মাকে অমানবিক নির্যাতন বাবার, সেই রাতের বর্ণনা দিলো মেয়ে

ঢাকা, শনিবার   ১৭ এপ্রিল ২০২১,   বৈশাখ ৪ ১৪২৮,   ০৪ রমজান ১৪৪২

মাকে অমানবিক নির্যাতন বাবার, সেই রাতের বর্ণনা দিলো মেয়ে

নড়াইল প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২৩:১৪ ৮ মার্চ ২০২১  

মায়ের ওপর বাবার অমানবিক নির্যাতনের বর্ণনা দেয় ফারজানা-শাহান শাহ দম্পতির বড় মেয়ে শাহ্জাদী মারিয়াম বিনতে শাহান

মায়ের ওপর বাবার অমানবিক নির্যাতনের বর্ণনা দেয় ফারজানা-শাহান শাহ দম্পতির বড় মেয়ে শাহ্জাদী মারিয়াম বিনতে শাহান

নড়াইল সদর উপজেলার মাইজপাড়া ইউনিয়নের চারিখাদা গ্রামে তৃতীয় স্ত্রীকে ঘরে তুলতে বাধা দেয়ায় অন্তঃসত্ত্বা প্রথম স্ত্রী ফারজানা বেগমকে অমানবিক নির্যাতন করেছেন স্বামী শাহান শাহ সরদার। গুরুতর অবস্থায় খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ফারজানা।

৬ মার্চ রাতের সেই নির্যাতনের বর্ণনা দিয়েছেন শাহান শাহ-ফারজানা দম্পতির বড় মেয়ে শাহ্জাদী মারিয়াম বিনতে শাহান। সোমবার দুপুরে নড়াইল জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে আর্ন্তজাতিক নারী দিবসের আলোচনা সভায় মায়ের ওপর বাবার অমানবিক নির্যাতনের বর্ণনা দিয়ে তাদের ভরণ-পোষণ ও নিরাপত্তার দাবি জানান তিনি।

সভায় শাহজাদী বলেন, শনিবার রাতে বাবা তার তৃতীয় স্ত্রীকে নিয়ে বাড়িতে আসে এবং ঘরে তুলতে যায়। ওই সময় মা এবং আমরা দুইবোন বাধা দেয়ায় বাবা, তার তৃতীয় স্ত্রী মারিয়া ও আমার দাদা সবদার সরদার মিলে আমার আট মাসের অন্তঃসত্ত্বা মা ফারজানাকে কিল-ঘুষি-লাথি মারে। আমরা ঠেকাতে গেলে আমাদেরও মারধর করে। মারধরে মায়ের পেটে আঘাত লেগে সে অচেতন হয়ে পড়ে। আমার মাকে ওই রাতেই প্রথমে নড়াইল সদর হাসপাতালে ও পরে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করি।

তিনি আরো বলেন, ঘটনার পর আমার বাবা আমাদের বাড়ি থেকে বের করে ঘরে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছে। আমরা এখন কোথায় উঠবো, আমাদের ভরণ-পোষণ কীভাবে চলবে তা ভেবে পাচ্ছি না। এছাড়া আমার বাবা ও তার তৃতীয় স্ত্রী নানাভাবে আমাদের হুমকি দিচ্ছে। আমরা ভয়ে মামলা করতে পারিনি।

এরপর সভায় অংশগ্রহণ করা অতিথিরা অভিযুক্ত শাহান শাহ সরদারের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের পাশাপাশি পরিবারটিকে নিরাপত্তা দেয়ার আশ্বাস দেন।

জেলা প্রশাসন ও জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদফতরের আয়োজনে আন্তর্জাতিক নারী দিবসের আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান, পুলিশ সুপার প্রবীর কুমার রায়, জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা মো. আনিছুর রহমান, নড়াইল পৌর মেয়র আঞ্জুমান আরা, জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা এস.এম ছায়েদুর রহমান, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রাবেয়া ইউসুফ, জাতীয় মহিলা সংস্থা নড়াইলের চেয়ারম্যান সালমা রহমান কবিতা প্রমুখ।

নড়াইল সদর উপজেলার মাইজপাড়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের গণিত শিক্ষক শাহান শাহ সরদারের সঙ্গে ২১ বছর আগে বিয়ে হয় ফারজানার। তাদের বড় মেয়ে শাহজাদী মারিয়া এইচএসসি পরীক্ষার্থী, মেঝো মেয়ে শাহ আফরিন নবম শ্রেণির ছাত্রী ও ছোট মেয়ে ফাতেমা তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী। এখন চতুর্থ সন্তানের মা হতে যাচ্ছেন ফারজানা। বর্তমানে তিনি আট মাসের অন্তঃসত্ত্বা।

বিয়ের পরই স্বামীর বিরুদ্ধে নারী কেলেঙ্কারির তথ্য জানতে পারেন ফারজানা বেগম। ২০০৫ সালে পলি নামে এক মেয়েকে দ্বিতীয় বিয়ে করেন শাহান শাহ। পরবর্তীতে পরিবার ও প্রথম স্ত্রী অনুরোধে তাকে তালাক দেন তিনি। এরপর সংসারে কিছুদিন শান্তি ছিল। কিন্তু মাঝেমধ্যেই শাহান শাহ’র বিরুদ্ধে নারী ঘটিত বিভিন্ন অভিযোগ আসতো।

সর্বশেষ চলতি বছরের ১ ফেব্রুয়ারি নিজের এক ছাত্রীকে বিয়ে করেন তিনি। এটি তার তৃতীয় বিয়ে। মারিয়া নামে ওই নারী মাইজপাড়া ইউনিয়নের কল্যাণখালী গ্রামের বাসিন্দা। ৬ মার্চ সন্ধ্যার দিকে তাকে বাড়িতে নিয়ে যান শাহান শাহ। তখন ফারজানা ও তার মেয়েরা বাধা দেয়ায় শ্বশুর সবদার সরদার, স্বামী শাহান শাহ সরদার ও তার তৃতীয় স্ত্রী মারিয়া তাদের অমানবিক নির্যাতন করে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর