‘সবচেয়ে কঠোর’ লকডাউনে শিমুলিয়ায় শত শত যাত্রী

ঢাকা, শুক্রবার   ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১,   আশ্বিন ৯ ১৪২৮,   ১৫ সফর ১৪৪৩

‘সবচেয়ে কঠোর’ লকডাউনে শিমুলিয়ায় শত শত যাত্রী

মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৩:০৬ ২৭ জুলাই ২০২১  

শিমুলিয়ায় ঢাকামুখী যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড়

শিমুলিয়ায় ঢাকামুখী যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড়

করোনা সংক্রমণ রোধে চলমান ‘সবচেয়ে কঠোর’ লকডাউনে ফেরিতে যাত্রী ও ব্যক্তিগত গাড়ি পারাপারে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌরুটে মানা হচ্ছে না এ নিয়ম। লকডাউনের পঞ্চম দিন (মঙ্গলবার) এ রুটের প্রতিটি ফেরিতে শত শত যাত্রী ও ব্যক্তিগত গাড়িকে পদ্মা পাড়ি দিতে দেখা গেছে।

লকডাউন বাস্তবায়ন ও ফেরিতে যাত্রী চলাচল নিয়ন্ত্রণে ঘাটের অভিমুখে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর চেকপোস্ট থাকলেও যাত্রীরা সত্য-মিথ্যা নানা অজুহাতে তা অতিক্রম করে ফেরিঘাটে ভিড় করছেন।

সরেজমিনে দেখা গেছে, বাংলাবাজার থেকে শিমুলিয়া ঘাটে আসা প্রতিটি ফেরিতে যানবাহনের পাশাপাশি যাত্রীদের উপচেপড়া ভিড়। প্রতিটি ফেরিতেই শত শত ঢাকামুখী যাত্রী। আবার শিমুলিয়া হয়ে বাংলাবাজার যাচ্ছেন দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলগামী যাত্রীরা। তবে ফেরিতে ঢাকামুখী যাত্রীদের ভিড় বেশি। এতে ফেরিতে মানা হচ্ছে না সামাজিক দূরত্ব, উপেক্ষিত থাকছে স্বাস্থ্যবিধিও।

‘সবচেয়ে কঠোর’ লকডাউনেও আটকে রাখা যাচ্ছে না মানুষকে, স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা করেই শিমুলিয়া পাড়ি দিচ্ছেন শত শত যাত্রী

এদিকে, যানবাহন না পেয়ে বাংলাবাজার থেকে শিমুলিয়াঘাটে আসা ঢাকামুখী যাত্রীরা গন্তব্যের উদ্দেশে দীর্ঘ পথ পাড়ি দিচ্ছেন পায়ে হেঁটেই। মাদারীপুর থেকে আসা নজরুল ইসলাম বলেন, আমি সৌদি আরব যাব। তাই করোনা টিকা দিতে ঢাকায় যাচ্ছি। টিকা না নিলে ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। টিকা নেয়ার জন্যই বের হয়েছি।

ফয়সাল হোসেন বললেন, আমি ব্যাংকে কাজ করি। তাই চাকরিতে যাচ্ছি। পথে দুই জায়গায় পুলিশের চেকপোস্ট পড়েছিল সেখানে আইডি কার্ড দেখিয়েছি। তখন আসতে দিয়েছে।

বিআইডব্লিউটিসি শিমুলিয়া ঘাটের ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) মো. ফয়সাল বলেন, শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌরুটে চারটি রোরো, তিনটি মিডিয়াম ও একটি ছোট ফেরি চলাচল করছে। লকডাউনের আওতার বাইরে ও জরুরি সেবার অধীনে থাকা যানবাহন পারাপারে এসব ফেরি সচল রাখা হয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর