নারীদের রিকশায় তোলার পর ভয়ংকর হয়ে ওঠেন তারা

ঢাকা, রোববার   ০৯ মে ২০২১,   বৈশাখ ২৭ ১৪২৮,   ২৬ রমজান ১৪৪২

নারীদের রিকশায় তোলার পর ভয়ংকর হয়ে ওঠেন তারা

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ০২:৫৩ ২ মে ২০২১   আপডেট: ০৪:০২ ২ মে ২০২১

আটক প্রতারকরা

আটক প্রতারকরা

রিকশাচালক জালাল মিয়া। ভাড়ায় যাওয়ার চুক্তিতে দুই নারী যাত্রীকে তুলে নেন রিকশায়। কিছুদূর যাওয়ার পর রাস্তায় কুড়িয়ে পান একটি সোনার বার। এরপর কৌশলে বারটি গছিয়ে দেন ওই যাত্রীদের। বিনিময়ে নিয়ে নেন তাদের সঙ্গে থাকা সোনার গয়না ও টাকা। এরপর নিজের রিকশাটি নষ্ট হয়েছে জানিয়ে তুলে দেন অন্য রিকশায়।

ওই সময় না বুঝলেও পরে প্রতারণার বিষয়টি বুঝতে পারেন দুই নারী। এরই মধ্যে পরদিন দুই রিকশাচালককে দেখতে পেয়ে নেন পুলিশের সহায়তা। এরপর অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করে চট্টগ্রাম নগরের কোতোয়ালি থানা পুলিশ। আটক হন তাদের কাছ থেকে সোনা কিনে নেয়া জুয়েলার্স মালিকও।

শনিবার সন্ধ্যায় এ তথ্য নিশ্চিত করেন নগর পুলিশের এসি (কোতোয়ালি) নোবেল চাকমা। এর আগে, শুক্রবার সন্ধ্যায় সিনেমা প্যালেস ও হাজারী গলি এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়। জালাল মিয়া ছাড়াও আটক অন্যরা হলেন- অপর রিকশাটির চালক মো. কবির হোসেন ও জুয়েলার্স মালিক মধুসুধন চৌধুরী।

এসি নোবেল চাকমা বলেন, বৃহস্পতিবার সকালে কোতোয়ালি মোড় থেকে রিকশায় ওঠেন সিটি কর্পোরেশনের দুই নারী স্বাস্থ্যকর্মী। রিকশাটি সিডিএ বিল্ডিংয়ের গেটের সামনে গেলে রাস্তা থেকে একটি প্যাকেট মোড়ানো সোনার বার সাদৃশ বস্তু পকেটে নেন রিকশাচালক। এরপর নন্দন কানন এলাকায় পৌঁছালে বস্তুটি আসল সোনা জানিয়ে কৌশলে গছিয়ে দেন দুই যাত্রীকে। বিনিময়ে হাতিয়ে নেন তাদের কিছু গয়না ও টাকা। পরে বস্তুটি আসল সোনা নয় বলে জানতে পারেন তারা।

পরদিন শুক্রবার বিকেলে সিনেমা প্যালেস মোড়ে দুই প্রতারককে দেখতে পেয়ে পুলিশকে জানান ভুক্তভোগী দুই নারী। এরপর অভিযান চালিয়ে প্রথমে দুই রিকশাচালককে ও পরে তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে হাজারী লেন এলাকা থেকে জুয়েলার্স মালিককে আটক করা হয়। প্রতারণার মাধ্যমে হাতিয়ে নেয়া সোনাগুলো কিনে নিয়েছিলেন ওই জুয়েলার্স মালিক। তাদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমআর