলায় ২ জনের আমৃত্যু, ১ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২১:২১ ২১ অক্টোবর ২০২১  

জেলা জজ আদালত, কুষ্টিয়া: ফাইল ফটো

জেলা জজ আদালত, কুষ্টিয়া: ফাইল ফটো

কুষ্টিয়া দৌলতপুর উপজেলায় টাকা লেনদেনকে কেন্দ্র করে আজম নামে এক যুবককে মারপিট ও শ্বাসরোধ করে হত্যার ঘটনায় দুই আসামিকে আমৃত্যু কারাদণ্ড ও একজনকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। একই সঙ্গে তাদের ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো ১ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিকেলের দিকে কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. তাজুল ইসলাম এ রায় দেন।

আমৃত্যু কারাদণ্ডপ্রাপ্ত দুই আসামি হলেন- কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার আড়িয়া ইউনিয়নের আড়িয়া গ্রামের মন্ডলপাড়ার কাইমুদ্দিনের ছেলে স্বপন এবং একই এলাকার পলান মিস্ত্রির ছেলে ইশারাত মন্ডল। তারা দুজনই পলাতক রয়েছে।

এই হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি আসকর আলী একই এলাকার পলান মিস্ত্রির ছেলে। রায় ঘোষণার সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন আসকর আলী।

২০১৪ সালের ৪ সেপ্টেম্বর রাতে টাকা লেনদেনকে কেন্দ্র করে মারপিট ও শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যা করে আসামিরা। হত্যাকাণ্ডের পর দৌলতপুর উপজেলার আড়িয়া ইউনিয়নের দিঘলকান্দি গ্রামের মাঠের একটি ধানক্ষেতে আজমের লাশ মাটির নিচে পুঁতে রাখে। পরের দিন ৫ সেপ্টেম্বর দুপুরে দৌলতপুর থানা পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের মর্গে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়। ৬ সেপ্টেম্বর মৃতের বাবা আড়িয়া গ্রামের বাসিন্দা এজের আলী বাদী হয়ে স্বপন, ইশারাত মন্ডল ও আসকর আলীসহ অজ্ঞাত ৪-৫ জনকে আসামি করে মামলা করেন।

মামলার তদন্ত শেষে ২০১৪ সালের ১৫ ডিসেম্বর সিআইডি পুলিশের পরিদর্শক আকিদুল ইসলাম আসামিদের বিরুদ্ধে আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। সাক্ষ্য প্রমাণ শেষে ২১ অক্টোবর রায় ঘোষণার দিন ধার্য করে আদালত। এ মামলায় ২০ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য প্রমাণ শেষে বৃহস্পতিবার আদালত এ রায় দেন।  রায় ঘোষণার পরপরই দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি আসকর আলীকে পুলিশ পাহারায় জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।

এদিকে আজমের স্বজনরা রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। তার স্বজনরা বলেন, আজমকে  মারপিট ও শ্বাসরোধ করে হত্যা করে আসামিরা। ছয় বছর আদালতে মামলার কার্যক্রম শেষে দুই আসামিকে আমৃত্যু কারাদণ্ড ও একজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছে আদালত। এ রায়ে আমরা খুবই খুশি।

আদালতের পিপি অনুপ কুমার নন্দী বলেন, হত্যা মামলায় দোষী প্রমাণিত হওয়ায় দুই আসামিকে আমৃত্যু কারাদণ্ড ও একজনকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। একই সঙ্গে তাদের ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো ১ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ