স্কুলের প্রধান শিক্ষক এখন গরুর খামারের রক্ষণাবেক্ষণকারী 

ঢাকা, শনিবার   ৩১ জুলাই ২০২১,   শ্রাবণ ১৬ ১৪২৮,   ২০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

স্কুলের প্রধান শিক্ষক এখন গরুর খামারের রক্ষণাবেক্ষণকারী 

ত্রিশাল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৭:১৩ ১২ জুন ২০২১  

আলহেরা একাডেমি ত্রিশাল’র প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষক আজিজুল হক রশিদ অভাবের তাড়নায় মানবেতর জীবনযাপন করছেন। তিনি পেশা বদলিয়ে বর্তমানে গরুর খামারের র ক্ষণাবেক্ষণকারীর কাজ করছেন।

আলহেরা একাডেমি ত্রিশাল’র প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষক আজিজুল হক রশিদ অভাবের তাড়নায় মানবেতর জীবনযাপন করছেন। তিনি পেশা বদলিয়ে বর্তমানে গরুর খামারের র ক্ষণাবেক্ষণকারীর কাজ করছেন।

করোনা ভাইরাস মহামারির কারণে সব স্কুল বন্ধ থাকায় আলহেরা একাডেমি ত্রিশাল’র প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষক আজিজুল হক রশিদ অভাবের তাড়নায় মানবেতর জীবনযাপন করছেন। তিনি পেশা বদলিয়ে বর্তমানে গরুর খামারের র ক্ষণাবেক্ষণকারীর কাজ করছেন। 

মহামারি করোনার কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় জীবন ও জীবিকার প্রয়োজনে আজ তিনি গরুর খামারের রক্ষণাবেক্ষণকারী। অথচ এলাকার আলোহীনদের মাঝে শিক্ষার আলো ছড়াতে নিজে চাকরির মায়া ত্যাগ করে গড়ে তোলেন আলহেরা একাডেমি ত্রিশাল। 

উপজেলার ত্রিশাল সদর ইউপির মধ্য পাঁচপাড়া গ্রামের মৃত আজমত আলীর বড় ছেলে আব্দুর রশিদ। তিনি ১৯৯১ সালে বইলর-কানহর ডিএস মাদরাসা থেকে দাখিল পাস করার পর ত্রিশাল নজরুল (ডিগ্রি) কলেজে ভর্তি হন। ১৯৯৩ সালে এইচএসসি পাস করেন। তারপর তিনি ডিগ্রিতে ভর্তি হয়ে গড়ে তোলেন মর্ডান কোচিং সেন্টার। সংসারের বড় ছেলে হওয়ায় পারিবারিক চাপ সামলাতে কোচিংয়ের পাশাপাশি চাকরির আশায় দরখাস্ত করতে থাকেন। বেশ কয়েকবার প্রাইমারি সহকারী শিক্ষক নিয়োগের লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে ভাইভা পর্যন্ত পৌঁছলেও চূড়ান্ত নিয়োগ জুটেনি আব্দুর রশিদের কপালে। পরে তিনি কোচিং চালিয়ে সুনাম অর্জন ও ছাত্রসংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় স্কুল প্রতিষ্ঠার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। 

স্কুলের শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সঙ্গে কথা বলে ২০০০ সালে প্রতিষ্ঠা করেন আলহেরা একাডেমি ত্রিশাল। এরপর থেকে আলহেরা একাডেমি ত্রিশালের প্রধান শিক্ষক হিসেবে এক নামে পরিচিতি লাভ করেন আব্দুর রশিদ। মহামারি করোনার কারণে পৌরসভার ভাটিপাড়ায় প্রতিষ্ঠিত স্কুলঘরের ভাড়া এবং শিক্ষকদের বেতন না দিতে পারায় এবার মানবেতর জীবনযাপন করছেন। 

আব্দুর রশিদ জানান, করোনা মহামারির কারণে ২০২০ সালের মার্চ থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা আসে। স্কুলের ঘরভাড়া ও শিক্ষকদের বেতন দিতে না পারায় ৭ হাজার টাকা বেতনে গরুর খামারের রক্ষণাবেক্ষণের কাজ নিয়েছি। এখন ৯ হাজার টাকা বেতনে ওই খামারেই কাজ করছি।

তিনি বিনয়ের সঙ্গে বলেন, সব কিন্ডারগার্টেন স্কুলে সরকারিভাবে প্রণোদনা দেয়া খুবই জরুরি।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে