চোরের মায়ের সৎকারে এগিয়ে এলো না কেউ, ছুটে গেলেন চেয়ারম্যান

ঢাকা, শনিবার   ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১,   আশ্বিন ৩ ১৪২৮,   ০৯ সফর ১৪৪৩

চোরের মায়ের সৎকারে এগিয়ে এলো না কেউ, ছুটে গেলেন চেয়ারম্যান

নেত্রকোনা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:১৭ ৪ আগস্ট ২০২১   আপডেট: ১৯:৩৮ ৪ আগস্ট ২০২১

নেত্রকোনায় ছেলে চোর হওয়ায় তার মায়ের সৎকারে এগিয়ে আসেনি গ্রামবাসী

নেত্রকোনায় ছেলে চোর হওয়ায় তার মায়ের সৎকারে এগিয়ে আসেনি গ্রামবাসী

নেত্রকোনায় ছেলে চোর হওয়ায় তার মায়ের সৎকারে এগিয়ে আসেনি গ্রামবাসী। এমন অবস্থায় মানবিক দিক বিবেচনায় সৎকার করতে ছুটে গেলেন ইউপি চেয়ারম্যান। বুধবার নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলার বড়খাপন ইউনিয়নের বাউসারী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বড় খাপন ইউপির বাউসারী গ্রামের বাসিন্দা রামকৃষ্ণ তালুকদারের ৫ মেয়ে ও একটি মাত্র ছেলে রাজিব তালুকদার। যার একমাত্র পেশা চুরি। আর এ চুরির ঘটনায় গত সোমবার রাজিবকে পুলিশ আটক করে কোর্টে সোপদ করে। 

এর আগে রোববার সন্ধ্যায় ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি রাজিবকে পুলিশ আটক করে থানায় নিয়ে যাবার সময় কৌশলে সে হাতকড়া ফসকে পালিয়ে যায়। পরদিন সোমবার ফের আটক করে আরো একটি মামলা দিয়ে মঙ্গলবার কোর্টে পাঠায় পুলিশ।

এদিকে রাজিবের মা ঝরনা তালুকদার দীর্ঘদিন ধরে নানা রোগে ভোগে বুধবার সকালে মারা যান। এদিকে চোরের মায়ের সৎকারে গ্রামবাসী এগিয়ে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। পরে এমন খবর পেয়ে ইউপি চেয়ারম্যান নিজে ছুটে যান। পরিশেষে মৃতের আত্মীয়দের নিয়ে সৎকার সম্পন্ন করেন। বিষয়টি এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে এলাকাবাসী প্রশংসা করেন চেয়ারম্যানের।

তারা জানান, পরিবার ইচ্ছে করলেই তার সন্তানকে ভালো পথে দেখাতে পারেন। না পারলে সবার সহযোগিতা চাইতে পারেন। কিন্তু যারা এমনটি না করে সন্তানদের খারাপ কাজে বাধা না দিয়ে বাঁচাতে চেষ্টা করেন তাদের সঙ্গে সবার সম্পর্ক ছিন্ন করাই সামাজিক একটি উদ্যোগ বলে মনে করেন।

এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান একে এম হাদিছুজ্জামান হাদিস বলেন, আমার এটি দায়িত্ব। তিনি যেই হোন তার কাজেই এগিয়ে যেতে হবে। তবে গ্রামবাসীও অনেক আন্তরিক। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে রাজিবের চুরির কারণে অতিষ্ট হয়ে ক্ষোভে দুঃখে এ জেদ ধরেছে। 

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ