মোবাইল স্ক্রিনে জুয়ার আসর

ঢাকা, শনিবার   ১২ জুন ২০২১,   জ্যৈষ্ঠ ৩০ ১৪২৮,   ০১ জ্বিলকদ ১৪৪২

মোবাইল স্ক্রিনে জুয়ার আসর

নেত্রকোনা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১২:১১ ১৩ এপ্রিল ২০২১   আপডেট: ১৩:১২ ১৩ এপ্রিল ২০২১

চলছে ডিজিটাল জুয়ার আসর

চলছে ডিজিটাল জুয়ার আসর

হাতে বড় একটি ট্যাবলেট ফোন নিয়ে বসে আছেন এক তরুণ। তার চারপাশ জুড়ে গোল করে তাকে ঘিরে রেখেছেন অসংখ্য তরুণ তরুণী। দেখে মনে হতে পারে হয়ত সবাই মিলে মোবাইল স্ক্রিনে নাটক কিংবা ছবি দেখায় ব্যস্ত। কিন্তু বাস্তব চিত্রটি পুরোপুরি ভিন্ন।

সবাই একত্রে বসে চলছে ডিজিটাল জুয়ার আসর। রাতের আঁধারে তালাবদ্ধ ঘরে এভাবেই দিনের পর দিন নেত্রকোনার মোহনগঞ্জে চলে আসছে বিশেষ এই জুয়ার আসর।

মূলত বড় স্কিনের ট্যাবলেট ফোনে (ট্যাব) বিশেষ ধরণের সফটওয়্যারে ইন্টারনেটের সংযোগ দিয়ে বসে এই জুয়ার আসর। এই জুয়ার আসর এর বেশিরভাগই ক্রেতা তরুণ-তরুণীরা। ট্যাবে সফটওয়্যারের ঘুরপাক থেমে গেলে শোনা যাচ্ছে কারো উচ্ছ্বাস, আবার কারো আর্তনাদ।

প্রতিদিনই সন্ধ্যা নামার পর লাখ লাখ টাকা নিয়ে তরুণরা ভিড় জমায় এই আসরে। অনেকেই খেলতে আসেন অনেকে আবার বন্ধুর হাত ধরে দেখতে আসেন বিশেষ এই খেলা। জুয়ার পাশাপাশি চলে মাদক সেবনও। ডিজিটাল এ জুয়ায় আগ্রহী হয়ে উঠছে উঠতি বয়সের ছেলে মেয়েরা। ফলে জুয়ার টাকা যোগাতে বেচে নিচ্ছে অপরাধের পথ।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রেলস্টেশনের পূর্বদিকে রেললাইন ঘেঁষে গড়ে ওঠা মাছ-সবজি বাজারের এলাকাটি ঘিরে গড়ে উঠেছে এসব ডিজিটাল জোয়ার আসর।

এখানে রাত গভীর হলে বয়স্কদের পাশাপাশি ভিড় বাড়তে থাকে তরুণ-তরুণীদের। এ খেলায় প্রতিদিন নিঃস্ব হয়ে বাড়ি ফিরে অসংখ্য তরুণ-তরুণী। পরে জুয়ার খরচ জোগাতে অনেকে বেছে নেয় অপরাধের পথ। পৌরসভার সামনে রেললাইন ঘেঁষে গড়ে ওঠা মাছ-সবজি মার্কেটে দিনের বেলায় ঘরে তালা মেরে ভেতরে বসে জুয়ার আসর।

রাতে তো ওপেন চলে। সঙ্গে বর্তমানে যোগ হয়েছে আইপিএল জুয়া। ধীরে ধীরে এ জুয়া ছড়িয়ে যাচ্ছে শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে। জুয়ায় কম বয়সী ছেলে-মেয়রাই বেশি। এখানে টাকা পয়সা খুইয়ে নিঃস্ব হয়ে এ সব ছেলে মেয়ে নানা অপরাধ করে বেড়াচ্ছে। এখনি এসব বন্ধ না করলে বিভিন্ন ধরনের অপরাধ বেড়ে যাবে বলেও তাদের ধারণা।

সামাজিক সংগঠক মো. রফিকুল ইসলাম জানান, শুধু রাতে নয় দিনেও শহরের বিভিন্ন দোকানে বসে এমন জুয়ার আসর। ঘরের দরজায় বাহির থেকে তালা লাগিয়ে ভেতরে বসে জুয়া খেলে লোকজন। এমনকি চায়ের দোকানগুলোতে মোবাইল সফটওয়্যারের মাধ্যমে জুয়া খেলা হয়। পাশাপাশি আইপিএল নিয়ে তো জুয়া খেলা আছেই।

এ বিষয়টি অবগত করলে মোহনগঞ্জ থানার ওসি মোহাম্মদ আবদুল আহাদ খান বলেন, তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতে অভিযান পরিচালনা করা হবে। ইউএনও আরিফুজ্জামান বলেন, এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে