চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রদল সভাপতির পদবাণিজ্য

ঢাকা, শুক্রবার   ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১,   আশ্বিন ৯ ১৪২৮,   ১৫ সফর ১৪৪৩

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রদল সভাপতির পদবাণিজ্য

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:০৩ ২৫ জুলাই ২০২১   আপডেট: ১৬:৪১ ২৫ জুলাই ২০২১

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রদলের সভাপতি শহীদুল আলম শহীদ- ফাইল ফটো

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রদলের সভাপতি শহীদুল আলম শহীদ- ফাইল ফটো

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির সভাপতি জাফরুল ইসলাম চৌধুরী, সাবেক সহ-সভাপতি এনামুল হক এনাম, ইদ্রিস মিয়াসহ বিশাল একটি অংশের সঙ্গে অপর গ্রুপের বিরোধপূর্ণ সম্পর্ক চলছে বেশ কিছুদিন ধরে। তাদের বিরোধের জের ছাত্রদলের ওপরও প্রভাব বিস্তার করেছে। আর এই বিরোধকে কাজে লাগিয়ে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রদল সভাপতি শহীদুল আলম শহীদ আর্থিক লেনদেনে জড়িয়েছেন। প্রতিটি উপজেলার একাধিক নেতার কাছ থেকে আর্থিক লেনদেনে জড়ানোর অভিযোগ আছে তার বিরুদ্ধে। এরই মধ্যে শহীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গেছে কেন্দ্রে।

এ বিষয়ে শহীদুল আলম শহীদ বলেন, জেলার সভাপতি হতে গেলে সবার সঙ্গে সম্পর্ক রাখতে হয়। যিনি অভিযোগ করছেন তার বিরুদ্ধে তো অনেক অভিযোগ। ৬ বছরে কোনো কর্মকাণ্ডে ছিলেন না, কী করে সেক্রেটারি হলেন?

অন্যদিকে একই বিষয়ে সাধারণ সম্পাদক মো. মহসীন বলেন, সংগঠনকে এগিয়ে নিতে দুজনের একতা দরকার। এখনো আমরা আলাদা কিছু করিনি। মতপার্থক্য থাকতে পারে, কিন্তু সাংগঠনিকভাবে যারা ত্যাগ স্বীকার করেছেন তাদের ঘায়েল করার চেষ্টা মেনে নেয়া যায় না। ব্যক্তিগত সমস্যাকে রাজনৈতিকভাবে ব্যাখ্যা দেওয়া অমূলক।

তিনি আরো বলেন, নিজের ব্যর্থতা ঢাকতে অন্যের ওপর দোষ চাপানো উচিত নয়। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধরনের লেনদেনের কথা বলেছেন অনেকে। এসএমএসের স্ক্রিনশটও দেখিয়েছেন। বিষয়গুলো কেন্দ্রকে অবহিত করা হয়েছে।

এদিকে দক্ষিণ জেলা ছাত্রদলের প্রস্তাবিত কমিটির একজন নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, শহীদুল আলমকে দিয়ে ছাত্রদল ধ্বংস করার জন্য গোপন মিশনে নেমেছেন প্রভাবশালী এক বিএনপি নেতা। তারই আশ্রয়-প্রশ্রয়ে শহীদুল আলম শহীদ দক্ষিণ জেলার নানা ইউনিটে, থানা, কলেজ কমিটিতে পদ দেওয়ার নামে আর্থিক লেনদেন করছেন। স্থানীয় বিএনপি নেতাদের পছন্দের লোক আনতে তাদের কাছ থেকেও নিচ্ছেন বড় অঙ্কের টাকা। আর এসব কিছু হচ্ছে ওই প্রভাবশালী নেতার সম্মতিতে।

২০১৮ সালের গত ১ আগস্ট চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার পাঁচ সদস্যবিশিষ্ট আংশিক কমিটির অনুমোদন দেন ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি রাজিব আহসান ও সাধারণ সম্পাদক আকরামুল হাসান। শহীদুল আলম শহীদকে সভাপতি, মো. মহসিনকে সাধারণ সম্পাদক, ইকবাল হায়দার চৌধুরীকে সিনিয়র সহ-সভাপতি, কেএম আব্বাসকে যুগ্ম সম্পাদক ও গাজী মনিরকে সাংগঠনিক সম্পাদক করা হয়।

ছাত্র হিসেবে দাবি করা শহীদুল আলম এখন তিন সন্তানের জনক। বর্তমান কমিটির আগে ২০১১ সালে জসিম উদ্দিনকে আহ্বায়ক এবং মরহুম শহীদুল ইসলামকে সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক করে ১৪ সদস্যবিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটি করা হয়েছিল। তারও আগে ২০০২ সালের নভেম্বরে মহসীন চৌধুরী রানাকে সভাপতি ও রেজাউল করিম নেছারকে সাধারণ সম্পাদক করে ৫১ সদস্যবিশিষ্ট দক্ষিণ জেলা ছাত্রদলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন করা হয়েছিল।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ/এইচএন