চেতনানাশক খাইয়ে তরুণীকে গণধর্ষণ, গ্রেফতার ৩

ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৮ মে ২০২১,   জ্যৈষ্ঠ ৪ ১৪২৮,   ০৫ শাওয়াল ১৪৪২

চেতনানাশক খাইয়ে তরুণীকে গণধর্ষণ, গ্রেফতার ৩

ফরিদপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:৫৯ ১৪ এপ্রিল ২০২১  

গ্রেফতার জাকিরুল হক

গ্রেফতার জাকিরুল হক

ফরিদপুরের মধুখালীতে এক তরুণীকে গণধর্ষণে জড়িত অভিযোগে দুই নারীসহ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার দুপুরে আটকদের আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। গ্রেফতাররা হলেন, রোজিনা আক্তার, তার মা পারুল আক্তার এবং জাকিরুল হক।

মঙ্গলবার রাতে ওই তরুণীর বাবা বাদী হয়ে তিনজনের নামে এবং অজ্ঞাত পরিচয় আরো ৩/৪ ব্যক্তিকে আসামি করে মানবপাচার ও ধর্ষণের মামলা দায়ের করেন।

মামলার বাদী ওই তরুণীর বাবা জানান, মেয়েকে ধর্ষণের ঘটনায় জড়িত রোজিনা, পারুল আক্তার ও জাকিরুল হক নামে এবং অজ্ঞাত আরো ৩/৪ ব্যক্তিকে মামলায় আসামি করা হয়েছে। আমার মেয়ে এখন কিছুটা সুস্থ আছে। সে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসি সেন্টারে চিকিৎসাধীন। 

মামলায় অভিযোগ করা হয়, মধুখালী পৌর এলাকার আশ্রায়ন কেন্দ্রে বসবাস করেন পারুল আক্তার ও তার মেয়ে রোজিনা। পার্শ্ববর্তী গ্রামের একটি মেয়ে রোজিনার বান্ধবী। ওই মেয়েটির বিয়ে হয়েছে উপজেলার মাকড়াইল গ্রামে। তার তিন বছরের একটি সন্তান রয়েছে। কয়েকদিন আগে ওই মেয়েটি তার বাবার বাড়ি বেড়াতে আসেন। বাড়িতে আসার পর থেকে রোজিনা ওই মেয়েটির বাড়ি গিয়ে গল্পগুজব করতেন।  

অভিযোগে বলা হয়, গত রোববার রোজিনা ও তার মা পারুলসহ কয়েকজন ওই মেয়েটির বাড়ি গিয়ে গল্প করে চলে আসেন। কিছুক্ষণ পর রোজিনা মোবাইল ফেলে যাওয়ার কথা বলে আবার সেখানে যান। কিন্তু ওই সেখানে মোবাইল না পেলে তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এরপর বিকেলে রোজিনা ও তার মা পারুল কয়েকজন লোক নিয়ে ওই মেয়েটিকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে আসেন। এরপর দুইদিন তারা বিভিন্ন স্থানে নিয়ে গিয়ে ওই তরুণীকে চেতনানাশক খাইয়ে অচেতন করে গণধর্ষণে সহযোগিতা করেন। মঙ্গলবার সকালে মেয়েটিকে অচেতন অবস্থায় তাদের বাড়িতে ফেলে রেখে আসে বলে অভিযোগ করা হয় মামলায়।

মধুখালী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রথিন্দ্র নাথ তরফদার বলেন, মঙ্গলবার রাতে ওই তরুণীর বাবা বাদী হয়ে মামলা দায়ের করার পর রাতেই জাকিরুল হককে গ্রেফতার করা হয়। এর আগে রোজিনা ও তার মা পারুল আক্তারকে গ্রেফতার করা হয়।

তিনি আরো বলেন, রোজিনা ও পারুল আক্তার মধুখালী আশ্রয়ণ কেন্দ্রের বাসিন্দা। জাকিরুল হকের বাড়ি গোপালগঞ্জ জেলায়। তিনি মধুখালীতে অবস্থিত ফরিদপুর চিনিকলের বিদ্যুৎ বিভাগে চুক্তিভিত্তিক কর্মচারী হিসেবে কর্মরত।

গ্রেফতারদের আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ওই তরুণী সুস্থ হলে তার জবানবন্দি নিয়ে ঘটনার সঙ্গে আরো জড়িতদের আটক করা হবে।

ফরিদপুর চিনিকলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. গোলাম কবির বলেন, তরুণীর সঙ্গে খুবই ন্যক্কারজনক ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় চিনিকলের বিদ্যুৎ বিভাগের চুক্তিভিত্তিক কর্মচারী জাকিরুল হক জড়িত জানতে পেরেছি। পুলিশ তাকে গ্রেফতার করেছে। চিনিকল থেকেও তাকে অব্যাহতি দেয়া হবে।

ভুক্তভোগী ওই তরুণীর মা জানান, মেয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসি সেন্টারে চিকিৎসাধীন। তবে মঙ্গলবার রাতে ফরেনসিক পরীক্ষা-নিরীক্ষার কথা থাকলেও তা করা হয়নি। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন বৃহস্পতিবার পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএম