বাইচ চলাকালে তলিয়ে গেল দুই নৌকা, সংঘর্ষে এলাকায় উত্তেজনা

ঢাকা, শনিবার   ১৬ অক্টোবর ২০২১,   কার্তিক ২ ১৪২৮,   ০৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

বাইচ চলাকালে তলিয়ে গেল দুই নৌকা, সংঘর্ষে এলাকায় উত্তেজনা

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:০৭ ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১   আপডেট: ১৯:৫২ ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১

নৌকা বাইচ (ফাইল ছবি)

নৌকা বাইচ (ফাইল ছবি)

যমুনা নদীতে প্রতিযোগিতা চলাকালে আল্লাহ ভরসা ও যমুনার তরী নামক নৌকার সঙ্গে সংঘর্ষে যমুনার তরী নৌকাটি ডুবে যায়। এতে নৌকার প্রতিযোগীদের মাঝে সংঘাতের সৃষ্টি হয়। সংঘর্ষের একপর্যায়ে ৫ জন আহত হন।

শনিবার বিকেলে টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে এ ঘটনা ঘটে। আহতরা হলেন- বিল্লাল, রাজ্জাক, শামীম, হৃদয়, হাবিল। এদের মধ্যে বিল্লাল, রাজ্জাক ও হৃদয়ের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাদের টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

অপরদিকে একই সময়ে আরও দুটি নৌকার সঙ্গে সংঘর্ষ হলে তাদের মধ্যেও মারামারি হয়। ডুবে যাওয়া নৌকার প্রতিযোগীরা সাঁতরিয়ে পাড়ে উঠলে দেখা দেয় উত্তেজনা ও মারামারি। সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসলে নৌকাবাইচ কমিটি বাইচ স্থগিত ঘোষণা করেন।

গাবসারা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান জানান, শনিবার নৌকাবাইচকে কেন্দ্র করে যে সংঘর্ষ হয়েছিল তার জের ধরে আমাদের ইউনিয়নের কালিপুর গ্রামের দারাজ আলী ও তার ছেলে সোহেল রোববার সকালে বঙ্গবন্ধু সেতু এলাকায় যমুনা নদীতে মাছ ধরতে গেলে ওই এলাকার যমুনার তরী নৌকার লোকজন তাদের মারধর করে আটক করে রাখে। পরবর্তীতে আটক এবং মারধরের বিষয়টি নিকরাইল ইউপি চেয়ারম্যান মতিন সরকারকে জানালে তিনি আটককৃতদের নিয়ে আসার জন্য বলেন। আমি এ ব্যাপারে তাদের সুস্থভাবে বাড়িতে পৌঁছে দেওয়ার জন্য অনুরোধ করি। এছাড়া ভূঞাপুর থানা পুলিশকে বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে।

এ নিয়ে গাবসারা ও নিকরাইল ইউনিয়নবাসীর মাঝে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

নৌকাবাইচ পরিচালনা কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা ইকরাম উদ্দিন তারা মৃধা জানান, স্থানীয় এমপি ছোট মনিরের উদ্যোগে প্রতি বছরের মতো এবারো দুই দিনব্যাপী নৌকাবাইচের আয়োজন করা হয়। প্রথম দিনে সুষ্ঠুভাবে সম্পূর্ণ হলেও দ্বিতীয় দিনে একাধিক নৌকার সঙ্গে উত্তেজনা সৃষ্টি হলে বাইচ চলাকালে একটি নৌকা ডুবে যায়, এতে নৌকাবাইচ স্থগিত ঘোষণা করা হয়।

এ বিষয়ে ভূঞাপুর থানার ওসি আব্দুল ওহাব জানান, এ ব্যাপারে আমি কোনো অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে। আমাদের তদারকি অব্যাহত আছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম