বাঁশ দিয়ে লেবেল ক্রসিং বানিয়ে পাহারা দিচ্ছেন দুই তরুণ

ঢাকা, রোববার   ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১,   আশ্বিন ৪ ১৪২৮,   ১০ সফর ১৪৪৩

বাঁশ দিয়ে লেবেল ক্রসিং বানিয়ে পাহারা দিচ্ছেন দুই তরুণ

নওগাঁ প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:০৭ ১ আগস্ট ২০২১   আপডেট: ১৯:২১ ১ আগস্ট ২০২১

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

নওগাঁর আত্রাই উপজেলায় শাহাগোলা রেলওয়ে স্টেশনে পারাপারে লেবেলক্রসিং এর গেট নেই। এতে দুর্ঘটনার সম্ভাবনার কথা ভেবে স্থানীয় দুই তরুণ উদ্যোগ নিয়ে বাঁশ দিয়ে তৈরি করেছেন লেবেল ক্রসিং। দুজনেই সেখানে স্বেচ্ছাশ্রমে পাহারাও দিচ্ছেন।

শিমুলিয়া গ্রামের কলেজ পড়ুয়া আনোয়ার হোসেন এবং তার বন্ধু বেরাহোসন গ্রামের মামুন হোসেন এ মহতি উদ্যোগ নেন।

আত্রাই উপজেলার ইউএনও ইকতেখারুল ইসলাম বলেন, আনোয়ার হোসেন ও মামুনকে স্ব উদ্যোগে ব্যারিয়ার নির্মাণ করে স্বেচ্ছাশ্রমে গেইট কিপারের দায়িত্ব পালন করতে দেখে হতভম্ব হয়ে গেছি। 

আনোয়ার আত্রাই মোল্লা আজাদ মেমোরিয়াল বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্সের তৃতীয়বর্ষে পড়াশোনা করছেন। মামুন এসএসসি পাশ করে পরিবারের কৃষি কাজ করছেন। 

এ সড়ক দিয়ে রেল লাইন পারাপারে এক মাত্র পথ হওয়ায় যে কোনো সময় দুর্ঘটনার আশঙ্কাও রয়েছে। সেই ভাবনা থেকে দরিদ্র কৃষক পরিবারের ওই তরুণ নিজের খরচে এ কাজের উদ্যোগ নেন বলেন তারা।

আনোয়ার ও মামুন জানান, তাদের সঙ্গে শাহাগোলা এবং আত্রাই রেলক্রসিং এর গেট কিপারদের সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রয়েছে। তাদের সঙ্গে সমন্বয় করে ট্রেন আসার আগেই গতিরোধক ব্যারিয়ারের সিগন্যাল ফেলে নিরাপদ যাতায়াতে কাজ করছেন তারা।

গণমাধ্যমে বিভিন্ন সময় লেবেল ক্রসিং এর দুর্ঘটনার খবর জেনে তাদের এই উদ্যোগ নেওয়ার কথা মাথায় আসে। মানুষের প্রাণ বাঁচাতে সকাল, দুপুর ও রাতে ট্রেন আসার সময় ধরে নিয়মিত গেইটকিপারের দায়িত্ব পালন করছেন তারা ।

আহসানগঞ্জ রেলস্টেশনের স্টেশন মাস্টার ছাইফুল ইসলাম জানান, ট্রেন দুর্ঘটনার হাত থেকে সবাইকে বাঁচাতে এ দুই বন্ধুর উদ্যোগ আসলেই প্রশংসনীয়। এখানে একটি স্থায়ী রেলগেট প্রয়োজন বলেও মনে করেন তিনি।

রেলওয়ের শান্তাহারের পিডাব্লিইউ অফিসের সিনিয়র সাব-এসিস্টেন্ট ইঞ্জিনিয়ার আফজাল হোসেন বলেন, শাহাগোলা-মাধাইমুড়ি মাঝামাঝি স্থানে রেল লাইন পারাপারের জন্য জনগণের সুবিধার জন্য একটি অস্থায়ী লেবেল গেট নির্মাণ করা হয়েছে। তবে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফত রের মাধ্যমে বাংলাদেশ রেলওয়ে বরাবর আবেদন করলে সেখানে স্থায়ী রেলগেইট নির্মাণ করা সম্ভব।

এ রেলপথে সান্তাহার থেকে আব্দুলপুর পর্যন্ত ২০টি লেবেল ক্রসিং গেইট রয়েছে বলেও জানান তিনি।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে