কুষ্টিয়ায় মাটির নিচে মিলল গ্রেনেডসদৃশ বস্তু

ঢাকা, বুধবার   ২৮ জুলাই ২০২১,   শ্রাবণ ১৪ ১৪২৮,   ১৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

কুষ্টিয়ায় মাটির নিচে মিলল গ্রেনেডসদৃশ বস্তু

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:৪৬ ১৬ জুন ২০২১   আপডেট: ১৭:৪৯ ১৬ জুন ২০২১

উদ্ধারকৃত গ্রেনেড সদৃশ বস্তু

উদ্ধারকৃত গ্রেনেড সদৃশ বস্তু

কুষ্টিয়ার খোকসা উপজেলায় মাটির নিচ থেকে থেকে পরিত্যক্ত হ্যান্ড গ্রেনেডসদৃশ বস্তু উদ্ধার করা হয়েছে। বুধবার বেলা সাড়ে ১২টায় উপজেলা শিমুলিয়া ইউনিয়নের বসুয়া গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা আবদুর রহিমের বাড়ি থেকে  পরিত্যক্ত গ্রেনেডসদৃশ বস্তুটি উদ্ধার করা হয়েছে। 

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন খোকসা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সৈয়দ আশিকুর রহমান।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, প্রায় এক মাস আগে বসুয়া গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহিমের পরিবারের লোকজন একটি মান্দার গাছ কাটতে গিয়ে মাটির নিচে থেকে কালো রঙের একটি পরিত্যক্ত মরিচাধরা গ্রেনেডসদৃশ বস্তু দেখতে পায়। পরে ওই বস্তুটি রহিমের স্ত্রী ঘরে তুলে রাখেন। এটা কি বস্তু তা বুঝতে না পেরে একটি ঘরে একমাস রেখে দেন। বিষয়টি জানাজানি হলে বুধবার খোকসা থানা পুলিশ গ্রেনেড সদৃশ ওই বস্তুটি উদ্ধার করে। উদ্ধারের পর বুধবার দুপুরে বসুয়া এলাকার একটি পরিত্যক্ত জায়গায় মাটির নিচে পুঁতে রাখে। 

বীর মুক্তিযোদ্ধার বৃদ্ধা স্ত্রী রিজিয়া খাতুন জানান, মাস কয়েক আগে বাড়ির উঠানে বহু বছর আগে লাগানো একটি শিমুল গাছ বিক্রি করে দেয়া হয়। গাছটি কাটার সময় মাটির নিচে গাছের শেকড়ের কাছ থেকে শ্রমিকরা হ্যান্ড গ্রেনেড সদৃশ বস্তটি উদ্ধার করেন। তিনি সেটি মুক্তিযোদ্ধা স্বামীর স্মৃতিচিহ্ন হিসেবে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করে নিজের ঘরে ধানের মাচালের পাশে মাটিতে রেখে দেন।

শিমুলিয়া ইউনিয়নের একজন মুক্তিযোদ্ধা বলেন, ধারণা করা হচ্ছে স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় গ্রেনেডটি মাটির নিচে লুকিয়ে রাখা হয়েছিল।

খোকসা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সৈয়দ আশিকুর রহমান বলেন, আমি জানতে পেরে সঙ্গীয় পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিত্যক্ত গ্রেনেডসদৃশ বস্তটি উদ্ধার করা হয়েছে। পরে নিরাপদে ওই এলাকার একটি পরিত্যক্ত জায়গায় মাটির নিচে পুঁতে রাখা হয়েছে। বস্তুটির রঙ কালো।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ