হাসপাতালে ১৪ দিনের শিশু রেখে উধাও বাবা-মা

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২৭ জুলাই ২০২১,   শ্রাবণ ১২ ১৪২৮,   ১৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

হাসপাতালে ১৪ দিনের শিশু রেখে উধাও বাবা-মা

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ০৪:০২ ২০ জুলাই ২০২১  

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

১৪ দিন বয়সী শিশু ঝর্ণা। সদ্য জন্ম নেয়া ঝর্ণা অন্য সব শিশুর মতো সুস্থ-সবল নয়। তার হাতের বেশ কয়েকটি আঙ্গুল জোড়া লাগানো আর দুই পা কিছুটা বাঁকানো। এ অবস্থায় তাকে হাসপাতালে ভর্তি করান বাবা-মা।

ভর্তি থেকে শুরু করে বেড পর্যন্ত বাবা-মায়ের সান্নিধ্য পায় শিশু ঝর্ণা। কিন্তু এরপরই উধাও হয়ে যান তারা। নিবন্ধন খাতায় দেওয়া মোবাইল নম্বরেও পাওয়া যায়নি তাদের সংযোগ। রোববার দুপুরে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের শিশু সার্জারি ওয়ার্ডে এ ঘটনা ঘটে।

ওয়ার্ডটির নার্সিং ইনচার্জ শাহিনা সুলতানা বলেন, ভর্তির পর শিশুটিকে বেডে রেখেই পালিয়ে যান বাবা-মা। চিকিৎসকরা তাকে দেখতে গিয়ে অভিভাবকের খোঁজ করেন। না পাওয়ায় তখনই বিষয়টি নজরে আসে। পরে নিবন্ধন খাতায় দেওয়া নম্বরে ফোন দিলে সেটি আর ব্যবহৃত হচ্ছে না বলে জানানো হয়। এরপর দিনভর খোঁজাখুঁজি করেও তাদের সন্ধান পাওয়া যায়নি। নিবন্ধন খাতায় শিশুটির নাম ঝর্ণা এবং বাবার নাম মো. জসিম উদ্দীন। ঠিকানা লিখা ছিল খাগড়াছড়ির মানিকছড়ি।

তিনি আরো বলেন, শিশুটি কিছু ত্রুটি নিয়ে জন্মেছে। তার হাতের বেশ কয়েকটি আঙ্গুল জোড়া লাগানো আর দুই পা কিছুটা বাঁকানো। সম্ভবত এ কারণেই তাকে ফেলে গেছেন বাবা-মা। তবে শারীরিকভাবে এখন সম্পূর্ণ সুস্থ আছে শিশুটি। হাসপাতালের নার্স, আয়া ও চিকিৎসকরা তার দেখাশোনা করছেন।

এদিকে, বিষয়টি জেনে শিশু ঝর্ণার ভরণপোষণ ও চিকিৎসার যাবতীয় দায়িত্ব নিয়েছে চমেক হাসপাতালের রোগী কল্যাণ সমিতি।

রোগী কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক অভিজিৎ সাহা বলেন, শিশুটির খাবার ও চিকিৎসা থেকে শুরু করে সব দায়িত্ব আমরা নিয়েছি। ঈদের জন্য তাকে নতুন জামা কিনে দিয়েছি। সার্বক্ষণিক খোঁজখবর রাখছি। তার যেকোনো প্রয়োজন আমাদের জানাতে বলা হয়েছে। আমরা তার পাশে আছি।

তিনি আরো বলেন, প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে রউফাবাদের সমাজসেবা অধিদফতরের ছোটমণি নিবাসে শিশুটির আশ্রয়ণের ব্যবস্থা করা হবে। এর আগে কিছু নিয়মকানুন রয়েছে। আমরা তা শুরু করেছি। তবে মনে হচ্ছে হাসপাতালের ওয়ার্ডেই তাকে ঈদ করতে হবে।

এ বিষয়ে হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এসএম হুমায়ুন কবির বলেন, এ ঘটনায় পাঁচলাইশ থানায় জিডি করা হয়েছে। শিশুটি যেন নিরাপদ আশ্রয় পায় সে ব্যবস্থা করা হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমআর