৬২ বছরের সংসার, একসঙ্গে ভ্যাকসিন নিলেন ৮০ ঊর্ধ্ব দম্পতি

ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৮ মে ২০২১,   জ্যৈষ্ঠ ৫ ১৪২৮,   ০৫ শাওয়াল ১৪৪২

৬২ বছরের সংসার, একসঙ্গে ভ্যাকসিন নিলেন ৮০ ঊর্ধ্ব দম্পতি

নেত্রকোনা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২১:৪৯ ১১ এপ্রিল ২০২১   আপডেট: ২১:৫৬ ১১ এপ্রিল ২০২১

দ্বিতীয় ডোজের ভ্যাকসিন নিলেন ৮০ ঊর্ধ্ব দম্পতি দুর্গাপ্রসাদ তিওয়ারির বয়স ৯১ ও তার স্ত্রী কৃষ্ণা তিওয়ারির বয়স ৮০ বছর ।

দ্বিতীয় ডোজের ভ্যাকসিন নিলেন ৮০ ঊর্ধ্ব দম্পতি দুর্গাপ্রসাদ তিওয়ারির বয়স ৯১ ও তার স্ত্রী কৃষ্ণা তিওয়ারির বয়স ৮০ বছর ।

দেশে কিছুতেই যেন থামছে না করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। তার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যাও । তবে এর মাঝেই সরকার দ্বিতীয় ডোজের করোনার ভ্যাকসিন প্রক্রিয়া চালু করায় অনেকেই উৎসাহ নিয়ে নিচ্ছেন ভ্যাকসিন।

চলমান এই প্রক্রিয়ায় নাম লিখিয়ে দ্বিতীয় ডোজের ভ্যাকসিন নিলেন ৮০ ঊর্ধ্ব দম্পতি দুর্গাপ্রসাদ তিওয়ারির বয়স ৯১ ও তার স্ত্রী কৃষ্ণা তিওয়ারির বয়স ৮০ বছর ।

রোববার বিকেলে নেত্রকোনার দুর্গাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভ্যাকসিন নিয়েছেন তারা। এই দম্পতিসহ পরিবারের মোট তিন সদস্য ভ্যাকসিন নিয়েছেন। এর আগে গত ১০ ফেব্রুয়ারি ডোজের ভ্যাকসিন নিয়েছিলেন তারা।

দ্বিতীয় ডোজের ভ্যাকসিন নেয়ার পর থেকে কোনো প্রকার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুখোমুখি হননি তারা। এছাড়াও বিগত দুই মাস আগে নেয়া প্রথম ভোজের ভ্যাকসিনেও তাদের কোনো পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া করেনি বলে জানিয়েছেন প্রবীণ এই দম্পতি।

প্রবীণ এই দম্পতি ১৯৫৯ সালে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। এরপর থেকেই দীর্ঘ ৬২ বছর কাটিয়েছেন এক ছাদের নিচে। দীর্ঘ এই পথ চলায় নানা প্রতিকূল পরিস্থিতি মোকাবিলা করেছেন। তাদের ছোট সংসার আজ বড় হয়েছে। তাদের হাতেই বেড়ে উঠেছেন তাদের সন্তান থেকে শুরু ছেলের ঘরের সন্তানেরাও।

দীর্ঘদিনের সংসারে এক সঙ্গেই পরপর দু’দফা করোনার ভ্যাকসিন নিয়েছেন তারা। এখন পর্যন্ত করোনা তাদের ধারে কাছেও ভিড়তে পারেনি। প্রবীণ এই দম্পতি স্বপ্ন দেখেন আরো দীর্ঘ বছর থাকবেন এক সঙ্গেই। সেই সঙ্গে স্বপ্ন দেখেন পুরো পৃথিবী একদিন করোনামুক্ত হবে।  তাদের মতই বাকি সবাই করোনাকে হারিয়ে দীর্ঘদিন বেঁচে থাকবেন এই পৃথিবীতে।

দুর্গাপ্রসাদ-কৃষ্ণা তিওয়ারি দম্পতি ডেইলি বাংলাদেশকে বলেন, দুই মাসের ব্যবধানে পর পর দুই দফায় করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন নিয়ে সম্পূর্ণ সুস্থ রয়েছেন তারা। ভ্যাকসিন নেয়ার পর কোনো সমস্যা মুখোমুখি হননি তারা। এখন পর্যন্ত প্রবীণ এই দম্পতিসহ সম্পূর্ণ সুস্থ রয়েছেন পরিবারের বাকি সদস্যরাও।

তারা আরো বলেন, আমরা স্বেচ্ছায় করোনা ভ্যাকসিন নিয়েছি। সবাই যদি আমাদের মত উৎসাহ উদ্দীপনা নিয়ে ভ্যাকসিন নেয় তাহলে দেশে যে হারে করানোর আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে তা হয়তো অনেকটাই কমে যাবে। পাশাপাশি সবাইকে সচেতন হয়ে জনসমাগম এড়িয়ে বাহিরে বের হওয়ায় মাক্স পরে বের হওয়ার পরামর্শ দেন প্রবীণ এই দম্পতি।

এই দিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে, এখন পর্যন্ত প্রথম ধাপে করোনার ভ্যাকসিন নিয়েছেন ৪ হাজার ৫২৮ জনকে । দ্বিতীয় ধাপে টিকা প্রদান শুরু হওয়ার পর থেকে মোট তিন দিনে ২৮৩ জন টিকা নিয়েছেন। এর মাঝে দ্বিতীয় ধাপের টিকা প্রদানের তৃতীয় দিন রোববার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ১১২ জন টিকা নিয়েছেন।

এখন পর্যন্ত এই উপজেলায় চলতি বছরের নতুন তিনজনসহ করোনায় আক্রান্ত ৯৫ জন। আর পুরো জেলায় এখন পর্যন্ত আক্রান্ত ৯৫৫ জন। সুস্থ হয়েছেন ৮৭৬ জন। মৃত্যু হয়েছে ১৭ জনের।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে