৬৭ ব্যবসায়ীকে পথে বসিয়ে দুই ভাই উধাও

ঢাকা, রোববার   ২০ জুন ২০২১,   আষাঢ় ৭ ১৪২৮,   ০৮ জ্বিলকদ ১৪৪২

৬৭ ব্যবসায়ীকে পথে বসিয়ে দুই ভাই উধাও

আশুগঞ্জ (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:৪৮ ১৬ মে ২০২১  

অভিযুক্ত দুই ভাই আবু সালাম মুন্সী এবং আবু কালাম

অভিযুক্ত দুই ভাই আবু সালাম মুন্সী এবং আবু কালাম

দুই ব্যবসায়ীর প্রতারণার ফাঁদে পড়ে দেশের অন্যতম বন্দর নগরী ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জের ব্যবসা-বাণিজ্য এখন হুমকির মুখে। প্রতারণার শিকার হয়ে সর্বস্ব খুইয়েছেন অন্তত ৬৭ জন ব্যবসায়ী। দেউলিয়া হয়ে পরিবার-পরিজন নিয়ে এখন মানবেতর জীবনযাপন করছেন তারা।

অভিযুক্ত দুই ব্যবসায়ী হলেন- আশুগঞ্জের সোহাগপুরের হাজী হামদু মুন্সী অটো রাইস মিলের মালিক আবু সালাম মুন্সী এবং মা জায়েদা খাতুন অটো রাইস মিলের মালিক আবু কালাম। তারা সম্পর্কে আপন ভাই। তাদের যৌথ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের নাম ইসলাম অ্যান্ড ব্রাদার্স।

ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীরা জানান, কিশোরগঞ্জ, সুনামগঞ্জ, হবিগঞ্জ, সিলেট, ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ দেশের হাওরাঞ্চলের উৎপাদিত ধান আশুগঞ্জ বন্দরে নিয়ে আসেন কৃষক ও পাইকাররা। এসব ধান বিভিন্ন চাতাল ও মিল ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করেন আশুগঞ্জের ১৪৭ জন আড়তদার। ধান থেকে চাল উৎপাদন করে ঢাকা, সিলেট, চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করেন চাতাল ও মিল ব্যবসায়ীরা। সততার সঙ্গে কোটি টাকার ধান-চাল বেচাকেনা করেন তারা।

ব্যবসায়ীরা আরো জানান, তাদের সততাকে পুঁজি করে ইসলাম অ্যান্ড ব্রাদার্স নামে প্রতিষ্ঠান দিয়ে প্রতারণার ফাঁদ পাতেন আবু সালাম মুন্সী ও আবু কালাম। বন্দরের আড়ৎদারদের কাছ থেকে দুটি চাতাল ও মিলের জন্য ধান কেনেন তারা। প্রথমে নিয়মিত লেনদেন করে আড়তদারদের বিশ্বস্ততা অর্জন করেন। পরে কৌশলে বাকিতে ধান কেনা শুরু করেন, টাকার অংকে যা ২০ লাখ থেকে এক কোটি পর্যন্ত। সব মিলিয়ে ৬৭ জন আড়তদার-ব্যবসায়ীর কাছ থেকে আট কোটি ৮৫ লাখ ২৪ হাজার ৭১১ টাকার ধান বাকিতে কেনেন দুই ভাই। এরপরই উধাও হয়ে যান। এতে মূলধন হারিয়ে চরম দুরবস্থায় পড়েছেন ভুক্তভোগী ব্যবসায়ীরা। কোনো উপায় না পেয়ে দুই প্রতারক ভাইয়ের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন তারা।

ক্ষতিগ্রস্ত  হাজী মো. ফজলুর রহমান জানান, আমি বন্দরে বহু বছর ধরে সততার সঙ্গে ব্যবসা করছি। দুই প্রতারকের কাছে আমার পাওনা ৯৯ লাখ টাকা। আরো অনেক ব্যবসায়ী আছেন যারা ওই প্রতারকদের কাছে ২০ লাখ থেকে এক কোটি টাকার বেশি পাবেন।

আশুগঞ্জ থানার ওসি জাবেদ মাহমুদ জানান, লিখিত অভিযোগ পেয়ে তদন্ত শুরু হয়েছে। ভুক্তভোগী ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা হয়েছে। শিগগিরই অভিযুক্ত দুই ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেয়া হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর