কলেজছাত্রীকে আটকে রেখে ধর্ষণ, ধর্ষকের যাবজ্জীবন

ঢাকা, শনিবার   ১৭ এপ্রিল ২০২১,   বৈশাখ ৪ ১৪২৮,   ০৪ রমজান ১৪৪২

কলেজছাত্রীকে আটকে রেখে ধর্ষণ, ধর্ষকের যাবজ্জীবন

জামালপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:৪৯ ৮ মার্চ ২০২১  

জামালপুর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালত। ফাইল ছবি

জামালপুর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালত। ফাইল ছবি

জামালপুরে কলেজছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের ঘটনায় করা মামলায় রুবেল নামে এক যুবককে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। একই সঙ্গে বিশ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এ সময় আসামি আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

রোববার দুপুরে জামালপুর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতে জেলা জজ এম আলী আহমদ এই দণ্ডাদেশ দেন। দণ্ডিত রুবেল রাজশাহীর মোহনপুর থানার আতা নারায়ণপুর গ্রামের সিরাজ উদ্দিন মন্ডলের ছেলে।

শহরের মনিরাজপুর এলাকার বাসিন্দা ওই ছাত্রী জাহেদা শফির মহিলা কলেজে এইচএসসি প্রথম বর্ষে পড়তেন। তাদের দুঃসম্পর্কের আত্মীয় রুবেল রাজশাহী থেকে মাঝে মধ্যে বেড়াতে আসতেন। এর মধ্যে রুবেলের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে ওই ছাত্রীর। রুবেল ২০০৯ সালের ৫ আগস্ট তাদের বাড়িতে বেড়াতে আসেন। পরদিন সকালে বাড়ি থেকে বিদায় নেয়ার কিছুক্ষণ পর ওই ছাত্রীও কেনাকাটার জন্য শহরের কথাকলি মার্কেটে যান। তারপর রুবেলের গ্রামের বাড়িতে চলে যান তারা। রুবেল তাকে বিয়ে না করে নিজবাড়িসহ আত্মীয় স্বজনের বাড়িতে প্রায় ১ মাস আটকে রেখে ধর্ষণ করেন।

এ ঘটনায় ওই বছরের ১২ আগস্ট জামালপুর সদর থানায় একটি অপহরণ মামলা করেন ধর্ষণের শিকার ছাত্রীর মা। পরে মামলাটি নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে যায়। ১ মাস পর রুবেলের বাড়ি থেকে ওই ছাত্রীকে উদ্ধার করে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে পুলিশ। সেই সঙ্গে রুবেলকেও গ্রেফতার করা হয়।

সেই মামলায় ৭ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আদালত এই রায় দেন। মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের পাবলিক প্রসিকিউটর ছিলেন আইনজীবী মো. আকরাম হোসেন এবং বিবাদী পক্ষের আইনজীবী ছিলেন জাহিদ আনোয়ার।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে