বরিশালে ইন্টারনেটভিত্তিক প্রশিক্ষণ নিয়ে স্বাবলম্বী হচ্ছেন বেকাররা

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২৭ জুলাই ২০২১,   শ্রাবণ ১২ ১৪২৮,   ১৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

বরিশালে ইন্টারনেটভিত্তিক প্রশিক্ষণ নিয়ে স্বাবলম্বী হচ্ছেন বেকাররা

বরিশাল প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৩:০৯ ২২ জুলাই ২০২১   আপডেট: ১৯:৪৫ ২২ জুলাই ২০২১

শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টার

শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টার

বরিশাল নগরীর শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টার থেকে ইন্টারনেটভিত্তিক প্রশিক্ষণ নিয়ে স্বাবলম্বী হচ্ছেন বেকার যুবক ও নারীরা।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টার থেকে বরিশালের বহু বেকার যুবক ও যুব নারীরা কম্পিউটারের ওপর বিভিন্ন কোর্সে ইন্টারনেটভিত্তিক প্রশিক্ষণ শেষে নেমে পড়েছেন আউটসোর্সিং পেশায়। এসব শিক্ষার্থীরা স্বল্প মেয়াদে গ্রাফিক্স, অ্যানিমেশন, ওয়েব ডিজাইন, ডাটা এন্ট্রির মতো ইন্টারনেটভিত্তিক প্রশিক্ষণ নিয়ে হয়েছেন স্বাবলম্বী।

প্রতিষ্ঠান সূত্রে জানা গেছে, প্রশিক্ষণপ্রাপ্তরা একটি ল্যাপটপ বা ডেস্কটপ কম্পিউটার ও ইন্টারনেট সংযোগ নিয়ে ঘরে বসেই মাসে আয় করছেন এক থেকে দেড় লাখ টাকা। ব্যক্তি পর্যায় এ পেশায় সীমাবদ্ধ না থেকে বেশ কয়েকজন গড়ে তুলেছেন ছোট ছোট প্রতিষ্ঠান। যে কারণে সরকার এ পেশাকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে গড়ে তুলেছে শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টার।

শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টারের (বিএম কলেজ অস্থায়ী কার্যালয়) প্রশিক্ষক মো. একেএম মাসুদ আলম জানান, শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টারের দ্বিতীয় ব্যাচের ছাত্র মো. নওশাদ। তার মতো আদিত্য, ইফতি, জয়ন্ত জয়, রাকিব হাসান ও মো. মাজহারুল ইসলামসহ শতাধিক তরুণ-তরুণী আউটসোর্সিং পেশায় কাজ করছেন। তারা ঘরে বসে দেশি ও বিদেশি কোনো ব্যক্তি কিংবা প্রতিষ্ঠানের জন্য গ্রাফিক্স, অ্যানিমেশন, ওয়েব ডিজাইন, ডাটা এন্ট্রির মতো শত শত ইন্টারনেটভিত্তিক কাজ করে দিচ্ছেন। এতে নিজেরা স্বাবলম্বী হচ্ছেন পাশাপাশি দেশের অর্থনীতিতে ইতিবাচক অবদান রাখছেন। বর্তমানে শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টারের পাশাপাশি বেসরকারি কিছু প্রতিষ্ঠানও বিনামূল্যে প্রশিক্ষণ দিচ্ছে।

বরিশাল নগরীর গোরস্থান রোডের বাসিন্দা টপ লেভেল সেলার ফ্রিল্যান্সার মো. নওশাদ বলেন, শুরুটা ছিল একদমই কৌতূহলে। ২০১৪-১৫ সালের দিকে এসএসসি পাসের পর পত্রিকায় একটা লেখা দেখে অনুপ্রাণিত হই। তখন ইন্টারনেট সহজলভ্য না হওয়ায় কিছু পেপার, ব্লগ আর কিছু বই পড়ে জানার চেষ্টা চালাতে থাকি। এভাবে কেটে গেল কয়েকটি বছর। এরপর একটা সময় সরকারি ফ্রি স্কিল ডেভেলপমেন্ট কোর্স করে ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের ওপর কাজ শিখে ফিভার মার্কেটপ্লেসে কাজ শুরু করি। অনেকটা সময় অপেক্ষা করে কাজ পেয়ে যাই। প্রথম দিকে মাসে ৭০-৮০ ডলার আয় করলেও নিজের দক্ষতা বৃদ্ধির মাধ্যমে বর্তমানে ৪০০-৫০০ ডলার আয় করা সম্ভব হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, বর্তমানে আমি সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং, অনুসন্ধান ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশন ও সামগ্রী বিপণনসহ বিভিন্ন ধরনের বিন ডেভেলপমেন্ট সলিউশন সেবা দিয়ে থাকি। করোনাকালে কাজ কিছুটা কমে গেলেও বর্তমানে কাজের পরিমাণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। সরকারের বেশ কিছু কার্যকরী উদ্যোগের কারণে বর্তমানে দেশে প্রায় ছয় লাখ মানুষ ফ্রিল্যান্সিং করছে।

নগরীর কলেজ অ্যাভিনিউর বাসিন্দা প্রফেশনাল ফ্রিল্যান্সার মো. মাজহারুল ইসলাম বলেন, ২০১০ সালে এসএসসি পাস করেছি। বর্তমানে আমি একজন প্রফেশনাল ফ্রিল্যান্সার ডিজিটাল মার্কেটার। ২০১৬ সালে আইসিটি মন্ত্রণালয়ের লার্নিং অ্যান্ড আর্নিং প্রকল্পের আওতায় ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের ওপর প্রশিক্ষণ গ্রহণ করি এবং ২০১৬ এর জুন মাস থেকে ফ্রিল্যান্সিং এ ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের কাজ শুরু করি। ২০১৭ সালে আইসিটি মন্ত্রণালয় থেকে জেলার সেরা ফ্রিল্যান্সার হিসেবে পুরস্কার পাই। ২০১৯ সালে আমি লন্ডনভিত্তিক ‘ফাইবার বয়’ নামে আমার প্রথম ডিজিটাল মার্কেটিং এজেন্সি শুরু করি।

তিনি আরো বলেন, বর্তমানে এ ডিজিটাল এজেন্সির মাধ্যমে ইউরোপ, আমেরিকা, কানাডা ও অস্ট্রেলিয়াসহ বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন কোম্পানির ডিজিটাল মার্কেটিং, ওয়েবসাইট ডিজাইন, গ্রাফিক্স ডিজাইন ও অফিস ম্যানেজমেন্টের সার্ভিস প্রদান করছি। বরিশালে ১৫ জনের একটা প্রফেশনাল টিম এ ফ্রিল্যান্সিং কাজগুলো পরিচালনা করে। ২০২০ সালের ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবস উপলক্ষে লন্ডনভিত্তিক ‘টপেন্সি লিমিটেড’ নামে আমাদের দ্বিতীয় ডিজিটাল আইটি কোম্পানির যাত্রা শুরু করেছি। ভবিষ্যতে পরিকল্পনা রয়েছে এ কোম্পানির উদ্যোগে বরিশালে একটি আইটি একাডেমি প্রতিষ্ঠা করা ও তরুণ প্রজন্মের যারা ফ্রিল্যান্সিংয়ের প্রতি আগ্রহী তাদের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে স্বাবলম্বী করা।

শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টার পরিচালিত ব্যাবিলন রিসোর্স-এর কো-অর্ডিনেটর মো. আলামিন বলেন, বরিশালে যারা ফ্রিল্যান্সিং পেশায় আছেন তাদের মধ্যে প্রায় সবাই শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টারের আওতায় প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেছেন। এসব তরুণ-তরুণীদের সবাই বর্তমানে স্বাবলম্বী।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর/এইচএন