ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে থেমে থেমে যানজট 

ঢাকা, রোববার   ২০ জুন ২০২১,   আষাঢ় ৭ ১৪২৮,   ০৮ জ্বিলকদ ১৪৪২

ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে থেমে থেমে যানজট 

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:৪০ ১২ মে ২০২১  

মহাসড়কে আটকেপড়া যানবাহন

মহাসড়কে আটকেপড়া যানবাহন

টাঙ্গাইলের করটিয়া থেকে বঙ্গবন্ধু সেতুপূর্ব গোলচত্বর পর্যন্ত মহাসড়কের প্রায় ৩০ কিলোমিটার জুড়ে থেমে থেমে যানজট সৃষ্টি হয়েছে। এর ফলে মহাসড়কের বেশ কিছু অংশে আটকে আছে যানবাহন। 

এছাড়া যে অংশে চলাচল করছে তারও গতিসীমা সর্বোচ্চ ৫-১০ কিলোমিটার। ঈদ যাত্রার শেষের দিকে গণপরিবহন বন্ধ থাকায় মহাসড়কে মানুষের দুর্ভোগ চরমে পৌঁছেছে। রাতে মহাসড়কে গাড়ির চাপ কিছুটা কম থাকলেও ভোর থেকে বেড়েছে গাড়ির চাপ।

বুধবার সকাল থেকেই মহাসড়কে এ পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। তবে যানজট নিরসনে কাজ করছে পুলিশ। 

মহাসড়কের করটিয়া, টাঙ্গাইল বাইপাস, এলেঙ্গা, সল্লা, হাতিয়া এলাকায় যানবাহনের সঙ্গে যাত্রীদের জটলা সৃষ্টি হয়েছে। পুলিশের চেকপোস্ট থাকায় যে যেখান থেকে সুযোগ পাচ্ছে খালি কোনো যানবাহন দেখলেই তাতেই উঠে বসছে। তাদের অধিকাংশই গার্মেন্টস কর্মী। যার অধিকাংশই উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন জেলার লোক।

এছাড়া ঘরমুখো এসব মানুষদের গুনতে হচ্ছে চার থেকে পাঁচ গুন বেশি ভাড়া। গাদাগাদি করে বাড়ি ফেরা এসব মানুষের মাঝে বেড়ে যাচ্ছে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি। মহাসড়কে আজকেও দেখা যাচ্ছে দূরপাল্লার অসংখ্য বাস। মহাসড়কের আশেকপুর বাইপাস এলাকায় যানজটে আটকে আছে যানবাহন।

মাওনা গাজীপুর থেকে আসা যাত্রী নাজমুল বলেন, গার্মেন্টস ছুটি হয়েছে। যত কষ্টই হোক আর ভাড়া যতই লাগুক বাড়িতে যেতেই হবে। কারণ পরিবার পরিজন নিয়ে ঈদ করার আনন্দই আলাদা।

উত্তরবঙ্গগামী কাহান পরিবহনের বাস চালক রেজাউল বলেন, প্রায় আধাঘণ্টা হলো মহাসড়কের আশেকপুর অংশে আটকা রয়েছি। কখন যানজট ছাড়বে তখন যেতে পারবো। শুনছি সেতু পর্যন্তই নাকি এমন জ্যাম।

টাঙ্গাইল ট্রাফিক পুলিশের সার্জেন্ট কাজী অলিদ জানান, ভোর থেকেই মহাসড়কে গাড়ির চাপ বেড়ে গেছে। এতে মহাসড়কের কোথাও কোথাও যানবাহন থেমে থেমে চলছে। বর্তমানে বঙ্গবন্ধু সেতু থেকে করটিয়া পর্যন্ত মহাসড়কে গাড়ির দীর্ঘ সারি রয়েছে।

এলেঙ্গা হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ইয়াসির আরাফাত বলেন, বঙ্গবন্ধু সেতুর পূর্বপার থেকে গাড়ি টানতে না পারায় টাঙ্গাইলের অংশে থেমে যানবাহন চলাচল করছে। এছাড়া পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে জেলা ও হাইওয়ে পুলিশ কাজ করছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ