হাসপাতালের ভেতর ওষুধ বিক্রিতে বাধা, ডাক্তারকে পেটালেন ফার্মেসি মালিক

ঢাকা, শনিবার   ১৬ অক্টোবর ২০২১,   কার্তিক ১ ১৪২৮,   ০৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

হাসপাতালের ভেতর ওষুধ বিক্রিতে বাধা, ডাক্তারকে পেটালেন ফার্মেসি মালিক

দিনাজপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ০০:৩৫ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১   আপডেট: ০০:৫০ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১

হাসপাতালের ভেতর ওষুধ বিক্রিতে বাধা, ডাক্তারকে পেটালেন ফার্মেসী মালিক। ছবি: সংগৃহীত

হাসপাতালের ভেতর ওষুধ বিক্রিতে বাধা, ডাক্তারকে পেটালেন ফার্মেসী মালিক। ছবি: সংগৃহীত

দিনাজপুর ডায়াবেটিস হাসপাতালে রোগীদের কাছে ওষুধ বিক্রি করতে বাধা দেওয়ায় হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. মুহতাসিম লতিফুল ইসলামকে পিটিয়েছেন ফার্মেসির মালিক তমাল।

শনিবার দুপুরে বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করেছেন ডায়াবেটিস হাসপাতাল পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক সফিকুল হক ছুটু। এর আগে, শুক্রবার সকাল ১১টার দিকে ঘটনাটি ঘটেছে হাসপাতালের ইনডোরে। চিকিৎসককে লাঞ্ছিত করার ঘটনায় তাৎক্ষণিক বাকি চিকিৎসকরা কর্মবিরতিতে যেতে চাইলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপে তারা সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করেন।

হাসপাতাল সূত্র জানায়, ডায়াবেটিস হাসপাতাল সংলগ্ন দক্ষিণে তমাল-মালেকা ফার্মেসির মালিক তমাল দীর্ঘদিন ধরে হাসপাতালে আসা রোগীদের তার দোকান থেকে ওষুধ নিতে বাধ্য করছিলেন। বাইরের রোগী ছাড়াও হাসপাতালের ভেতরে গিয়ে ভর্তি থাকা রোগীদেরও তার ফার্মেসি থেকে ওষুধ নিতে পরামর্শ দেন। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বারবার নিষেধ করলেও তিনি শোনেননি। বেশ কয়েকবার তাকে বলা হলেও উল্টো প্রতিক্রিয়া দেখান।

জানা যায়, শুক্রবার বেলা ১১টার দিকে হাসপাতালের দ্বিতীয় তলার ইনডোরে চিকিৎসক ডা. মুহতাসিম লতিফুল ইসলাম রোগী দেখতে যান। ওই সময় ফার্মেসি মালিক তমাল সরাসরি ইনডোরে ঢুকে রোগীদের ওষুধ নিতে পীড়াপীড়ি করলে চিকিৎসক তাকে নিষেধ করেন। পরে ডা. মুহতাসিমকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেন তমাল। ওই ঘটনায় হাসপাতালের চিকিৎসক, কর্মকর্তা, কর্মচারীরা প্রতিবাদ স্বরুপ কর্মবিরতির সিদ্বান্ত নেন। পরে রোগীদের কথা ভেবে সাধারণ সম্পাদক সফিকুল হক ছুটুর অনুরোধে তারা সে সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসেন।

এ ব্যাপারে তমালের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তার মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়।

ডায়াবেটিস হাসপাতাল পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক সফিকুল হক ছুটু বলেন, তমাল-মালেকা ফার্মেসির মালিক তমালের বিরুদ্ধে কোতোয়ালি থানায় মামলা হয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এসএ/এআর