পঁচা পেঁয়াজ কিনতে বাধ্য করছে টিসিবি, দিচ্ছে ওজনেও কম

ঢাকা, রোববার   ০৯ মে ২০২১,   বৈশাখ ২৬ ১৪২৮,   ২৬ রমজান ১৪৪২

পঁচা পেঁয়াজ কিনতে বাধ্য করছে টিসিবি, দিচ্ছে ওজনেও কম

বগুড়া প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২১:৩৩ ২১ এপ্রিল ২০২১  

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) বিরুদ্ধে প্যাকেজ আকারে বিক্রি, ওজনে কম দেয়া ও পঁচা পেঁয়াজ বিক্রির অভিযোগ উঠেছে।

গত ২ সপ্তাহ ধরে বগুড়া সদরসহ অন্যান্য উপজেলাগুলোতে টিসিবি পণ্য বিক্রি করছে। টিসিবির খাদ্য সামগ্রীর মধ্যে রয়েছে তেল, চিনি, বিদেশি পেঁয়াজ, খেজুর, ছোলা ও ডাল। নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য সামগ্রীর মূল্য নিয়ন্ত্রণ রাখতে ভোক্তাদের কাছে কিছুটা কম মূল্যে এসব বিক্রি করা হয়।

অভিযোগ রয়েছে, টিসিবির ডিলাররা সব পণ্য ৬৭৫ থেকে ১০০০ টাকায় প্যাকেজ হিসেবে বিক্রি করা হচ্ছে। এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন ক্রেতারা। বাধ্য হয়ে নিজের অপ্রয়োজনীয় পণ্যও তাদের কিনতে হচ্ছে। এমনকি জেনেশুনে পঁচা পেঁয়াজ ও নিম্নমানের খেজুর কিনছেন ক্রেতারা।

বুধবার দুপুরে বগুড়া শেরপুর উপজেলা থেকে শাজাহানপুর উপজেলায় টিসিবির পণ্য বিক্রি করতে আসে মেসার্স গালিব ট্রেডার্স। তারা প্যাকেজ হিসেবে তাদের পণ্য বিক্রি করছেন। তাদের পণ্যে মধ্যে রয়েছে পঁচা পেঁয়াজ ও নিম্নমানের খেজুর।

এ বিষয়ে ডিলারের প্রতিনিধি জাহিদুল বলেন, অফিস থেকে এভাবে পণ্য বিক্রি করতে বলা হয়েছে। আলাদাভাবে পণ্য বিক্রি করা হলে অনেক পণ্য নষ্ট হয়ে যাবে। 

জানতে চাইলে শেরপুরের ওই প্রতিষ্ঠানটির টিসিবির ডিলার  আব্দুল রশিদ মুঠোফোনে বলেন, প্যাকেজ হিসেবে পণ্য বিক্রির বিষয়ে আমার জানা নেই। আমার প্রতিনিধিরা বিক্রি করেছে কিনা আমি জানিনা। 

বগুড়া শহরের মামুনুর রশীদ নামের এক ক্রেতা অভিযোগ করেন, টিসিবির পণ্য প্যাকেজ ছাড়া বিক্রি করে না। বাধ্য হয়ে আমাদের পঁচা পেঁয়াজ ও নিম্নমানের খেজুর কিনতে হয়। এছাড়া ওজনেও কম থাকে টিসিবির পণ্য। 

শাজাহানপুর উপজেলার মাঝিড়া ইউপি সাবেক সদস্য দেলায়ার বলেন, আমার তেল, চিনি ও ডাল প্রয়োজন। আর আমার বাড়িতেই দেশি পেঁয়াজ রয়েছে। আমার শুধু তেল, চিনি ও ডালের প্রয়োজন। বাধ্য হয়েই বিদেশি বড় সাইজের পঁচা পেঁয়াজ কিনতে হচ্ছে।

বুধবার দুপুরে পণ্য না কিনেই খালি হাতে বাড়ি ফিরে যাচ্ছিলেন সালমা বেগম নামের এক নারী। তার সঙ্গে কথা হয়। তিনি বলেন, আমরা নিম্ন আয়ের মানুষ। দিন এনে দিন খাই, আমার পক্ষে প্যাকেজে ৬০০ থেকে ১০০০ টাকার পণ্য কেনা সম্ভব নয়। আমি তেল ও চিনি কিনতে চাই কিন্তু তারা আমাকে এভাবে পণ্য দিতে চাননি। তাই আমি খালি হাতে ফিরে যাচ্ছি। 

শুধু সালমা বেগমই নয় এমন অভিযোগ করছেন বগুড়া শহরের বাবু প্রামাণিক, তোহান মাহমুদ, বেলাল হোসেনসহ অন্তত ২০জন ভুক্তভোগী।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে টিসিবির বগুড়া ক্যাম্পের উপ-ঊর্ধ্বতন কার্যনির্বাহী কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম  বলেন, প্যাকেজ আকারে টিসিবির পণ্য বিক্রি করার কোনো নিয়ম নেই। কোনো ডিলার অনৈতিকভাবে প্যাকেজ আকারে বিক্রি করলে ডিলারশিপ বাতিল হয়ে যাবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম