বাতাসে লাশের গন্ধ, বেরিয়ে এলো সাত টুকরো করে খুনের কাহিনি 

ঢাকা, সোমবার   ১২ এপ্রিল ২০২১,   চৈত্র ২৯ ১৪২৭,   ২৮ শা'বান ১৪৪২

বাতাসে লাশের গন্ধ, বেরিয়ে এলো সাত টুকরো করে খুনের কাহিনি 

গাজীপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২২:০৬ ৭ মার্চ ২০২১   আপডেট: ২২:১১ ৭ মার্চ ২০২১

রেহানার উদ্ধারকৃত মরদেহ

রেহানার উদ্ধারকৃত মরদেহ

স্ত্রীকে হত্যার পর লাশ কেটে সাত টুকরো করা হয়। তারপর লাশের টুকরোগুলো কাপড়ে মুড়িয়ে তিনটি বস্তায় ভরে পাশের বাড়ির সেপটিক টাংকির উপরে জঙ্গলের ফেলে রাখে। রোববার লাশ পচে গন্ধ বের হলে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ স্বামীকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করলে বের হয়ে আসে রোমহর্ষক হত্যার কাহিনি। 

পারিবারিক কলহের জেরে গাজীপুরে গার্মেন্টস কর্মী স্ত্রীকে মারধর করে সাত টুকরা করে খুন করার পর লাশ বস্তায় ভরে জঙ্গলে ফেলে রাখে স্বামী। পুলিশ রোববার বিকেলে গাজীপুর সদর উপজেলার বোকরান মনিপুর এলাকা থেকে গৃহবধূ রেহানা আক্তারের বস্তাবন্দি সাত টুকরো লাশ উদ্ধার করেছে। 

রেহানা সুনামগঞ্জ জেলার বিশ্বাম্ভরপুর উপজেলার পলাশ ইউনিয়নের কচির গাতি গ্রামের মালেকের মেয়ে। ওই ঘটনার সঙ্গে জড়িত রেহানার স্বামী একই এলাকার আব্দুল বাতেনের ছেলে জুয়েল আহমেদকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, জুয়েল তার বড় ভাইয়ের শালিকা রেহানার সঙ্গে প্রেম করে প্রায় ২ বছর আগে পালিয়ে বিয়ে করে। পরে তারা গত ২ মাস ধরে গাজীপুর সদর উপজেলার বোকরান মনিপুর এলাকায় জাকির হোসেনের বাড়িতে ভাড়া থেকে স্থানীয় ফকির ফ্যাশন লিমিটেডে শ্রমিকের কাজ করতো। গত ৪মার্চ সন্ধ্যায় পারিবারিক কলহের জেরে তাদের স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে জুয়েল তার স্ত্রী রেহানাকে মারধর করে। এতে রেহানা জ্ঞান হারিয়ে ফেলে।

একপর্যায়ে গভীর রাতে জুয়েল ধারাল ছোরা দিয়ে তার স্ত্রী রেহানাকে প্রথমে গলা কেটে দ্বিখণ্ডিত করে খুন করে। পরে কোমর ,হাঁটু ও হাত কেটে লাশ সাত টুকরো করে। পরে লাশের টুকরোগুলো কাপড়ে মুড়িয়ে তিনটি বস্তায় ভরে পাশের বাড়ির সেপটিক টাংকির উপরে জঙ্গলের মধ্যে ফেলে রাখে। রোববার মরদেহ পচে গন্ধ বের হলে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেয় এবং স্বামী জুয়েলকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করে। একপর্যায়ে পুলিশের কাছে হত্যাকান্ডের রোমহর্ষক বর্ণনা দেয় জুয়েল। 

পুলিশ লাশের সাত টুকরো এবং হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছোরা উদ্ধার করেছে। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। এ ঘটনায় হত্যার শিকার রেহানার ভাই বাদী হয়ে থানায় মামলা করেছে। 

জয়দেবপুর থানার পরিদর্শক নাজমুল হুদা জানান, স্থানীয়দের থেকে খবর পেয়ে গৃহবধূর স্বামীকে আটক করা হয়। তার স্বীকারোক্তিতে বাড়ির আশপাশের রাস্তায় তল্লাশি চালিয়ে সাত টুকরো লাশ উদ্ধার করা হয়। 

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ