হাসপাতালের বেডে শুয়েও কোরবানির মাংস খেতে চেয়েছিলেন

ঢাকা, বুধবার   ২৮ জুলাই ২০২১,   শ্রাবণ ১৩ ১৪২৮,   ১৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

হাসপাতালের বেডে শুয়েও কোরবানির মাংস খেতে চেয়েছিলেন এটিএম শামসুজ্জামান

বিনোদন প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৮:০৭ ২২ জুলাই ২০২১  

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

এটিএম শামসুজ্জামান। বাংলা চলচ্চিত্র জগতে কিংবদন্তি অভিনেতা তিনি। পর্দায় তার ভিলেন চরিত্রে অভিনয় আজও দর্শকেরা মনে রেখেছেন। কিন্তু সবাইকে কাঁদিয়ে চলতি বছরের ২০ ফেব্রুয়ারি মারা যান তিনি। এই প্রথম তাকে ছাড়া কোরবানির ঈদ করতে হচ্ছে স্ত্রী সন্তানদের।

এটিএম শামসুজ্জামানের শেষ দিনগুলোর অধিকাংশ সময় হাসপাতালে কাটাতে হয়েছে। প্রয়াত এই অভিনেতার গত বছর কোরবানির ঈদ কেটেছে হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে। তিনি তখন খুব অসুস্থ ছিলেন।

বাবাকে নিয়ে সর্বশেষ ঈদের স্মৃতিচারণ করে ছোট মেয়ে কোয়েল বলেন, আব্বা অসুস্থ হওয়ার পরে গত দুই বছর তাকে আমরা কাছেই পেয়েছি। কারণ তখন আর শুটিং নিয়ে ব্যস্ত থাকতে পারতেন না। গত কোরবানির ঈদেও তিনি  হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন।

সেসময়ের একটি ঘটনার কথা স্মরণ করে কোয়েল বলেন, একদিন হঠাৎ করেই কোরবানির মাংস খেতে চাইলেন। কিন্তু গতবার আমরা বাসায় কোরবানি দেইনি। তাছাড়া বাবার মাংস খাওয়া বারণ ছিল। তারপরও আমার এক মামির বাসা থেকে মাংস নিয়ে এসেছিলাম।

প্রতিদিন নামাজে বসে বাবার জন্য দোয়া করেন কোয়েল। তিনি কান্না জর্জরিত কণ্ঠে বলেন, গত বছরও বাবা ছিল, এবার নেই। আমরা বাবাকে কিছুই দিতে পারিনি। এখন একটাই প্রার্থনা আল্লাহ আমাদের দোয়া যেন কবুল করেন; বাবাকে জান্নাতুল ফেরদৌস দেন।

১৯৬১ সালে উদয়ন চৌধুরীর ‘বিষকন্যা’ চলচ্চিত্রে সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজ শুরু করেন এটিএম শামসুজ্জামান। প্রথম দিকে কৌতুক অভিনেতা হিসেবে চলচ্চিত্র জীবন শুরু করলেও ১৯৭৬ সালে তার জীবনের গতি ঘুরে যায়। আমজাদ হোসেনের ‘নয়নমণি’ মুক্তি পেলে রাতারাতি আলোচনায় চলে আসেন তিনি। এরপর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি কীর্তিমান এই অভিনেতাকে।

ডেইলি বাংলাদেশ/টিএএস