শিশুকে গাছে বেঁধে নির্যাতন, বিচার চেয়ে নিরাপত্তাহীনতায় পরিবার 

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ০৬ মে ২০২১,   বৈশাখ ২৩ ১৪২৮,   ২৩ রমজান ১৪৪২

শিশুকে গাছে বেঁধে নির্যাতন, বিচার চেয়ে নিরাপত্তাহীনতায় পরিবার 

ভোলা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:৩৪ ১১ এপ্রিল ২০২১  

শিশুকে গাছে বেঁধে নির্যাতন, বিচার চেয়ে নিরাপত্তাহীনতায় পরিবার 

শিশুকে গাছে বেঁধে নির্যাতন, বিচার চেয়ে নিরাপত্তাহীনতায় পরিবার 

ভোলার চরফ্যাশনের চর আর কলমী গ্রামের একটি সংঘবদ্ধ সন্ত্রাসীর হাতে জিম্মি হয়ে পড়েছে এলাকাবাসী। ওই সন্ত্রাসী গ্রুপটি আল আমিন নামের এক শিশুকে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে গাছে বেঁধে নির্মম নির্যাতন করে তার মায়ের কাছে এক লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করেন। 

এ ঘটনার বিচার চাওয়ায় শিশু আলামিনের পরিবারের সদস্যদের ওপর কয়েক দফা হামলা করেছে। মিথ্যা মামলায় জড়ানোসহ বিভিন্ন হুমকি অব্যাহত রেখেছে। এতে চরম নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছেন ভোক্তভোগী পরিবার। রোববার দুপুরে নির্যাতিত শিশু আল আমিনের বড় ভাই দুলাল সংবাদ সম্মেলন এসব অভিযোগ করেন। এ সময় দুলালের বাবা, মা, স্ত্রী, ছোট ভাইসহ পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে দুলাল বলেন, উপজেলার নজরুল নগর ইউনিয়ন ৪ নম্বর ওয়ার্ডের চর আর কলমী গ্রামের মো. হারুন, সিরাজ বেপারী, জাহাঙ্গীর, আওলাদ সম্প্রতি বাসা থেকে তার স্কুল পড়ুয়া ছোট ভাই শিশু আল আমিনকে ডেকে নিয়ে সুপারি গাছের সঙ্গে হাত পা বেঁধে নির্মম নির্যাতন করে তার মায়ের কাছে এক লাখ টাকা মুক্তিপণের চাদাঁ দাবি করে। 

খবর পেয়ে দক্ষিণ আইচা থানা পুলিশ আল আমিনকে উদ্ধার করে চরফ্যাশন হাসপাতালে ভর্তি করেন। মুক্তিপণের টাকা না পেয়ে ওই ঘটনার ৪দিন পর আল আমিনের বড় ভাই ইমনকে বজলু বাজারে জনসমক্ষে মারধর করে। এর বিচার ও প্রতিকার চেয়ে দক্ষিণ আইচা থানায় জিডি ও ভোলায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুন্যালে আল আমিনের মা নাজমা বেগম বাদী হয়ে মামলা করেন। এতে জড়িতরা আরো ক্ষুব্ধ হয়ে আল আমিনের মা নাজমা বেগম, বাবা সামসুদ্দিন চৌধুরী, নানা সামসল হককে কয়েক বার মারধর করেন।

গত ৬ এপ্রিল সন্ধায় বজলু বাজারে শিশু আল আমিনকে আরেক দফা পিটিয়ে আহত করেন সন্ত্রাসীরা। এদিকে দুলাল কর্মস্থল থেকে ছুটিতে বাড়িতে এলে তাকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো চেষ্টাসহ বিভিন্ন হুমকি অব্যাহত রেখেছে। সন্ত্রাসীদের দফায় দফায় হামলা ও হুমকিতে চরম নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছেন দুলালসহ পরিবাবের সদস্যরা। দুলাল পরিবারের সদস্যদের নিরাপত্তার দাবি করেছেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে