জুয়ার টাকা না পেয়ে স্ত্রীকে হত্যা

ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৯ অক্টোবর ২০২১,   কার্তিক ৪ ১৪২৮,   ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

জুয়ার টাকা না পেয়ে স্ত্রীকে হত্যা, হাসপাতালে লাশ রেখে পালাল স্বামী 

গাইবান্ধা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২১:২৩ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১  

সাদুল্লাপুর থানা

সাদুল্লাপুর থানা

জুয়া খেলার জন্য স্ত্রী কাকুলি রাণী মোহন্তের কাছে টাকা না পেয়ে তাকে হত্যা করেন স্বামী কল্লোল চন্দ্র মোহন্ত। এরপর লাশ হাসপাতালে রেখে তিনি পালিয়ে যান। 

শনিবার সকালে এ হত্যাকাণ্ড ঘটে। নিহত কাকুলি রাণী মোহন্ত সাদুল্লাপুর উপজেলার পূর্ব কেশালিডাঙ্গা গ্রামের কল্লোব চন্দ্র মোহন্তের স্ত্রী ও পার্শ্ববর্তী রসুলপুর গ্রামের চিত্তরঞ্জন মহন্তের মেয়ে।

গাইবান্ধা জেনারেল হাসপাতালের কর্মকর্তা মো. ওবাইদুল্লা জানান, আজ সকালে স্বামী পরিচয়ে এক ব্যক্তি হাসপাতালে ওই নারীকে নিয়ে আসেন। জরুরি বিভাগের চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। 

তিনি জানান, হাসপাতালে আনার আগেই ওই নারীর মৃত্যু হয়েছে। এই খবর শুনে ওই নারীর স্বামী কল্লোল চন্দ্র কৌশলে পালিয়ে যান। পরে হাসপাতাল থেকে পুলিশে খবর দেওয়া হয়। পুলিশ হাসপাতালে গিয়ে লাশটি মর্গে পাঠানোর ব্যবস্থা করে। অভিযুক্ত কল্লোল চন্দ্র মোহন্ত পূর্ব কেশালিডাঙ্গা গ্রামের শুকুল চন্দ্র মোহন্তের ছেলে।

নিহত কাকুলির বড়ভাই মনোরঞ্জন মোহন্ত বলেন, আড়াই বছর আগে কাকুলির সঙ্গে কল্লোলের বিয়ে হয়। বিয়ের পর জানা যায়, কল্লোল জুয়ায় ও মাদকাসক্ত। বিয়ের পর কল্লোল ও তার পরিবারের লোকজন কাকুলিকে যৌতুকসহ বিভিন্ন কারণে প্রায় শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করতো। এ ছাড়া মাদক সেবন ও জুয়া খেলার জন্যও শ্বশুর বাড়ি থেকে টাকা আনার জন্য কল্লোল স্ত্রী কাকুলিকে চাপ দিতেন।

শুক্রবার রাতে কল্লোল জুয়া খেলার জন্য তার স্ত্রী কাকুলি রাণীর কাছে টাকা চায়। কাকুলি টাকা দিতে অস্বীকার করেন। এতে কল্লোল ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে বেদম মারপিট করে। এক পর্যায়ে তার মৃত্যু হয়। পরে কল্লোল লাশ গাইবান্ধা জেনারেল হাসাপাতালে নিয়ে যান। চিকিৎসক মৃত ঘোষণার পর তিনি লাশ রেখে কৌশলে পালিয়ে যান।

সাদুল্লাপুর থানার ওসি প্রদীপ কুমার রায় ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, এই ঘটনায় নিহতের বাবা চিত্তরঞ্জন মহন্ত থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় কল্লোল চন্দ্র মোহন্তের নাম উল্লেখ করে এবং কয়েকজনকে অজ্ঞাত দেখানো হয়।  

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে