ওষুধ খাওয়ার পর পরই খিঁচুনি দিয়ে নিস্তেজ হয়ে পড়ে শিশুটি

ঢাকা, বুধবার   ২০ অক্টোবর ২০২১,   কার্তিক ৫ ১৪২৮,   ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

ওষুধ খাওয়ার পর পরই খিঁচুনি দিয়ে নিস্তেজ হয়ে পড়ে শিশুটি

বরগুনা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৪:৩৯ ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১  

গ্রেফতারকৃত মাসুম বিল্লাহ

গ্রেফতারকৃত মাসুম বিল্লাহ

বরগুনায় ভুল চিকিৎসায় ৯ মাসের এক শিশুর মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত চিকিৎসককে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ।

মৃত ইয়ামিন বরগুনা সদর উপজেলার চালিতাতলী গ্রামের সাইদুল ইসলামের ছেলে।

শিশুটির পরিবার জানায়, ইয়ামিন কয়েকদিন ধরে জ্বর সর্দি ও কাশিতে ভুগছিল। তার মা ও দাদি তাকে চিকিৎসার জন্য বরগুনা চাইল্ড কেয়ার সেন্টারে চিকিৎসক মাসুম বিল্লাহর কাছে নিয়ে যান। মাসুম বিল্লাহ জরুরি ভিত্তিতে কিছু টেস্ট করিয়ে রিপোর্ট দেখে বলেন, শিশু ইয়ামিনের হার্টে সমস্যা আছে। তাকে একদিন পর পর চারটি ইনজেকশন দিতে। তার কথা মতো গত রোববার (১৯ সেপ্টেম্বর) বিকেলে একটি ইনজেকশন দেওয়া হয়। এরপর শিশুটিকে বাসায় রেখে প্রেসক্রিপশোন অনুযায়ী নিয়মিত ওষুধ খাওয়ানোর পরামর্শ দেন মাসুম বিল্লাহ।

ইয়ামিনের বাবা সাইদুল ইসলাম বলেন, রোববার বিকেলে ইনজেকশন দেওয়ার পর থেকেই আমার ছেলের শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকে। এরপর রাতে ডা. মাসুম বিল্লাহর পরামর্শ অনুযায়ী ওষুধ খাওয়ালে ইয়ামিনের শরীরে খিঁচুনি শুরু হয়। কিছুক্ষণ পরই সে মারা যায়।

তিনি আরো বলেন, আমি বিষয়টি আত্মীয়-স্বজন ও স্থানীয় গণ্যমান্যদের কাছে জানিয়ে আমার সন্তানের লাশ দাফন করি। আমার শিশু সন্তান মাসুম বিল্লাহর অপচিকিৎসায় মারা গেছে। আমি এবং আমার পরিবার ওই ঘাতক ডাক্তারের বিচার চাই।

বরগুনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মেহেদী হাসান বলেন, ভুল চিকিৎসায় ৯ মাসের শিশু ইয়ামিনের মৃত্যুর অভিযোগে মাসুম বিল্লাহ নামে ওই চিকিৎসককে গ্রেফতার করা হয়েছে। শুক্রবার দুপুরে তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর