চট্টগ্রামে দ্বিতীয় দিনেও হয়েছে পশু কোরবানি

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২৭ জুলাই ২০২১,   শ্রাবণ ১২ ১৪২৮,   ১৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

চট্টগ্রামে দ্বিতীয় দিনেও হয়েছে পশু কোরবানি

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৪:২৪ ২২ জুলাই ২০২১   আপডেট: ২০:০৩ ২২ জুলাই ২০২১

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ঈদুল আজহার দ্বিতীয় দিনেও চট্টগ্রাম নগরের বিভিন্ন এলাকায় পশু কোরবানি হয়েছে। যদিও তা ঈদের দিনের চেয়ে তুলনামূলক কম।

কসাই সংকট কিংবা পুরোনো পারিবারিক ঐতিহ্যসহ বিভিন্ন কারণে দ্বিতীয় দিন পশু কোরবানি দিয়েছেন অনেকেই। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে নগরীর বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে সেসব চিত্র।

ইসলামের বিধান অনুযায়ী, ঈদের দিন ছাড়াও তিনদিন পর্যন্ত (জিলহজ মাসের ১১ ও ১২ তারিখ) পশু কোরবানি করা যায়। তবে প্রথম দিন সর্বাপেক্ষা উত্তম।

নগরীর বহদ্দারহাট এলাকার বাসিন্দা ইরফান উদ্দিন ডেইলি বাংলাদেশকে বলেন, আমরা ঈদের দিন এবং ঈদের পরদিন মিলে দুইদিন পশু কোরবানি দেই। এটি আমাদের পারিবারিক ঐতিহ্য। আমাদের পূর্ব পুরুষ থেকে এমনটি হয়ে আসছে। আমরাও তা বজায় রেখেছি।

কোতোয়ালির বাসিন্দা সুরাইয়া ইসলাম বলেন, কসাই সংকটের কারণে ঈদের দ্বিতীয় দিন পশু কোরবানি দিয়েছি। সবকিছু ঠিকঠাকভাবে সম্পন্ন হয়েছে।

এদিকে, ঈদুল আজহার দিন সন্ধ্যা ৭টার মধ্যে নগরের কোরবানির পশুর ৮০ শতাংশ বর্জ্য অপসারণ করেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের পরিচ্ছন্ন কর্মীরা।

বর্জ্য অপসারণ স্ট্যান্ডিং কমিটির সভাপতি কাউন্সিলর মোবারক আলী বলেন, নগরকে চারটি জোনে ভাগ করে চারজন কাউন্সিলরের নেতৃত্বে ঈদের দিন সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বর্জ্য অপসারণের কাজ চলে। সাত হাজার ৫শ’ টন বর্জ্য অপসারণের লক্ষ্য ছিল এবার। তবে কোরবানি কম হওয়ায় তা হয়েছে পাঁচ থেকে সাড়ে পাঁচ হাজার টন।  

চসিক মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, ১০ ঘণ্টার মধ্যে বর্জ্য অপসারণের ঘোষণা বাস্তবায়নে স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারম্যান, জোনের দায়িত্বপ্রাপ্ত কাউন্সিলর, পরিচ্ছন্নতা বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও সেবকরা মাঠে ছিলেন। প্রধান সড়কে কোনো বর্জ্য নেই। দ্বিতীয় দিনেও কিছু কোরবানি হয়েছে। এসব বর্জ্যও দ্রুত অপসারণ করা হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম/এমকে