‘বাবুলের পরকীয়ার বলি মিতু’

ঢাকা, রোববার   ২০ জুন ২০২১,   আষাঢ় ৭ ১৪২৮,   ০৮ জ্বিলকদ ১৪৪২

‘বাবুলের পরকীয়ার বলি মিতু’

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:৪৩ ১২ মে ২০২১  

মিতুর বাবা মোশাররফ হোসেন

মিতুর বাবা মোশাররফ হোসেন

এক এনজিও কর্মীর সঙ্গে পরকীয়ার সম্পর্ক ছিল বাবুল আক্তারের। বিষয়টি মিতু জেনে যাওয়ায় সাঙ্গ-পাঙ্গদের দিয়ে তাকে হত্যা করেন বাবুল। বুধবার দুপুরে বাবুল আক্তারসহ আটজনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করার পর সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন মিতুর বাবা মোশাররফ হোসেন। 

এর আগে, নগরীর পাঁচলাইশ থানায় মামলাটি করেন তিনি।

মামলার অন্য আসামিরা হলেন- কামরুল ইসলাম শিকদার ওরফে মুসা, এহতেসামুল হক ভোলা, মোতালেব মিয়া ওরফে ওয়াসিম, আনোয়ার হোসেন, খায়রুল ইসলাম, সাইফুল ইসলম সিকদার ও শাহজাহান মিয়া।

মোশাররফ হোসেন বলেন, ২০১৩ সালে কক্সবাজারে পোস্টিং থাকাকালীন এনজিও কর্মী গায়েত্রী অমরসিংয়ের সঙ্গে বাবুলের পরকীয়ার সম্পর্ক গড়ে ওঠে। বিষয়টি জানাজানি হওয়ায় মিতুর সঙ্গে বাবুলের ঝগড়া হয়। পারিবারিকভাবে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টাও হয়। কিন্তু তা সফল হয়নি।

এদিকে, মোশাররফ হোসেনের করা মামলায় সাবেক এসপি বাবুল আক্তারের পাঁচদিনের রিমান্ড দিয়েছে আদালত। বুধবার বিকেলে চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম সরওয়ার জাহানের আদালত এ আদেশ দেন।

২০১৬ সালের ৫ জুন সকালে নগরের জিইসি মোড়ের কাছে ওআর নিজাম রোডে ছেলেকে স্কুলবাসে তুলে দিতে যাওয়ার পথে গুলি ও ছুরিকাঘাতে নির্মমভাবে খুন হন তৎকালীন পুলিশ সুপার বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু। এ ঘটনায় বাবুল আক্তার বাদী হয়ে পাঁচলাইশ থানায় একটি হত্যা মামলা করেন।

মামলাটি তদন্ত করছিল নগর ডিবি পুলিশ। পরে গত বছরের জানুয়ারিতে ‘আদালতের নির্দেশে’ মামলার তদন্তভার পায় পিবিআই। এরপর নতুন মোড় নেয় মামলাটি।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম