ঝিনাই নদীর ভাঙন আতঙ্কে বাসাইলের ৫ শতাধিক পরিবার

ঢাকা, শুক্রবার   ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১,   আশ্বিন ৯ ১৪২৮,   ১৫ সফর ১৪৪৩

ঝিনাই নদীর ভাঙন আতঙ্কে বাসাইলের ৫ শতাধিক পরিবার

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৩:১২ ২৭ জুলাই ২০২১  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

টাঙ্গাইলের বাসাইলে গত এক সপ্তাহে ঝিনাই নদীর প্রায় ২০ কিলোমিটার এলাকায় হঠাৎ ভাঙন দেখা দিয়েছে। এরইমধ্যে প্রায় ১০-১৫টি ভিটাবাড়ি ও ফসলি জমিসহ বিস্তীর্ণ এলাকা বিলীন হয়ে গেছে। ভাঙনের ফলে অনেকেই বাড়ি-ঘর ভেঙে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিচ্ছে। অনেকেই আবার শেষ সম্বল বসত ভিটে হারিয়ে হয়েছেন আশ্রয়হীন। 

এছাড়াও প্রায় ৫ শতাধিক পরিবারের ভাঙন আতঙ্কে কাটাচ্ছেন নির্ঘুম রাত। ভাঙনের শঙ্কায় রয়েছে বিলপাড়ার বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রশিদ প্রধানমন্ত্রীর উপহার দেয়া বীর নিবাসটিও। ভাঙনরোধে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার দাবি ভুক্তভোগীদের।

এ উপজেলার নদী তীরবর্তী ফুলকি, কাশিল, কাঞ্চনপুর ও হাবলা ইউপির প্রায় ২০ কিলোমিটার এলাকার অন্তত ২০টি গ্রামে এরইমধ্যে ভাঙন দেখা দিয়েছে। ভাঙন কবলিত গ্রাম গুলোর মধ্যে রয়েছে ফুলকি ইউপির দোহার, হাকিমপুর, জশিহাটি ও একঢালা। কাশিল ইউনিয়নের দাপনাজোর, দেউলী, কামুটিয়া, নর্থখোলা, কাশিল, থুপিয়া, নাকাছিম ও বিয়ালা। কাঞ্চনপুর ইউনিয়নের কাজিরাপাড়া, বিলপাড়া, মানিকচর ও আদাজান।

বিলপাড়ার বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রশিদ প্রধানমন্ত্রীর উপহার দেয়া বীর নিবাস যেকোনো মুহূর্তে বিলীন হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। ভাঙনের হুমকিতে রয়েছে পাকা সড়ক, খেলার মাঠ, হাট-বাজার, ধর্মীয় ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ সরকারি বেসরকারি বিভিন্ন স্থাপনা। এখনই ব্যবস্থা না নিলে নদীগর্ভে বিলীন হবে বসতবাড়িসহ অনেক গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা। ছিন্নমূলের তালিকায় যোগ হবে এলাকার কয়েক হাজার মানুষ।

স্থানীয়দের অভিযোগ, সারাবছরই ঝিনাই নদীর বিভিন্ন পয়েন্টে ড্রেজার ও ভেকু দিয়ে অবৈধভাবে বালু তোলার করেন স্থানীয় প্রভাবশালীরা। প্রতি বছর এই নদী থেকে ব্যাপকহারে বালু তোলার কারণে ভাঙনের তীব্রতা বাড়ছে। অবৈধ উত্তোলন বন্ধে দায়সারা দু’একটি অভিযান ছাড়া প্রশাসনের ভূমিকা রহস্যময় বলে প্রশ্ন তুলেছেন তারা।

ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্ত কাঞ্চনপুর কাজিরাপাড়া এলাকার খসরু খান জানান, আমার ভিটাবাড়ি যে টুকু ছিল, সবই নদীতে চলে গেছে। এখন পরিবার নিয়ে বসবাস করার মতো জায়গাটুকুও নেই। 

ফুলকি ইউপি চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলাম বাবুল বলেন, ঝিনাই নদী তীরবর্তী দোহার, হাকিমপুর, জশিহাটি পশ্চিমপাড়া ও একঢালা এলাকার প্রায় ১০টি ভিটাবাড়ি নদীতে বিলীন হওয়ার শঙ্কায় রয়েছে। এরইমধ্যে অনেক কৃষকের আদাবী জমি নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে। তবে দোহার পয়েন্টে ভাঙন কবলিত বাধ সংস্কারের কাজ চলছে।

বাসাইল উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কাজী অলিদ ইসলাম বলেন, গত বর্ষায় কামুটিয়া পয়েন্টে ভেঙ্গে যাওয়া ঝিনাই নদীরক্ষা বেড়িবাঁধটি ৯৭ লাখ টাকা ব্যয়ে সংস্কার করা হচ্ছে। এছাড়াও চলতি সপ্তাহেই শুরু হয়েছে দোহার পয়েন্টে বাধ সংস্কারের কাজ। 

এ বিষয়ে টাঙ্গাইল পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সিরাজুল ইসলাম বলেন, ঝিনাই নদীর ভাঙন রোধে বিভিন্ন পয়েন্টে কাজ অব্যাহত আছে। নতুন করে ভাঙন কবলিত পয়েন্টগুলোতে জরুরি ব্যবস্থা নেয়া হবে। প্রতি বছর অস্থায়ী ভাঙনরোধে শুধু টাকাই অপচয় হচ্ছে। নদীর এই ভাঙনরোধে স্থায়ী পরিকল্পনা নেয়া জরুরি। অহেতুক টাকা অপচয় ঠেকাতে ও নদী ভাঙনরোধের স্থায়ী প্রকল্প পাঠানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএস